কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

দেশ ২০২২ সালের মধ্যে জলাতঙ্ক ব্যাধিমুক্ত হবে


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ মে ২০১৮, রবিবার, ৮:২৩ | স্বাস্থ্য 


জলাতঙ্কের ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার ব্যাপক কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। দেশের সকল কুকুরকে পর্যায়ক্রমে জলাতঙ্ক প্রতিরোধক ভ্যাকসিন দেয়া হবে। এভাবে ২০২২ সালের মধ্যে দেশ থেকে জলাতঙ্ক রোগ নির্মূল করা হবে। রোববার দুপুরে জেলা কালেক্টরেট সম্মেলন কক্ষে এক অবহিতকরণ সভায় একথা জানানো হয়।

সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে স্বাস্থ্য বিভাগ আয়োজিত অবহিতকরণ সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ, প্রাণী সম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. পবিত্র কুমার সাহা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক ডা. হেলাল উদ্দিন, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ, জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. আব্দুল মান্নান, পাকুন্দিয়ার পৌর মেয়র আক্তারুজ্জামান খোকন, জেলা বিএমএ সম্পাদক ডা. আব্দুল ওয়াহাব বাদল, পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইসচেয়ারম্যান আজিজুল হক, তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. মোল্লা মতিউর রহমান প্রমুখ।

সভায় জানানো হয়, জেলা পর্যায়ে থাকবে জলাতঙ্কের বিনামূল্যের সরকারি ভ্যাকসিন। কাউকে কুকুর বা র‌্যাবিস ভাইরাসবাহী কোন প্রাণী কামড়ালে সঙ্গে সঙ্গে ভিকটিমকে জেলা সদরের হাসপাতালে নিয়ে গেলে বিনামূল্যে নির্দিষ্ট ডোজের ভ্যাকসিন দেয়া হবে।

চিকিৎসক, প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, বিভিন্ন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সংবাদ কর্মিদের অংশগ্রহণে আয়োজিত সভায় সভায় জানানো হয়, কারো জলাতঙ্ক রোগ হয়ে গেলে মৃত্যু অবধারিত। কোন কোন কুকুর, বিড়াল, শিয়াল, বানর ও বেজি র‌্যাবিস ভাইরাস বহন করতে পারে। এসব প্রাণীর কামড় বা আঁচড়ের মাধ্যমে মানুষ বা গবাদি পশুর জলাতঙ্ক রোগ হতে পারে। ২০১০ সালের আগে বাংলাদেশে বছরে দুই হাজারের বেশি মানুষ জলাতঙ্কে মারা যেত। এদের শতকরা ৯৫ থেকে ৯৯ ভাগই কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হতো। বাংলাদেশে কুকুরের সংখ্যা আনুমানিক ১২ লাখ থেকে ১৫ লাখ। প্রতি বছর ২ থেকে ৩ লাখ মানুষ কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়।

জলাতঙ্ক রোগ নির্মূল কর্মসূচীর আওতায় দেশের সকল জেলায় তিন রাউন্ডে ব্যাপক হারে কুকুরকে টিকাদান করা হবে। এ কার্যক্রমের আওতায় ইতোমধ্যে দেশে ৪ লাখ ৭৩ হাজারের বেশি কুকুরকে প্রতিষেধক টিকা দেয়া হয়েছে। আগামী ২০২২ সালের মধ্যে দেশের সকল কুকুরকে এ টিকা প্রদান করা হবে।

সভায় বলা হয়, কিশোরগঞ্জে কুকুর আছে ৩৫ হাজার। এসব কুকুরকে তিন বছরে তিন ডোজ ভ্যাকসিন দেয়া হবে। এক সময় বেওয়ারিশ কুকুর মেরে ফেলা হতো। কিন্তু পরিবেশ সুরক্ষায় কুকুরের ভূমিকা রয়েছে। কাজেই এখন কুকুর না মেরে এগুলিকে জলাতঙ্ক নিরোধক ভ্যাকসিন দেয়ার কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। নির্ধারিত এলাকায় প্রশিক্ষিত ‘ডক ক্যাচার’ থাকবে। স্থানীয়দেরও প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। তারা সম্মিলিতভাবে কুকুর ধরে এদেরকে টিকা প্রদান করবেন।

সভায় সবাইকে সতর্ক করে দিয়ে বলা হয়, অনেকে কুকুর-বিড়ালে কামড়ালে বা আঁচড় দিলে গুরুত্ব দিতে চান না। কয়েকদিন কিছু না হলে মনে করেন আর সমস্যা নেই। অথচ আমেরিকায় একজন ভিকটিমকে কুকুরে কামড় দেয়ার ১০ বছর পর তার জলাতঙ্ক হয়েছিল। কাজেই কেউ আক্রান্ত হলে সঙ্গে সঙ্গে ক্ষতস্থান সাবান দিয়ে বার বার ধুয়ে ফেলতে হবে। এরপর এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ করে সময় ক্ষেপণ না করে জলাতঙ্কের ইনজেকশন দিতে হবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ