কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভুট্টায় লাভবান হাওরের কৃষক, বাড়ছে আবাদ


 মোস্তফা কামাল | ১৮ মে ২০১৮, শুক্রবার, ৭:৪৪ | কৃষি 


করিমগঞ্জের চামড়া নৌবন্দরে ভুট্টা বোঝাই নৌকা। যাবে ফিড কারখানায়।

কিশোরগঞ্জে ক্রমেই ভুট্টার আবাদ বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে। আগের মৌসুম থেকে পরের মৌসুমে ভ্ট্টুার আবাদ লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে চলেছে। দেশে গবাদি ও পোল্ট্রি শিল্পের বিকাশের ফলে ফিড কারখানারও বিকাশ ঘটছে। আর এসব ফিড কারখানার অন্যতম উপদান হিসেবে দিন দিনই ভুট্টার চাহিদাও বেড়ে চলেছে। পাশাপাশি ফলন এবং দাম ভাল পাওয়ায় কৃষকরাও এখন ভুট্টা আবাদের দিকে ঝুঁকছেন।

শহরের খামার বাড়ি সূত্রে জানা যায়, জেলার ১৩ উপজেলায় এবার ভুট্টা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৪ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে। আর উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৮ হাজার ৯৩৮ মেট্রিকটন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আবাদ হয়েছে ৪ হাজার ৬৮০ হেক্টর জমিতে।

এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১৮০ হেক্টর, হোসেনপুরে ৮০ হেক্টর, পাকুন্দিয়ায় ১৩৫ হেক্টর, কটিয়াদীতে ৪৫ হেক্টর, করিমগঞ্জে ৭৫ হেক্টর, তাড়াইলে ১০ হেক্টর, ইটনায় ১০০ হেক্টর, মিঠামইনে ৬৯০ হেক্টর, নিকলীতে এক হাজার ৮২০ হেক্টর, অষ্টগ্রামে ৩১০ হেক্টর, বাজিতপুরে এক হাজার ১৮০ হেক্টর, কুলিয়ারচরে ৪৫ হেক্টর এবং ভৈরব উপজেলায় ১০ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ করা হয়েছে। অর্থাৎ, লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ২৩০ হেক্টর বেশি জমিতে ভুট্টার আবাদ হয়েছে। আর উৎপাদনও হবে ৪০ হাজার ৯৫০ দশমিক ৫৩ মেট্রিকটন। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২ হাজার ১২ মেট্রিকটন বেশি।

তথ্যচিত্রে দেখা যাচ্ছে, টান উপজেলাগুলোর তুলনায় হাওর উপজেলাগুলোতে ভ্্ুট্টার আবাদ অনেক বেশি। এরকম চিত্র সাম্প্রতিক বছরগুলোতেই দেখা যাচ্ছে। অথচ এক সময় হাওরের কেউ ভুট্টার আবাদ করতেন না। হাওরের নীচু বোরো ধানের জমিগুলো থাকে আগাম বন্যার ঝুঁকিতে। প্রায়ই আগাম বন্যায় হাওরের হাজার হাজার হেক্টর জমির বোরো ধান তলিয়ে বিনষ্ট করে দিয়ে যায়। কিন্তু ধানের তুলনায় অনেক আগেই জমি থেকে পাকা ভুট্টা আহরণ করা যায়। যে কারণে কৃষি বিভাগের ক্রমাগত উদ্বুদ্ধকরণের ফলে এখন হাওরের কৃষকরা আগাম বন্যার ঝুঁকিমুক্ত এই ফসলটি আবাদের দিকে ক্রমেই ঝুঁকছেন।

গতবছর স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় কিশোরগঞ্জসহ হাওর অধ্যুষিত কয়েকটি জেলার নীচু জমির সমস্ত বোরো ফসলই বিনষ্ট হয়ে গেছে। কিন্তু তখনও হাওরের ভুট্টা ঠিকই বন্যার আগেই আহরণ করা সম্ভব হয়েছিল। যে কারণে এবছর হাওরের কৃষকরা ভুট্টার আবাদ বাড়িয়েছেন। ভুট্টা একটি খাদ্যপণ্য হলেও অন্যতম অর্থকরি ফসলও বটে। যে কারণে কৃষকরা দিন দিন ভুট্টা আবাদের প্রতি আগ্রহী হচ্ছেন। বর্তমানে প্রতিমণ ভুট্টা ৬শ’ থেকে ৭শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এক সময় ভুট্টা আবাদের প্রচলন ছিলই না। আলু, মিষ্টি আলু, মরিচ, বেগুন, সরিষা, কপিসহ বিভিন্ন শাকসবজির বাগানের ধার ঘেঁষে এক লাইনে সখ করে কৃষকরা কিছু ভুট্টা দানা বুনে দিতেন। আর তা থেকে যতটুকু ভুট্টা পাওয়া যেতো, সেগুলি ঘরে ভেজে খাওয়া হতো। কিন্তু এখন যতই দিন যাচ্ছে, ভুট্টার আবাদ ক্রমেই বেড়ে চলেছে। ভুট্টার আগ্রাসনে এখন স্বল্প লাভের অন্যান্য ফসলের আবাদ কমে যাচ্ছে। ভুট্টার রোগবালাই কম হয়। ফলে ভুট্টা আবাদে ঝুঁকিও কম।

পোল্ট্রি ফিডের কারখানায় ভুট্টার যেমন ব্যাপক চাহিদা রযেছে, পপকর্ণ তৈরিতেও ভুট্টার ব্যবহার কমে বাড়ছে। আবার কাঁচা ভুট্টা পাতা গোখাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ভুট্টার মোচা আহরণের পর গাছগুলোও বাড়ির বেড়া এবং জ্বালানী হিসেবে ব্যবহৃত হয়। উপাদেয় গোখাদ্য হিসেবে ভুট্টার ভুষিরও ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ফলে বহুমাত্রিক ব্যবহারমূল্যের কারণেই কৃষকদের কাছে এখন ভুট্টা আবাদ যথেষ্ট লাভজনক।

সম্প্রতি করিমগঞ্জের চামড়া নৌবন্দরে গিয়ে দেখা গেছে, ধানের পাশাপাশি হাওরের বিভিন্ন উপজেলা থেকে বিভিন্ন ফিড কারখানায়র জন্য নৌকা বোঝাই করে ভুট্টাও আনা হচ্ছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর


















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ