www.kishoreganjnews.com

সৈয়দ নজরুল: ইতিহাসের শিক্ষক থেকে ঐতিহাসিক চরিত্র



[ ভিখারুননেছা রেইনি, অতিথি লেখক। | ৩ নভেম্বর ২০১৭, শুক্রবার, ২:৪৫ | মত-দ্বিমত ]


বেঁচে থাকলে তাঁর বয়স হতো ৯২ বছর। ১৯৭৫ সালে ঘাতকের বুলেটে নির্মমভাবে নিহত হওয়ার সময় তাঁর বয়স ছিল ৫০ বছর। সংক্ষিপ্ত জীবনেই তিনি ইতিহাসের শিক্ষকতা পেশা শেষে বাঙালি জাতির স্বাধীনতার আন্দোলন-সংগ্রামের অন্যতম রাজনৈতিক নেতার ভূমিকা পালন করে পরিণত হন ঐতিহাসিক চরিত্রে। তিনি জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশের ইতিহাসের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ তিনি।

কিশোরগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠে যশোদলের বীরদামপাড়া গ্রামে ১৯২৫ সালে জন্ম গ্রহণকারী সৈয়দ নজরুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে বিভাগের সর্ব্বোচ ডিগ্রি অর্জন করে পেয়েছিলেন উচ্চমযাদার সরকারি চাকরি। স্বাধীনতাকামী ব্যক্তিত্বের জন্য সরকারি চাকরি ছেড়ে গ্রহণ করেন অধ্যাপনা। ময়মনসিংহের প্রসিদ্ধ আনন্দমোহন কলেজের তিনি ছিলেন ইতিহাসের জনপ্রিয় অধ্যাপক। তখন কে জানতো, ইতিহাসের এই তরুণ অধ্যাপকই বাংলাদেশের ইতিহাসের গৌরবময় অংশে পরিণত হবেন? নিজেই হয়ে যাবেন ঐতিহাসিক চরিত্র?

সৈয়দ নজরুল ইসলামকে সরাসরি দেখেছেন বা এক সঙ্গে কাজ করেছেন, এমন মানুষ এখন মুষ্টিমেয়। তাঁর রাজনৈতিক সহযোদ্ধাদের কেউই বলতে গেলে জীবিত নেই। কিশোরগঞ্জের প্রবীণ চিকিৎসক, ভাষা সংগ্রামী ও মুক্তিযদ্ধের সংগঠক ডা. এ.এ. মাজহারুল হক তিন দশকেরও বেশি সময় সৈয়দ নজরুলের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে ছিলেন। সৈয়দ নজরুল ইসলাম আনন্দমোহন কলেজে অধ্যাপনা শুরুর সময় ডা. মাজহারুল হক ছিলেন সে কলেজের ছাত্র। তিনি বলেন, ‘সরাসরি শিক্ষক না হলেও সৈয়দ নজরুল ছিলেন আমার শিক্ষক তুল্য। আমি ছিলাম বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। অতএব ইতিহাসের ক্লাস করার সুযোগ ছিল না। কিন্তু আমরা কিশোরগঞ্জ অঞ্চলের লোক হিসাবে পরস্পর ঘনিষ্ঠ ছিলাম। কলেজে তখন কিশোরগঞ্জ অঞ্চলের অধ্যাপক বিশেষ কেউ ছিলেন না। ফলে তিনি ছিলেন আমাদের মুরব্বী ও অভিভাবক-তুল্য।’

ডা. এ.এ. মাজহারুল হক জানান, ‘নানা সময়ের আলাপ-আলোচনায় লক্ষ্য করেছি, তিনি ঐতিহাসিক বিভিন্ন ঘটনা ও ব্যক্তিত্ব নিয়ে চমৎকার বক্তব্য রাখতেন। বাঙালি জাতির ইতিহাস ও অধিকারের কথা খুবই বুদ্ধিদীপ্ত ভাষায় তুলে ধরতেন তিনি। যুক্তি ও ঐতিহাসিক তথ্য ছিল তাঁর আলোচনার প্রধান দিক।’

চল্লিশের দশকের শেষ দিকে সৈয়দ নজরুলের সঙ্গে গড়ে ওঠা সম্পর্ক আজীবন রক্ষা করেন ডা. মাজহারুল হক। তিনি বলেন, ‘পঞ্চাশের দশকের শুরুতে আমি ময়মনসিংহের পড়াশোনা শেষে এমবিবিএস অধ্যয়নের জন্য ঢাকা মেডিকেল লেজেক ভর্তি হয়ে চলে এলেও তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক অটুট থাকে। তিনি রাজনৈতিক কারণে ঢাকায় এলে আমাদের খোঁজ-খবর নিতেন। পরবর্তীতে ভাষা আন্দোলনে অংশ গ্রহণ, বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্য এবং সৈয়দ নজরুলের প্রণোদনায় আমি সরকারি চাকরি না নিয়ে কিশোরগঞ্জে স্বাধীনভাবে চিকিৎসা পেশা গ্রহণ করি। সে সময় কিশোরগঞ্জ মহকুমা আওয়ামী লীগ গঠিত হলে আমি প্রতিষ্ঠাকালীন কোষাধ্যক্ষ হয়ে স্বাধীনতার পর পর্য়ন্ত সে দায়িত্ব পালন করি। তখন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পরে কেন্দ্রিয় নেতা হিসাবে সৈয়দ নজরুলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা আরও বৃদ্ধি পায়।’

‘সৈয়দ নজরুল ইসলাম কিশোরগঞ্জসহ বৃহত্তর ময়মনসিংহে আওয়ামী লীগের দৃঢ় সাংগঠনিক ভিত্তি গড়ার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। গ্রামে-গঞ্জে আমাদের নিয়ে সফর করেছেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করেছেন। যেসব পরিবার এখনও আওয়ামী লীগের ঘাঁটি আর পরিবারের লোকজন এখনও আওয়ামী লীগের একনিষ্ঠ সমর্থক।’ বলেন ডা. মাজহারুল হক।

‘ব্যক্তিগত আচরণে সম্ভ্রান্ত ও ভদ্রতার জন্য সৈয়দ নজরুল ইসলাম সকলের শ্রদ্ধেয় ছিলেন’, জানিয়ে ডা. এ.এ. মাজহারুল হক বলেন, ‘প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে কোনও কটু ও নিন্দনীয় বক্তব্য তিনি দিতেন না। কর্মী-সমর্থকদের সব সময় পড়াশোনার দিকে জোর দিতে উৎসাহিত করতেন। কিশোরগঞ্জে একাধিক বার তাঁর সঙ্গে নির্বাচনী ও সাংগঠনিক কাজ করতে গিয়ে কখনোই অপ্রীতিকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয় নি। তিনি তাঁর দূরদৃষ্টি ও বিচক্ষণতার মাধ্যমে বিরূপ পরিস্থিতিতে কাজ করে আওয়ামী রাজনীতিকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হন।’

বর্তমানে কিশোরগঞ্জে অবসর জীবন-যাপনকারী ডা. এ.এ. মাজহারুল হক কিশোরগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা টেলিফোনে গ্রহণ ও প্রচার করেন। মিত্র ও মুক্তি বাহিনির কাছে হানাদারদের আত্মসমর্পন অনুষ্ঠানের নেতৃত্ব দিয়ে তিনি কিশোরগঞ্জের বিজয়ের ইতিহাসে অসামান্য অবদান রাখেন। বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় চার নেতা কিশোরগঞ্জে তাঁর বাসভবনে একাধিক বার আতিথ্য গ্রহণ করেছিলেন এবং ষাট ও সত্তর দশকে তাঁর চেম্বার ছিল আওয়ামী লীগের অলিখিত কাযালয়। তিনি মনে করেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সৈয়দ নজরুল ইসলামের মতো জাতীয় নেতৃবৃন্দ দেশব্যাপী যে অবিস্মরণীয় রাজনৈতিক অবদান রেখেছেন, তারই ফলে বাংলাদেশ আওয়ামী আজকে বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহৎ ও সংগঠিত রাজনৈতিক দলে পরিণত হতে সমর্থ হয়েছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com