কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

রাজনৈতিক কর্মিরা আয়েশে, পোস্টার লাগায় কামলায়



 মোস্তফা কামাল | ২১ মে ২০১৮, সোমবার, ৬:১৫ | বিশেষ সংবাদ 


রাজনীতির সূচনাকাল থেকেই সম্মেলন, কর্মিসভা, জনসভা, মহাসমাবেশ, শোকসভা, দাবিদাওয়া এবং নির্বাচনসহ সকল পোস্টার দেয়ালে দেয়ালে সাঁটাতেন রাজনৈতিক কর্মিরা। ছাত্র সংগঠন হোক, শ্রমিক সংগঠন হোক, সিবিএ হোক, রাজনৈতিক দল হোক বা অন্য কোন পেশাজীবী সংগঠনই হোক, নিজেরাই ময়দা বা বার্লি জ্বাল দিয়ে পাত্রে নিয়ে হেঁটে হেঁটে তাদের পোস্টার সাঁটানোর কাজটি করতেন। এমনকি দেয়াল লিখন বা চিকা মারার কাজগুলোও নিজেরাই করতেন। চিকার লেখাগুলো দেখলেই বোঝা যেত, অক্ষর বা লাইনগুলো যতই আকাবাঁকা হোক না কেন, এতে পরম মমতা, আন্তরিকতা আর একাগ্রতার স্পর্শ পাওয়া যেত।

কলেজ ছাত্র থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র, কর্মচারী ইউনিয়ন কর্মি থেকে শ্রমিক ইউনিয়ন কর্মি, সবাই নিজ হাতে পরম যত্ন আর আবেগে এসব পোস্টার সাঁটাতেন। কনকনে শীতের মধ্যেও সারা রাত জেগে কর্মিরা পোস্টার সাঁটাতেন, চিকা মারতেন। এর মধ্যে উদ্দেশ্য এবং লক্ষ্যের প্রতি এক ধরনের আন্তরিকতা আর নিষ্ঠার ছোঁয়া থাকতো। আর এভাবে কাজ করার মধ্যে এক ধরনের আনন্দও থাকতো।

কিন্তু এখন আর সেই যুগ নেই, যুগ পাল্টে গেছে। ছাত্র সংগঠনই হোক, রাজনৈতিক দলই হোক, আর যে কোন পেশাজীবী সংগঠনই হোক, সবার গায়ে এখন আরাম-আয়েশ আর সুবিধাবাদের ভুত চেপেছে। কর্মিদের মধ্যে এখন উচ্চাভিলাষী আর সুবিধাবাদী চিন্তা ভর করেছে। কিছু বাম সংগঠন ছাড়া এখন আর কেউ নিজ হাতে পোস্টারও সাঁটান না, চিকাও খুব একটা মারেন না। তবে কখনো কখনো বাম সংগঠনগুলোও ভাড়াটে লোকের শরণাপন্ন হয়।

কেবল নির্বাচনের সময় উৎসাহের কারণে কর্মিরা কিছু পোস্টার সাঁটালেও অন্যান্য অনুষ্ঠান বা কর্মসূচীর পোস্টারগুলো এখন মজুরির বিনিময়ে ভাড়াটে কামলা দিয়ে সাঁটানো হয়। এর জন্য এখন বিভিন্ন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানও গড়ে উঠেছে। তারা এই কাজের বিজ্ঞাপনী লিফলেটও প্রচার করছে। বিভিন্ন দেয়ালে এরকম কাজ করে দেয়ার বর্ণনাসহ লিফলেট সাঁটানো রয়েছে। কিশোরগঞ্জ শহরেও এরকম বেশ কিছু ব্যক্তি আছেন যারা বিভিন্ন সংগঠনের কাছ থেকে চুক্তিতে পোস্টার, ব্যানার এবং ফ্যাস্টুন নিয়ে এগুলি সাঁটানো এবং ঝোলানোর কাজগুলি মজুরির বিনিময়ে শ্রমিক দিয়ে করিয়ে দেন। প্রচারপত্রও বিলি করে দেন।

এখন স্থানীয়ভাবে ছাপা হোক, আর ঢাকা থেকে আসা বিভিন্ন সংগঠনের কেন্দ্রীয় পাস্টার হোক, এগুলি জেলার নেতাদের কাছে আসে। আর নেতারা সেগুলি হয় ভাড়াটে লোক দিয়ে সাঁটানোর ব্যবস্থা করেন, অথবা বিভিন্ন ইউনিটের মাঝে বন্টন করে দেন। ইউনিটের নেতারা আবার ভাড়াটে লোক দিয়ে এগুলি সাঁটিয়ে নেন।  কর্মিরা এখন আর নিজ হাতে পোস্টারও সাঁটান না, ব্যানারও ঝোলান না। চিকাও এখন কর্মিরা খুব কমই লেখেন। পেশাদার লোক দিয়ে চিকা লেখানো হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ