kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

শিক্ষার দায়িত্ব রাস্ট্রকেই নিতে হবে



 এম, এ, বাতেন ফারুকী | ১৯ জানুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার, ৬:১৬ | মত-দ্বিমত 


বাংলাদেশে শিক্ষা নামক ক্ষেত্রটি অত্যন্ত অবহেলিত। সে বৃটিশ শাসনকাল থেকেই শিক্ষাবিভাগ অবহেলিত হয়ে আসছে। ভাবতে অবাক লাগে, ইংরেজরা তাদের নিজেদের প্রয়োজনে, এদেশ শাসন করার প্রয়োজনে এদেশের শিক্ষাব্যবস্থার দিকে নজর দেন এবং কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠাঠান স্থাপন করেন। পরবর্তীতে এলাকার সদ্য শিক্ষিত সমাজহিতৈষি লোকেরা শিক্ষার যথার্থতা উপলব্দি করতে পেরে নিজ নিজ এলাকায় স্কুল, কলেজ, মাদরাসা কিংবা আরও ক্ষুদ্র পরিসরে মক্তব স্থাপন করতে থাকেন। স্বাধীনতার অব্যবহিত পরেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তা ও বিচক্ষণতার সাথে সেই সুযোগটি গ্রহণ করেন। একসাথে এক ঘোষণায় ৩৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করেছিলেন যা আজও ইতিহাস হয়ে আছে। জাতির জনক বেঁচে থাকলে হয়তো শিক্ষকদের এভাবে স্মরণকালের রেকর্ড পরিমাণ  নিম্নতাপমাত্রার শীতল রাতে কূয়াশা ও খোলা আকাশের নিচে রাস্তায় শুয়ে থেকে অবস্থান বা অনশন করতে হতো না।

পরবর্তীতে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা তাঁরই পদাংক অনুসরণ করে আবারও জাতিকে উপহার দিলেন আরো ২৬ হাজার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ। কিন্তু এগুলোও যথানিয়মে নির্মিত ও প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। মোটকথা সরকারকে অবকাঠামোগত ব্যয় করতে হয়নি।

শিক্ষার কাজটি শুরু করতে হলে শিক্ষার্থীর পরেই যা প্রয়োজন তা হলো শিক্ষক। শিক্ষার্থী ও শিক্ষক থাকলে শিক্ষার কাজটি চালানো যায়। এর প্রমাণ খুব দূর অতীতে নয় নিকট অতীতেই দেখতে পাওয়া যায়। ভাঙ্গা জরাজীর্ণ অবকাঠামোতে এমনকি খোলা আকাশের নিচে কিংবা গাছতলায় পড়াশোনার কাজটা এদেশের একটি নৈমিত্তিক চিত্রই ছিল বৈকি। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলেও সত্য যে, তখনকার শিক্ষার মান বর্তমানকার চেয়ে নিম্নগামী ছিল না। কাজেই আগে দক্ষ জনবল অর্থাৎ যুগোপযোগী শিক্ষক সমাজ গড়ে তোলা দরকার। যদিও এটি একটি গুণগত উন্নয়ন। এ উন্নয়ন invisible and untouchable. কিন্তু ইহাই প্রকৃত উন্নয়ন; mother of all development. মনে রাখতে হবে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উন্নয়নের সূতিকাগার। কিন্তু সেটা হতে হবে যত না অবকাঠামোগত তার চেয়ে বেশি গুণগত। শিক্ষার প্রকৃত উন্নয়ন ঘটলে অন্যসব উন্নয়ন অবধারিতভাবে ঘটতে থাকবে।

উপরের কথাগুলো বা যুক্তিসমূহ আমরা সবাই জানি ও বুঝি। সমস্যা অন্য জায়গায়। তৃতীয় বিশ্বের রাজনীতির শিকারে পরিণত হয়েছে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা। তৃতীয় বিশ্বের জনগণ শিক্ষা ও সংস্কৃতিতে অপেক্ষাকৃত পশ্চাদপদ। যার দরুন রাজনীতিকগণ political stunt-এর আশ্রয় নিয়ে থাকেন। ফলাফল যা হবার তাই হয়। স্বল্পমেয়াদি তাৎক্ষণিক দৃশ্যমান ও অপেক্ষাকৃত কম সময়ে উপকার ভোগ করা যায় সেসব উন্নয়ন নিয়েই সরকারকে ব্যস্ত থাকতে হয়। ভোক্তার চাহিদা ও অভাব নির্বাচনের বিচারে সেগুলো যদিও বা অগ্রাধিকার না পায়।

মূলত ১৯৭১ সালের পূর্বে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এ ব-দ্বীপটি বিদেশিদের দ্বারা শাসিত হয়ে আসছিল। তারা শাসনের নামে শুধু শোষণই করেছে। আর যেটুকু উন্নয়ন করেছে সেটুকু তাদের শাসনকার্য পরিচালনার সুবিধার্থে। শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের মত গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রেগুলো সুকৌশলে অবহেলিত থেকে গেছে। কিন্তু সমাজহিতৈষী ও সংস্কারমনা স্বদেশী মানুষগুলো দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে শিক্ষার উন্নতিকল্পে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেছেন।

বর্তমানে বাংলাদেশে সবধরনের মিলে ৩৯০৯২টি বেসরকারি (এমপিওভূক্ত অর্থাৎ মান্থলি পে অর্ডার হিসেবে সরকারের কোষাগার থেকে বেতনভূক্ত) শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। সাথে আছে আরও ৭ হাজারের বেশি ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আশ্চর্যের বিষয় হলেও সত্য যে, এগুলোর সবকটি প্রতিষ্ঠানই কোনো না কোনো বিদ্যানুরাগী ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। অবশ্য সরকার সময়ে সময়ে এসব প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়নে অনুদান দিয়ে সহায়তা করেছে।  ভাবা যায়? এতগুলো প্রতিষ্ঠান, তাদের প্রাথমিক অবকাঠামো, জমি, বছরের পর বছর ননএমপিও অবস্থায় প্রায় বিনা পারিশ্রমিকে কাজ করে প্রতিষ্ঠানগুলো চালিয়ে যাওয়া। এ যে মহাকীর্তি! এ যে সরকারের জন্য এক মহা পাওয়া! অথচ সরকার তার নাগরিকদের রাস্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় শিক্ষাদানে অংগীকারাবদ্ধ। সরকারেরর পক্ষে  যে কাজটি করা অপরিহার্য সে কাজটি অবলিলায় হয়ে যাচ্ছে বেসরকারিভাবে।  এতবড় একটি সাজানো গুছানো অবকাঠামোগত সুবিধে পাওয়ার পরও যদি সরকার শিক্ষার মত একটি সার্বজনীন বিষয়কর্ম জাতীয়করণ করতে এগিয়ে না আসে তবে এর চেয়ে চরম দুর্ভাগ্যের আর কি হতে পারে।

বাস্তব সত্য হল, কিছু ব্যতিক্রম বাদে শিক্ষা কার্যক্রম চলছে দায়সারাভাবে। বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিদের কোনো বিধিমালা কিংবা চাকুরিবিধি নেই, নেই কোনো সুস্পষ্ট নিয়োগবিধি বা নিয়োগ কর্তৃপক্ষ। তদুপরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনেও মানা হচ্ছে না সুস্পষ্ট নীতিমালা।  আমি যে শিক্ষক ও শিক্ষার (কিছু ব্যতিক্রম বাদে) স্বপ্ন দেখি  তা থেকে বাংলাদেশ যোজন যোজন দূরে  পড়ে আছে। আবার শুনতে পাচ্ছি ৬০ হাজারের বেশি বেসরকারি শিক্ষক জাল সনদে  চাকরি করছেন। জানিনা সরকার কি ভাবছেন। এগুলোকে যদি জাতীয়করণের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা মনে করা হয় তবে চরম ভুল করা হবে। এদেশে এখনও শিক্ষার্থীর সংখ্যা অনুপাতে শিক্ষক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দুই-ই অপ্রতুল। সুতরাং  শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে হলে শিক্ষা জাতীয়করণের বিকল্প নেই। জাতীয়করণের পর পর্যায়ক্রমে শিক্ষাব্যবস্থার দুর্বল দিকগুলো সবল করতে হবে।

শিক্ষা জাতীয়করণ শুধু  শিক্ষকদের জন্য এ ধারণা সম্পূর্ণরূপে ভুল। অথচ মন্ত্রীদের কথায় মনে হয় শিক্ষা জাতীয়করণ কেবল শিক্ষকদের স্বার্থেই। শিক্ষা জাতীয়করণ একটি সার্বজনীন বিষয়। এর সাথে কেবল শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির বিষয় জড়িত নয়। এর সঙ্গে জড়িত রয়েছে এদেশের সর্বস্তরের নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকারের বিষয়।

সংবিধানের ১৭ অনুচ্ছেদের 'ক' ধারায় উল্লেখ রয়েছে, 'একই পদ্ধতির গণমুখী ও সার্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য এবং আইনের দ্বারা নির্ধারিত স্তর পর্যন্ত সকল বালক-বালিকাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষাদানের জন্য কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন।'

কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, স্বাধীনতা লাভের ৪৬ বছর পরও সংবিধানের উল্লেখিত ধারাটির পরিপূর্ণ বাস্তবায়ন সম্ভবপর হয়নি। অথচ বলা হচ্ছে দুই বছর পরেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হবে। একটি মধ্যম আয়ের দেশে শিক্ষাব্যবস্থার ৯৫ শতাংশই পরিচালিত হবে বেসরকারি পর্যায়ে - তা কোনোক্রমেই মেনে নেয়া যায় না। কাজেই  সরকারকে এখনি আশু সিদ্ধান্ত নিতে হবে একটি স্বাধীন সার্বভৌম সম্ভাব্য মধ্যম আয়ের দেশের শিক্ষাব্যবস্থার দায়িত্ব কে নেবে? মোটকথা শিক্ষার দায়িত্ব রাস্ট্রকেই নিতে হবে।

# এম, এ, বাতেন ফারুকী, প্রধান শিক্ষক, সৈয়দ হাবিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, কিশোরগঞ্জ সদর।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর














সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ