www.kishoreganjnews.com

শিক্ষা জাতীয়করণঃ প্রেক্ষিত বাংলাদেশ



[ এম. এ. বাতেন ফারুকী | ৯ নভেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার, ৯:২৫ | মত-দ্বিমত ]


বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও মুক্তবাজার অর্থনীতির যুগে শিক্ষা একটি অনস্বীকার্য বিষয়। এ সত্যটি যে দেশে যত কম অনুধাবিত অবধারিতভাবে সে দেশ তত কম উন্নত। দুর্ভাগ্যবশত আমাদের দেশের বেলায় এ তত্ত্বটি প্রযোজ্য। শিক্ষাব্যবস্থাকে আধুনিকায়ন ও যুগোপযোগী করা একান্ত প্রয়োজন -এ কথাটি সর্বজনবিদিত। সমস্যা অন্য জায়গায়। শিক্ষাকে মানসম্মত স্তরে নিয়ে যেতে প্রয়োজন বিশাল কর্মসূচি। আর এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে প্রয়োজন বিশাল অংকের টাকা। প্রকৃত সমস্যা এখানেই। অর্থের যোগানেই আমাদের যত ভয়। অর্থের যোগানদাতা মিতব্যয়ী হবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু কৃপণ বা অদূরদর্শী হবেন-তা কোনোক্রমেই কাম্য নয়। বাংলাদেশে বাজেট প্রণয়নে দৃষ্টিভঙ্গি আরও ইতিবাচক হওয়া প্রয়োজন। শিক্ষার উন্নয়ন ছাড়া দেশের প্রকৃত উন্নয়ন সম্ভবপর নয়। তাই শিক্ষা খাতে বাজেট বরাদ্ধে আন্তরিকতা ও সাহসিকতার পরিচয় দিতে হবে। শিক্ষাকে অবহেলা মানেই দেশকে পিছিয়ে রাখা। এ খাতে বাজেটে প্রচলিত দায়সারাভাবে জিডিপি'র মাত্র ২% বা এর কাছাকাছি পরিমাণ বরাদ্ধ দিয়ে শিক্ষার কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন তো দূরের কথা স্বাভাবিক উন্নয়নও সম্ভবপর নয়। সরকারের থিংক ট্যাংককে কঠিন সিদ্ধান্তে উপনীত হতে হবে।

সত্যিই ভাবতে অবাক লাগে,আমরা  কোন যুগে বাস করছি? আমরা কথায় কথায় গ্লোবালাইজেশনের কথা বলি,ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের কথা বলি, কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বা এসডিজি অর্জনের কথা বলি। কিন্তু কথা হলো, এসব অর্জন ও এদের সুবিধা গ্রহণের জন্য আমাদের দীর্ঘমেয়াদী কিংবা স্বল্পমেয়াদী পরিকল্পনা ও কর্মসূচি কোথায়? এজন্য যা সর্বাগ্রে প্রয়োজন তা হলো শিক্ষা। যদিও এর পাশাপাশি আরও কিছু নির্দেশকের প্রয়োজন আছে। যেহেতু শিক্ষা নিয়ে লেখা তাই শিক্ষার মধ্যেই সীমিত রাখলাম।

বর্তমান বৈশ্বিক পরিবেশে দেশের অবস্থানকে বৈশ্বিক সূচকে উপরে তুলতে হলে শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই- এ অমোঘ সত্যটি আমার চেয়ে সবাই ভালো জানেন। কিন্তু আমাদের সমস্যা হল,কর্তা বা কর্তাদের শোনার ইচ্ছা নেই এমন ধ্রুব সত্য কথাটিও আমরা সুকৌশলে এড়িয়ে যাই; গুরত্বের দিক থেকে তার ক্রম যত উপরেই থাকুক না কেন। মনে রাখতে হবে , রাষ্ট্রনায়ক যদি রাষ্ট্র পরিচালনায়  দক্ষতা ও প্রজ্ঞার স্বাক্ষর রাখতে পারেন তবে রাষ্ট্র অনেক দূর এগিয়ে যায়। এর প্রমাণ অবশ্য পৃথীবিতে কম নয়। আমাদের এও মনে রাখতে হবে, আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি ৪৬ বছর আগে অর্থাৎ প্রায় অর্ধ শতাব্দী পূর্বে।

পূর্বেই বলেছি ভাবতে অবাক লাগে; না একেবারে অদ্ভুতই  বৈকি। এত বড় প্রতিশ্রুতি ও এত কঠিন সংকল্প নিয়ে সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে যে দেশটির জন্ম হয়েছে সে কিনা এতকাল পরেও তার নাগরিকদের শিক্ষার দায়িত্ব নিতে উপযুক্ত হয়ে ওঠেনি। অথচ যেখানে  ১৯৬৬ সনের ৫ অক্টোবর জাতিসংঘের অংগ সংগঠন ইউনেস্কো কর্তৃক প্রথমবারের মত আন্তঃরাষ্ট্রীয় বিশেষ  কনফারেন্সের মাধ্যমে শিক্ষকদের মর্যাদা নির্ধারণ সম্পর্কে সুস্পষ্ট সুপারিশমালা সিদ্ধান্ত আকারে পেশ করেন; সেখানে এতটি বছর পেরিয়ে এতগুলো সরকার মিলে শিক্ষকদের জন্য ইউনেস্কোর সুপারিশমালার কতটুকু বাস্তবায়ন করতে পেরেছি তার হিসেব মেলানোর চেষ্টা কি কোনোদিন করেছি? ইউনেস্কোর সুপারিশমালায় ১৩টি বিষয়ে ১৪৬টি সিদ্ধান্ত (কয়েকটিতে কিছু উপসিদ্ধান্তও আছে) রয়েছে যা এই ক্ষুদ্র পরিসরে উপস্থাপন করা সম্ভবপর নয়।

একটি আধুনিক কল্যাণকর রাষ্ট্রের নাগরিকদের শিক্ষার দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে। শুধু নিলেই চলবে না দায়িত্ব পালন নিশ্চিত করতে হবে। আর এ জন্য সরকারকে অতি গুরত্বের সাথে শিক্ষাখাতকে বাজেটে উপস্থাপন করতে হবে। জিডিপি'র যথেষ্ট ও সামর্থের সর্বোচ্চ পরিমাণ বরাদ্ধের ব্যবস্থা করতে হবে। স্পষ্ট ঘোষণাসহ দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করা প্রয়োজন। বর্তমান বিশ্ব অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছে। অপ্রিয় হলেও সত্য যে,বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা বিশ্বমান থেকে অনেক পিছিয়ে আছে। যদিও শিক্ষার কিছু কিছু সূচকে বাংলাদেশ ধীরেধীরে উন্নতি করছে যা দক্ষ ও যুগোপযোগী মানবসম্পদ তৈরিতে যথেষ্ট নয়। তাই আর বিলম্ব নয়, এটাই উপযুক্ত সময় শিক্ষাকে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানোর। প্রয়োজন শুধু পদ্মা সেতু নির্মাণের মত একটি সাহসী ও দৃঢ়চেতা উদ্যোগ। প্রয়োজনে জাতীয় স্বার্থে নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য শিক্ষা কর চালু করা যেতে পারে। সুবিধাভোগী শিক্ষকদের উপরও যুৎসই নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য বিশেষ শিক্ষা কর ধার্য করা যেতে পারে। মোটকথা  শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ করে শিক্ষাক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে হবে।

পরিশেষে বলতেই হয়, শিক্ষকদের স্বার্থে নয় বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্যে রাষ্ট্রকে নিজ তাগিদেই শিক্ষা জাতীয়করণ করা আবশ্যক।

এম.এ. বাতেন ফারুকী, প্রধান শিক্ষক,সৈয়দ হাবিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, বৌলাই, কিশোরগঞ্জ সদর।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com