www.kishoreganjnews.com

শব্দ সন্ত্রাস আর যানজটের শহর কিশোরগঞ্জ



[ আহমাদ ফরিদ | ১১ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার, ৬:২৬ | মত-দ্বিমত ]


ফাইল ছবি।

কষ্টকর শব্দ বিহীন, নৈঃশব্দিক পরিবেশে বসবাসের সুযোগ মানুষের জন্মগত অধিকার। যান্ত্রিক সভ্যতার শিখরে থাকা বর্তমান মানব সভ্যতা তথাকথিত উন্নতির নামে নৈঃশব্দের অধিকার আজ হারিয়ে ফেলেছে। উন্নতি আর আয়েসের নামে আজ চারপাশে শুধু শব্দ আর শব্দ। নৈঃশব্দের প্রকৃতি আজ মানুষের কারণে প্রচণ্ড থেকে প্রচণ্ডতর শব্দে শব্দে প্রকম্পিত। তাইতো শব্দের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মানসিক রোগীর সংখ্যা। এর কারণ কষ্টকর শব্দ যা মানুষকে কষ্ট দেয়, এরূপ শব্দ মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। মানুষ যদি অনিচ্ছা সত্বেও কোন বিরক্তিকর শব্দ শুনতে বাধ্য হয়, তখন তার মনে রাগ ভর করে। এই মনে পুষে রাখা রাগ যদি কেউ প্রকাশ করতে না পারে তখন সেই রাগ মানসিক স্ট্রেস এ পরিণত হয়। এই স্ট্রেস তাকে ধীরে ধীরে প্রতিকারহীন মানসিক রোগীতে পরিণত করে। তখন সে ভারনারেবল হতে বাধ্য।

আপনি যদি একটা নির্জন, নৈঃশব্দিক পরিবেশ থেকে হঠাৎ করে শব্দময় পরিবেশে এসে পড়েন তখনই বুঝতে পারবেন শব্দ কত যন্ত্রণাময়। একটা সময়ে শব্দরা শুধু বড় শহরে বসবাস করতো, এখন তারা ছোট শহর পেরিয়ে দূরের গাঁয়েও পৌঁছে গেছে। প্রচণ্ড শব্দময় শ্যালো টিউবঅয়েল, ধান মাড়াইয়ের বোমা মেশিন, ট্রাক্টর, টমটম, ট্রাক, বাস, কারখানা ইত্যাদি গ্রামের নৈঃশব্দ ভেঙ্গে খান খান করে দিয়েছে। আর শহর? শহরে শহরে এখন শব্দরা ভাণ্ডার খুলে বসেছে। শহরের সবচেয়ে বড় যন্ত্রণা গাড়ির শব্দ আর হর্নের শব্দই মানুষকে পাগল বানাতে যথেষ্ট। আমার নিজের শহর কিশোরগঞ্জের কথাই বলি। যখন নাইন টেনে পড়ি তখন শহরে শব্দ বলতে ছিল দু’চারটা রিকসা সাইকেলের বেলের টুংটাং আওয়াজ। যা না থাকলে পরিবেশ হয়তো ভীতিজনক ভাবে নিরব হয়ে পড়তো। ঐ সময়ের মাঝ দুপুরের পরিবেশ থাকতো নৈঃশব্দিকতাপূর্ণ। দুপুরের খাওয়ার পরের সময়টাকে বলা হতো অলস দুপুর। দুপুরে কোথাও কারো ব্যস্ততা ছিল না। এ সময় রাস্তাঘাট হয়ে পড়তো প্রায় জন শূন্য।

আর এখনকার কিশোরগঞ্জ? এখন কিশোরগঞ্জ প্রায় মেগা সিটি। ভোর ৮টার পর থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত এখন এ শহর থাকে চরম ব্যস্ত। রাস্তা ঘাটে জ্যাম এখন নৈমিত্তিক। শহরের প্রধান সড়ক পথে এখন কয়েক হাজার অটো রিকসা, কয়েক’শ মোটর সাইকেল, কয়েক’শ বাস-ট্রাক-ট্রাক্টর, কয়েক’শ প্রচণ্ড শব্দধর টমটম, কয়েক’শ ব্যাটারিচালিত রিকসা ও সিএন্ডজি রাত দিন চলাচল করে। এছাড়া এলাকায় ইমারত নির্মাণকাজের জন্য শ’খানেক মিকচার মেশিন ও ইটভাঙ্গার মেশিন রাত দিন শব্দ সন্ত্রাসে মানুষকে জ্বালিয়ে মারছে।

সকাল থেকে রাত অবধি শহরের মূল মূল সড়ক এখন থাকে ভয়ানক শব্দ সন্ত্রাসের কবলে। ভোর থেকে যে শব্দ সন্ত্রাস শুরু হয় সেই সন্ত্রাস বেলা বাড়ার সাথে পাল্লা দিয়ে শুধু বাড়তেই থাকে। অটোরিকশা আর ব্যাটারি রিকসাকে অনেকেই পরিবেশ বান্ধব বলে থাকেন। কিন্তু এগুলোতে যে হর্ন বাজানো হয় সেই শব্দ কিন্তু মানসিক স্বাস্থ্য বান্ধব নয়। অনেকেই হয়তো খেয়াল করেছেন যে, এই হর্নের শব্দটা সরাসরি মানুষের ব্রেইনে আঘাত করে। আমি অনেক বাচ্চাকে দেখেছি, যারা এ শব্দ শুনলেই দু’হাতে কান চেপে ধরে। এসময় তারা ভয়ে যেন কেঁপে উঠে! আমি নিজেও এ শব্দ একেবারেই সহ্য করতে পারি না। সে জন্যে আমাকেও স্ট্রেসে পড়তে হয়।

এ ছাড়া আরো শব্দ সন্ত্রাস রয়েছে এ শহরে। কোচিং সেন্টারের প্রচারের মাইক প্রায় সময়ই নাগরিকদের সময়ে অসময়ে বিরক্ত করে। কোথাও কোথাও প্রচণ্ড জোরে সাউন্ড সিস্টেম বাজিয়ে আনন্দ করা হয়, এক সঙ্গে অনেকেই চিৎকার করে, শব্দ সন্ত্রাস করে আনন্দ করা করা হয়। এতে কোথাও কোন রোগী বা মানুষের কি কষ্ট হচ্ছে তারা একবারও তা ভেবে দেখে না।

বিশেষ করে টমটম, আটোরিকসা আর ব্যাটারিচালিত রিকসার হর্নের শব্দ ও ইট ভাঙ্গার মেশিনের শব্দ যে হার্টের কি পরিমাণ ক্ষতি করছে তা ভূক্তভোগী মাত্র নিশ্চয়ই অনুধাবন করতে পারবেন। অনেক ব্যাটারিচালিত রিকসার চালককে বিনা কারণেই বার বার হর্ণ বাজাতে আমি দেখেছি। আমি অনেককেই জিজ্ঞেস করেছি- তারা অনেকেই উত্তরে হেসে বলেছেন, তারা জানেন না কি জন্য তারা এমনটা করছেন। আমি মনে করি, এটাও স্ট্রেসেরই একটা লক্ষণ। অর্থাৎ যারা বেপরোয়া হর্ন বাজাচ্ছেন তারাও একেকজন মানসিক রোগীতে পরিণত হতে চলেছেন। যারা চালক তারা মানসিক ভাবে সুস্থ্য না হলে, যারা তার যাত্রী তারাও এতে সংক্রামিত না হয়ে পারে না। মানসিক স্বাস্থ্যও জনস্বাস্থ্যের আওতাধীন বিষয়। আটোরিকসা ও ব্যাটারিচালিত রিকসার হর্নের শব্দ ও ইট ভাঙ্গার মেশিনের মারাত্মক শব্দ তাই জনস্বাস্থ্যের জন্যও মারাত্মক ক্ষতিকর। এ ক্ষতি থেকে কিশোরগঞ্জের নাগরিকদের বাঁচাতে হবে।

তাই আমার দাবি হচ্ছে, অবিলম্বে এ ইট ভাঙ্গার মেশিন ও উপরোল্লেখিত হর্নকে নিষিদ্ধ করা হোক। কিশোরগঞ্জ শহরের বাসিন্দাদের শব্দ সন্ত্রাসের কবল থেকে রক্ষা করা হোক। রক্ষা করা হোক তাদের নৈঃশব্দের জন্মগত অধিকার। এ দাবি আমার সরকারের কাছে একজন নাগরিক হিসাবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com