www.kishoreganjnews.com

প্রশাসনের হস্তক্ষেপে দুই জেলার সীমান্তবর্তী উত্তেজনার অবসান



[ স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ নভেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার, ১২:০৭ | কিশোরগঞ্জ ]


কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহ জেলার সীমান্তবর্তী কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার রশিদাবাদ ও ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার সিংরইল এর মধ্যবর্তী বারুইখালী খালে বাঁধ নির্মাণ নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছিল। সোমবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে এই বিরোধ চরম পর্যায় পৌঁছে। উভয় পক্ষ মাইকিং করে রণপ্রস্তুতিতে খালের পাড়ে অবস্থান নেয়।

বিষয়টি সোমবার অনুষ্ঠিত উপজেলা আইনশৃংখলা সভায় রশিদাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. ইদ্রিস মিয়া উপস্থাপন করে সমাধানের প্রস্তাব তুলে ধরেন। সভায় উপস্থিত সকল চেয়ারম্যানগণের সম্মতিতে উপজেলা প্রশাসন বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদ আল মামুন, কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খোন্দকার শওকত জাহান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নাহার লুনা, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান, চৌদ্দশত ইউপি চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, যশোদল ইউপি চেয়ারম্যান ইমতিয়াজ আহমেদ রাজন, রশিদাবাদ চেয়ারম্যান মো. ইদ্রিস মিয়া প্রমুখ ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

অন্যদিকে নান্দাইল উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করলে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাবিবুর রহমান, নান্দাইল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইউনুস আলী, সিংরইল ইউপি চেয়ারম্যান মো. সাইফুল ইসলাম প্রমুখসহ দুই জেলার উপজেলা প্রশাসন একসাথে মিলিত হয়। সিংরইল ইউনিয়নে হরিপুর ফকিরবাড়ী মোড়ে গ্রাম্য বৈঠকে উভয় পক্ষকে মিলিত করে সমাধানের বিষয়ে আলোচনা করা হয়। সমঝোতা এই বৈঠকে সাংবাদিক ও এলাকার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ছাড়াও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। তারপর বিরোধপূর্ণ স্থান পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায় এক ভয়াবহ পরিস্থিতি।

খালের উভয় পাড়ে দু’দল গ্রামবাসী লাঠিসোটা, ইটপাটকেল, দেশীয় অস্ত্রসহ রণপ্রস্তুতি নিয়ে অবস্থান করছে। পরিস্থিতি শান্ত করতে নান্দাইল ও কিশোরগঞ্জ পুলিশ শক্ত অবস্থান নেয়। হ্যান্ডমাইকে ঘোষণা করে গ্রামবাসীকে কোন প্রকার সংঘর্ষে না জড়িয়ে দ্রুত স্থান ত্যাগ করার আহবান জানান কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ। বার বার এই সতর্কবার্তার মাধ্যমে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়।

পরে দুই উপজেলা নির্বাহী অফিসার, দুই থানার অফিসার ইনচার্জ এবং রশিদাবাদ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও সিংরইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান একত্রে দীর্ঘক্ষণ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে সমাধানে পৌঁছান। সমাধানে উপনীত হয়ে সন্ধার পর নান্দাইলের সিংরইল ইউনিয়ন এবং পরে রশিদাবাদ ইউনিয়নের জনগণকে নিয়ে আলাদা আলাদা ভাবে সমাধানের বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়।

সিদ্ধান্তের ব্যাপারে তাদের জানানো হয়, বারুইখালী খালের মুখ হতে স্লুইসগেইট পর্যন্ত বিরোধপূর্ণ খালের মাঝে কোন বাঁধ নির্মাণ করা যাবে না এবং স্থায়ী ভাবে জাল (খরা জাল) স্থাপন করা যাবে না। আইনশৃংখলা বাহিনীর পক্ষ হতে ঘোষণা দেয়া হয়, এই সিদ্ধান্ত কেউ অমান্য করলে প্রশাসন তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণে বাধ্য হবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com