kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

৫০ লাখ টাকা হলে বেঁচে যাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী মুন্নি


 স্টাফ রিপোর্টার | ২০ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার, ২:৫০ | বিশেষ সংবাদ 


ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্রী সাবরিনা মমতাজ মুন্নির বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্ট করতে হবে। মুন্নির এই চিকিৎসার জন্য অন্তত ৫০ লাখ টাকা দরকার। কিন্তু পিতৃ-মাতৃহারা অসহায় এই তরুণীর পক্ষে এত টাকা জোগাড় করা সম্ভব নয়। তাই তার জীবন রক্ষার্থে সবার সহযোগিতা কামনা করা হচ্ছে।

সাবরিনা মমতাজ মুন্নি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। সে কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার তারাকান্দি গ্রামের প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসিমের কন্যা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী এই শিক্ষার্থী গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, মুন্নি ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত। দ্রুত তার বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্ট করা প্রয়োজন। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ভারতে নিয়ে যেতে হবে। এ জন্য অন্তত ৫০লাখ টাকা প্রয়োজন। উন্নত চিকিৎসা হলে মুন্নি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে বলেও জানিয়েছেন তারা।

মুন্নির সহপাঠী রাকিবুজ্জামান রাফি বলেন, আমরা কি পারি না, মেধাবী এই শিক্ষার্থীর মুখের হাসি ফিরিয়ে দিতে? আমরা কি পারি না, তার স্বপ্নগুলো বাঁচিয়ে রাখতে? আসুন, মুন্নির দিকে আমরা সাহায্যের হাত বাড়াই, তাকে ক্যান্সারের থাবা থেকে মুক্ত করি।

রাফি আকুতি জানিয়ে বলেন, আপনার যতটুকু সাধ্য আছে, এগিয়ে আসুন। দোয়া করুন ওর জন্য।

বিকাশ: ০১৯১০৮০৭৭৪৯
ব্যাংক একাউণ্টের নাম: Md. Elias Uddin, Md. Ruman
একাউন্ট নম্বর: ৪৪০৫৭০১০২৪৬৭৯
সোনালি ব্যাংক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস শাখা।
ডাচ বাংলা রকেট একাউন্ট: ০১৯১০৮০৭৭৪৯৯

সাবরিনা মমতাজ মুন্নি এর কিছু কথা........
প্রাচ্যের অক্সফোর্ডে যখন আমার প্রথম পা পড়লো, আমার মায়ের চেয়ে বেশি খুশী মনে হয় আর কেউই হন নি। পরিবারের চরম দুর্দশার সময়েও তিনি আশার আলো দেখতে পেতেন। ঠিক যেন বাবার মতোই। পৃথিবীর সবচেয়ে সাহসী আর মুক্তিকামী মানুষটা ছিলেন বাবা। আমার বাবা আবুল হাসিম, ১৯৭১ সালের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে অংশ নিলেন কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া থানার হয়ে। মুক্তির জন্য তার যে তৃষ্ণা, তা-ই তাকে লড়তে শিখিয়েছে '৭১-এ দেশের শত্রুদের বিরুদ্ধে।

মা-ও যোদ্ধা হয়েছেন বাবাকে দেখে দেখে। ২০০৬ -এ যখন আমার মুক্তিযোদ্ধা বাবা চলে গেলেন ওপারে, মা-ও নতুন করে যুদ্ধ শুরু করলেন আমাদের তিনজনকে নিয়ে। আমিও হলাম যোদ্ধা, কলেজ জীবনে ভিকারুন্নিসা, আর ভার্সিটি হিসেবে ঢাবিকে জয় করলাম। প্রেরণা হিসেবে ছিলো মা আর বাবা।

অনার্সে ইংলিশ পাওয়ায় মাও খুশি হয়েছিলেন। তবে অন্য কারণে। কারণ, মা ভাবলেন তাঁর ছোট্ট মেয়েটা একটা ভালো জব পাবে, ভালো একটা ভবিষ্যৎ পাবে।

বই পড়া ছিলো আমার আজন্ম শখ, ঢাবিতে যখন ইংলিশ লিটারেচার পেলাম, আমার মনে হলো এর চেয়ে বড় পাওয়া আমার জন্য আর কিছুই হতে পারে না। দারুণ কাটছিলো সময়গুলো। কখন যে অনার্সের একেবারে শেষ বর্ষে এসে পড়লাম।

কিন্তু হঠাৎ ভঙ্গুর হয়ে গেল জীবনপথ।

টুপ করে ভেঙ্গেচুরে একাকার হয়ে গেল আমার মায়ের সব স্বপ্ন। আমার স্বপ্ন। আমার মুক্তিযোদ্ধা বাবার স্বপ্ন। জীবন যুদ্ধে এতটা পথ পাড়ি দেয়ার সময় কখনো ভয় পাই নি, এখন ভয় হচ্ছে, পারবো তো বাকি পথ পাড়ি দিতে?

এই গল্পের শুরু ২০১৬ সালের শুরুর দিকের এক মধ্য রাতে। একটা তীব্র জ্বর এসে আমার জীবনের গতিপ্রকৃতি বদলে দিয়ে গেল। ডক্টর জানালো, লিউকেমিয়া। Acute Myeloid Leukemia.

বন্ধুরা- শিক্ষকেরা আমার জন্য যে এতটা করবেন, তা আমি এক্সপেক্ট করি নি। ওরা ফান্ড করতে লাগলো, দীর্ঘ একটা পথ পাড়ি দিতে হবে ওদের। অনেকগুলো টাকা।

ঠিক বছর খানেক আগে মা যখন চলে গেলেন, কেমোর জন্য মুম্বাইতে ছিলাম আমি। মাকে শুধুমাত্র একবার দেখার জন্য ছুটে গিয়েছিলাম গ্রামে, কিন্ত একটা শব্দও উচ্চারণ করতে পারি নি। শেষ নি:শ্বাস কত যন্ত্রণাময়।

ওহ জীবন!

কেমোথেরাপির পর কিছুটা সুস্থ হয়ে ক্লাস শুরু করলাম ২০১৭ সালে। লেখাপড়ায় বরাবরই ভালো ছিলাম বলেই হয়ত অসুস্থ হবার পরও হায়েস্ট গ্রেড পাচ্ছিলাম।

কিন্তু সুস্থতা কন্টিনিউ করতে হলে ট্রিটমেন্টও কন্টিনিউ করতে হবে। কিন্তু আমার ফান্ড শেষ হয়ে আসছিলো। পারলাম না সময়মত মুম্বাই যেতে। ক্যান্সার সেলও নতুন করে জন্মাতে শুরু করলো। আরেকটা রাত এলো, আরেকটা জ্বর, আরেকটা দু:স্বপ্নের রাত। রক্তে ব্লাস্ট সেল বেড়েই চলছে প্রতিদিন। আর মৃত্যুর পথে এগুচ্ছি আমি। মিডটার্মের রেজাল্ট দিলো। বরাবরের মতোই কয়েকটা কোর্সে হায়েস্ট গ্রেড। হাহা। মাঝে মাঝে জীবনের দিকে তাকিয়ে হাসি। আমি আসলেই জানি না, এখন আমার কি করা উচিৎ?

আজ দুমাস হলো ঢাকা মেডিকেলের কেবিনই আমার বাড়ি।

আমি খালেদ হোসেইনির বই পড়ি, বন্ধুরা এসে ফান করে বলে, আমি কোনো ছবি পোস্ট করলেই নাকি ছেলেরা হুমড়ি খেয়ে পড়ে। আমাকে একটু হাসানোর জন্য সেকি চেষ্টা ওদের। সবাই কষ্ট করছে আমার জন্য, আমি আর দেখতে পারছি না এসব। আমার জামাকাপড় ওরা ধুয়ে দিচ্ছে।

মাঝে মাঝে তীব্র ব্যাথায় কাতরাই। অসহ্য ব্যাথা। তবে আমি সব ভুলে যাই, যখন বন্ধুগুলো আসে, ভালোবাসে আমাকে। এ অবস্থায় না এলে কখনো বুঝতামই না, মানুষ মানুষকে কতটা ভালোবাসতে পারে। আর শিক্ষকরা যে মা বাবার স্নেহে আগলে তাদের সবটুকু চেষ্টা করতে পারে--- এই আমার এত কষ্ট একটু কমানোর জন্য, তা আমি এই চার দেয়ালের নিষ্ঠুর কেবিনে বসেও ঠিকই বুঝতে পারি। তাদের প্রতিনিয়ত চেষ্টা আমার মনে সাহস যোগায়, তাদের মমতায় আমি ভরসা খুঁজে পাই।

আমার এখনো আশা আছে, ঠিক আমার মায়ের মতো, বাবার মতো! আমি জানি সবাই মিলে জলদি টাকাটা রেডি করে ফেলবে, আমি কি এত সহজে হার মানতে পারি? আমি মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে না? এ যুদ্ধে বাবার মত আমিও জয়ী হব, ইনশাআল্লাহ!

সাবরিনা মুন্নি।
৪র্থ বর্ষ, ইংরেজি বিভাগ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।
বাংলাদেশ - কুয়েত মৈত্রী হল।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ