kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

পাকুন্দিয়ায় কৃষক আতাবুরের প্রচেষ্টায় ড্রাম সিডারে আউশ আবাদে ব্যাপক সাড়া



 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ৪ জুন ২০১৮, সোমবার, ১:৪৫ | কৃষি 


ড্রাম সিডার প্রযুক্তিটি সম্প্রসারণে উপজেলার আঙ্গিয়াদী গ্রামের মৃত মোমতাজ উদ্দিনের পুত্র কৃষক আতাবুর রহমান নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তিনি এই প্রযুক্তির বিষয়ে স্থানীয় কৃষকদের কৌশল ও ব্যবহারবিধি অত্যন্ত যত্ন সহকারে শিখিয়ে যাচ্ছেন। যে কোন কৃষক তার সাহায্য চাইলেই তিনি ছুটে যান তার কাছে।

কৃষক আতাবুরের এই আন্তরিক প্রচেষ্টায় পাকুন্দিয়ায় ড্রাম সিডার দ্বারা সরাসরি কাদাময় জমিতে বীজ বপনের মাধ্যমে আউশ ধান আবাদে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। গত বোরো মৌসুমে উপজেলার খামা গ্রামে ৫ বিঘা জমিতে এ প্রযুক্তি ব্যবহারে সফলতায় এবার আউশ মৌসুমে আংগিয়াদী  ব্লকের খামা গ্রামসহ চামরাইদ, আদিত্যপাশা, দাওরাইট ও আংগিয়াদী গ্রামের  প্রায় শতাধিক কৃষক এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে ধান আবাদ করেছেন।

এ ব্যাপারে কৃষক আতাবুর রহমান জানান, গত বোরো মৌসমে ড্রাম সিডার প্রযুক্তি ব্যবহারের সময় ধান গবেষণার প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের পাশে থেকে বীজ বপন করার কৌশল আয়ত্বে নেন তিনি। পরে স্থানীয় উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তার কাছ থেকে অনান্য কৌশল সম্পকে ধারণা নেন।

তিনি বলেন, কৌশল আয়ত্বে আসার পর আউশ মৌসুমে প্রায় ৮০জন কৃষকের ৬০-৭০বিঘা জমিতে ধান বীজ বপন করে দিয়েছি। গত বোরো মৌসুমে খামা গ্রামে ৪ বিঘা জমিতে ড্রাম সিডার দিয়ে বীজ বপনের সময় কৃষকদের সাথে থেকে সহযোগিতা করেছি। পরে আমি নিজে এক বিঘা জমিতে এ প্রযুক্তি ব্যবহার করি। এতে আমার যন্ত্রটি ব্যবহার সর্ম্পকে খুবই ভাল ধারণা হয়।

তারপর এবার আউশ মৌসমে আমাদের উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ ভাই আমার হাতে ড্রাম সিডার দেন। আমি সেই অনুয়ায়ী সাইকেলে ড্রাম সিডার নিয়ে কৃষকের জমিতে গিয়ে ধান বীজ  বপন করে  দিয়ে আসি। আর যন্ত্রটি সহজে পরিবহন যোগ্য হওয়ায় আমি সাইকেলে বেঁধে এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে গিয়ে কাজ করতে পারি। আমার পারিশ্রমিক হিসেবে প্রতি একবিঘা জমির জন্য আমাকে ২০০টাকা দিচ্ছেন জমির মালিক।

সে অনুযায়ী আমার দৈনিক এক হাজার টাকা থেকে এক হাজার ২০০টাকা পর্যন্ত রোজগার হয়। এতে তার তিন সন্তান নিয়ে সংসার ভালই কাটছে বলে জানান। তার এই পরিশ্রম দ্বারা কৃষকগণও খুব সহজে ড্রাম সিডার প্রযুক্তি ব্যবহার করে ফসল আবাদ করতে পারছে।

এ বিষয়ে চামরাইদ গ্রামের কৃষক কবির, হাদিউল ও জব্বার, আদিত্যপাশা গ্রামের রুক্কুন উদ্দিন, আতিকুর রহমান ও সুফলসহ বেশ কয়েকজন কৃষক বলেন, আমরা জমি প্রস্তুত করে উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ ভাইকে ফোন দেই। তার পর তিনি ড্রাম সিডার দিয়ে আতাবুরকে পাঠিয়ে দেন। সে এসে কাদাময় জমিতে বীজ বপন করে দিয়ে যায়। এভাবেই এই প্রযুক্তিটি সম্প্রসারিত হচ্ছে আমাদের এলাকায়।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ বলেন, ড্রাম সিডার প্রযুক্তিটি পুরাতন হলেও নতুন ভাবে তা সম্প্রসারণের উদ্যোগ নিয়েছে কৃষি বিভাগ। তারই ধারাবাহিকতায় আমার ব্লকে প্রযুক্তিটির ব্যাপক বিস্তারে কাজ করে যাচ্ছি। এতে খরচ কম ও সময় সাশ্রয়ী হওয়ায় প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষদের মধ্যে ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে।

প্রযুক্তিটি  সম্প্রসারণের লক্ষে আতাবুরসহ বেশ কয়েকজন কৃষককে ড্রাম সিডার দিয়ে বীজ বপনের কৌশল শেখানো হয়েছে। তারা এখন নুন্যতম পারিশ্রমিকের বিনিময়ে  কৃষকের জমিতে বীজ বপন করে দিয়ে আসে। কৃষকের জমি প্রস্তুত হলে আমাকে ফোন দেয়, আমি ড্রাম সিডারসহ ওই জমিতে লোক পাঠিয়ে বীজ বপন করার ব্যবস্থা নেই। যার মাধ্যমে প্রযুক্তিটি দ্রূত সম্প্রসারিত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, প্রযুক্তিটি ব্যবহারে অনেকগুলো সুবিধা রয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো বীজের পরিমান ও শ্রমিক কম লাগে, উৎপাদন খরচও কম হয় এবং ফলন বেশি পাওয়া যায়। তাছাড়া ধানের জীবনকালও ১০-১২দিন কম লাগে। এ সমস্ত বিষয় বিবেচনা করে এই প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষকদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। এই প্রযুক্তিটি আরো আধুনিক করা হলে আগামি মৌসুমে ড্রাম সিডার ব্যবহারে কৃষকের সংখ্যা ব্যাপক বিস্তার লাভ করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ