kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

টিটে কি পারবেন আগের কোচদের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে?


 তূর্য হাসান | ৪ জুন ২০১৮, সোমবার, ৮:১৫ | বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ 


আদিম যুগের ফুটবল কিংবা আধুনিক যুগের ফুটবল যেটাই ভাবেন না কেন, ব্রাজিল সব সময়েই রাজত্ব করে এসেছে। কিন্তু সেই ব্রাজিল কেন ২০১৪ বিশ্বকাপ ফুটবলে নিজেদের হারিয়ে নিজের কাছেই অপরিচিত হয়ে গেল?  হয়ত এমন প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা অনেক ফুটবল বোদ্ধা করে থাকলেও আমাদের করা হয়ে উঠেনি। কারণ, আমরা  বিজয় নিয়ে উৎসব করতে অভ্যস্ত পরাজয় নিয়ে নয়।

দরজায় কড়া নাড়ছে আরো একটা বিশ্বকাপ তাই নিজদের ভুল গুলো নিয়ে আলোচনা করার সময় এসেছে। আসুন জেনে নেয়া যাক, ২০১৪ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে কি এমন ঘটেছিল ৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের সাথে.......

আমার ধারণা মতে, "Football is a game of tactics, not emotion!" আর এখানেই সব থেকে বড় ভুলটা করে ফেলে নেইমার ও সিলভা বিহীন  সেলেসাও বাহিনী।  ব্রাজিল দল মাঠে নামে নেইমারের জার্সি নিয়ে যা ব্রাজিল দল এবং গ্যালারির দর্শক থেকে বিশ্বব্যাপী সমর্থকদের ইমোশনাল করে ফেলে।

তবে বিশ্বাস ছিলো তৎকালীন কোচ স্কোলারি স্যারের উপর। তিনি হয়ত তার প্রিয় শিষ্যদের বলেছিলেন, " আমাদের দুর্বলতাকে শক্তিতে রূপান্তরিত করে প্রতিপক্ষ কে কোন জায়গা দিও না। যাও এবং তাই কর।"

তবে তা যাই হোক না কেন, খেলা শুরু হবার পর সবাই অন্তত বুঝেছেন নিজেদের ডিফেন্স নিয়ে ব্রাজিল দল জার্মানকে আক্রমণ করার চেষ্টায় ব্যস্ত থাকলেও সফল হতে পারেনি। যার ফলে নিজেদের ভুলেই খেই হারিয়ে বিপদের সম্মুখীন হয়েছে বার বার।

সেদিনের কথা মনে করলেই চোখে ভেসে ঊঠবে জার্মানির প্রথম গোলের কথা।  যেখানে মুলার ছিলেন সবার নজরদারির বাইরে। আর মুলার সেই সুযোগ এর সদ্ব্যবহার করেই প্রথম আঘাত হানেন ব্রাজিলীয় শিবিরে।

প্রথম গোল ব্রাজিলের জালে জড়ানোর সাথে সাথে ব্রাজিল দল হারিয়ে ফেলে তাদের চিরোচেনা সেই ছন্দ।  কিন্তু মুদ্রার অপর পিঠের জার্মানি যেন হয়ে ঊঠে আরো ভয়ংকরী।  খেলা চলার ২৩ মিনিটে ক্লোজা দ্বিতীয় বারের মত আঘাত হানতে সক্ষম হন।  যার ফলে ব্রাজিল দল মাঠে তাদের রাজত্ব হারাতে বসে। আর ঠিক সেই সুযোগে ম্যাচের ২৩ মিনিট থেকে ২৯ মিনিটের মাঝে জার্মান দল আরো ৩ টি গোল করতে সক্ষম হয়।

মানতে কষ্ট হলেও সত্য যে,  সে সময় কোনটা গোল আর কোনটা রিপ্লে বুঝে উঠতে ভালো মত বেগ পেতে হচ্ছিলো টিভি সেটের সামনে থাকা সকল ব্রাজিল ভক্তদের।

যখন স্কোর বলছে ২-০ তখন ব্রাজিল দল চেষ্টা করতে পারত শেষ মুহুর্তে যেন ম্যাচ টা ড্র হয়।  কিন্তু সেটা না করেই অস্কার ফ্রেড সহ ব্রাজিলীয় ডিফেন্স  যেন মরিয়া হয়ে ঊঠে গোল করার ক্ষুধায়। নিজেদের ডিফেন্স ভেঙ্গে আক্রমণে যাওয়ার পরিণাম কি হতে পারে তা বুঝে উঠার আগেই ঘটে যায় ব্রাজিলের ইতিহাসের সব থেকে বড় অঘটন।

জুলিও সিজার যেন হারিয়ে বসেন নিজেকে। ডিফেন্স যখন সীমারেখা অতিক্রম করছে, তখন সিজার তাদের সামলে না নিয়ে  তার দায়িত্ববোধ ভুলে গিয়ে সব থেকে বড় ভিলেনে পরিণত হন।

এক ইংরেজ সাংবাদিক এই ভুলের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেন,"The biggest mistake Scolari made was that he kept on relying on Fred when he has clearly shown a lack of form and class to succeed in the grandest stage of football. People can argue that he didn't have any options, but Ramires later on proved him wrong by playing really well. This partnership didn't work."

স্কলারি সব থেকে বড় ঝুঁকিটা নেন দান্তে কে সিলভার পজিশনে জায়গা দেয়ার বিষয়ে।  যেখানে দান্তে কে তেমন কোন ভূমিকায় না দেখা গেলেও দান্তে ছিলো স্কলারির সব থেকে বেটার চয়েস।  এ বিষয়ে কারণস্বরূপ ধরে নেয়া যায়, দান্তে যেহেতু জার্মান ক্লাবে খেলে থাকেন এবং সিলভার পজিশনেই তিনি অভ্যস্ত সেহেতু স্যার স্কোলারি তাকেই বেছে নিয়েছেন।

ফাইনালি আমরা বলতেই পারি, স্যার স্কলারি দ্রুতই তার তারুণ্যনির্ভর দলের তত্ব থেকে সরে আসতে পারবেন।  যেখানে তিনি রোনালদিনহো,  কাকা কিংবা রবিনহোর মত অভিজ্ঞ খেলোয়াড় কে বাদ দিয়ে এক ঝাঁক তরুণ তারকা নিয়ে দল সাজান।  ম্যাচের ফলাফল যে কোন কিছু হতে পারত। কিন্ত দলের এমন পরিস্থিতিতে দলকে সাপোর্ট এবং মোটিভেট করার মত কাউকে না রাখাটা আমার মতে স্কোলারির সব থেকে বড় ভুল।

আমার মতে, দলের এমন পরিস্থিতিতে রোনালদিনহো, কাকা কিংবা রবিনহো অবশ্যই কার্যকর ভূমিকা পালন করতে সক্ষম হতেন।  যেখানে সকল দল নূন্যতম ১ জন করে হলেও দলে সিনিয়র প্লেয়ার রেখেছেন, সেখানে স্কোলারির মত ছিল সম্পুর্ণ ভিন্ন। উদাহরণস্বরূপঃ ক্লোজা (জার্মানি), বুফোন (ইটালি), দ্রগবা (আইভেরি কোস্ট)।

মানছি এদের মধ্যে অনেকেই প্রত্যাশা পূরণ করতে পারে নি। কিন্তু তাদের মাঝেই কেউ কেউ তাদের অভিজ্ঞতা ও বুদ্ধিমত্তা কাজে লাগিয়ে দলকে লজ্জাজনক হার থেকে বাচিয়েছেন।

তবে সে যাই হোক ভুল থেকেই নতুন করে জাগতে শিখেছে সেলেসাও বাহিনী।  হেক্সা জয়ের মিশনে এবারের কোচ টিটে কি পারবেন সকল ভক্তদের প্রত্যাশা পূরণ করতে..?  বর্তমান দলগত সাফল্য বলে দেয়, কোচ টিটে তেমন কোন ভুল পদক্ষেপ এখন পর্যন্ত নেননি। কারণ এবার দল তারুণ্যনির্ভর হলেও এর থেকে বেটার চয়েস আসলেই নেই। দেখার বিষয় টিটে পুর্বের ভুল থেকে তার শিষ্যদের কেমন শিক্ষা প্রদান করেন।

দেশীয় সকল ফুটবল সমর্থকদের নিকট একটাই প্রত্যাশা থাকবে, যাই ঘটুক না কেন সকল পরিস্থিতি মেনে নিয়ে প্রিয় দলকে সাপোর্ট দিয়ে যাবেন।  কোন প্রকার ট্রোল পোস্ট কিংবা বাজে মন্তব্য করে অরাজকতা সৃষ্টিকর্মের দ্বারা দেশীয় ভাবমূর্তি নষ্ট করার পক্ষে কেউ নয়।  একটা কথা সবার মাথায় রাখা উচিৎ "Every Teams Are Rivals, Not Enemies".



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ