kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

হোসেনপুর পাইলট বালিকায় অনিয়ম, পাল্টা সংবাদ সম্মেলন


 স্টাফ রিপোর্টার | ৫ জুন ২০১৮, মঙ্গলবার, ৮:২৮ | শিক্ষা  


হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্য রূপ নিয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা বেগম জিন্নাত আক্তার ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি প্রধান শিক্ষিকার স্বামী মোস্তাফিজুর রহমান মোবারেজের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগ এনে বিদ্যালয়ের সাত শিক্ষক গত ২৯শে মে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছিলেন। এসব বক্তব্যকে খণ্ডন করে বিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষকেরা মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রেস ক্লাবে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির শিক্ষক প্রতিনিধি প্রদীপ কুমার সরকার তার লিখিত বক্তব্যে অপর পক্ষকে ‘কুচক্রী মহল’ আখ্যা দিয়ে বলেন, বিদ্যালয়টি একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান। এর বিরুদ্ধে কুচক্রী মহলটি অপপ্রচারে নেমেছে এবং জেলা প্রশাসকের কাছে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে। ১৯৬৬ সালে প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়টি হোসেনপুর উপজেলা সদরের একমাত্র নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বর্তমান প্রধান শিক্ষিকা বেগম জিন্নাত আক্তার দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষায় বিদ্যালয়টি উপজেলায় শ্রেষ্ঠ। গত চার বছর যাবত শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক ও শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক হিসেবে সরকারিভাবে স্বীকৃতি পেয়ে আসছে। হীন স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য একটি মহল বিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে। এদের মধ্যে কয়েকজন শিক্ষক বিভিন্ন অপকর্মের কারণে অভিযুক্ত।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে অপতৎপতায় লিপ্ত এই স্কুলের বি.কম শিক্ষক এম রহমান বেআইনীভাবে উপজেলা সদরের সরকারি মডেল পাইলট স্কুল এন্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। অপর শিক্ষক এসএম রাকিব (এম.এ) পাইলট স্কুল এন্ড কলেজে ইংরেজি প্রভাষক হিসেবে কাজ করছেন। এরা দুজন একসঙ্গে দুই বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করায় এদের বিরুদ্ধে কথা বলার কারণে এরা এখন পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুন্ন করার কাজে লিপ্ত হয়েছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

বিদ্যালয়ের ১৫ জন শিক্ষক যৌথ স্বাক্ষরে জেলা প্রশাসকের কাছে ইতোপূর্বে দেয়া অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, সভাপতি স্বামীর যোগসাজশে প্রধান শিক্ষিকাকে বিদ্যালয় থেকে ৩৫ হাজার ১৫০ টাকা বেতন দেয়া হয়। অন্য শিক্ষকদের দেয়া হয় মাত্র দুই হাজার ৪২৫ টাকা। এর জবাবে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, পূর্ববর্তী সভাপতি প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব আলীর সময়ই প্রধান শিক্ষিকাকে বিদ্যালয় থেকে ৩৫ হাজার ১৫০ টাকা বেতন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তবে অন্য শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি করার একটি প্রকৃয়া চলছে।

সংবাদ সম্মেলনে প্রধান শিক্ষিকা বেগম জিন্নাত আক্তার, শিক্ষিকা রোকেয়া বেগম, বিথীরাণী মোদক, শিক্ষক আবুল হোসেনসহ ১৭ জন শিক্ষক, পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মোবারেজ, সদস্য আলী হোসেন, মোমেন ফকির ও মতিউর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ