kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

কটিয়াদীতে মধ্যযুগীয় নির্যাতনে যুবকের মৃত্যু, ঘাতক গ্রেপ্তার



 স্টাফ রিপোর্টার | ২০ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার, ৯:২৫ | কটিয়াদী 


(বামে) ঘাতক লোকমান হোসেন রোকন এবং ডানে নিহত মো. শিখন মিয়া।

২৪দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে কটিয়াদীতে মধ্যযুগীয় নির্যাতনের শিকার দিনমজুর যুবক মো. শিখন মিয়া (২৮) গত ১৫ জানুয়ারি রাতে মারা গেছে। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় শনিবার বিকালে মূল অভিযুক্ত লোকমান হোসেন রোকন (৪০) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। উপজেলার বনগ্রাম ইউনিয়নের কইতরীপাড়া এলাকার হাওরে অভিযান চালিয়ে বিকাল ৫টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। কটিয়াদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকির রব্বানী ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. আবুল বাশার আজাদ এই গ্রেপ্তার অভিযানে নেতৃত্ব দেন।

গ্রেপ্তার হওয়া ঘাতক লোকমান হোসেন রোকন উপজেলার মুমুরদিয়া ইউনিয়নের চাতল বাগহাটা এলাকার মো. চাঁন মিয়ার ছেলে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, গত ২২ ডিসেম্বর সকালে চাতল বাগহাটা গ্রামের রোকন মিয়া নেশা করে দিনমজুর শিখন মিয়ার ঘরের সামনে আবোলতাবোল বকতে থাকেন। শিখন এর প্রতিবাদ জানালে বাড়ি ফিরে গিয়ে রোকন তার বাবা, চাচা, ভাই ও চাচাতো ভাইদের নিয়ে এসে শিখনের ওপর হামলা চালায়। তারা মধ্যযুগীয় কায়দায় হাত-পা বেঁধে নির্যাতন শুরু করে। লোহার রড ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে শিখনের ওপর এই নির্যাতন চলে। নির্যাতনে শিখনের নিচের পাটির একটি দাঁত ভেঙে যায়। এ ছাড়া তার জিহ্বা, মাথাসহ সারা শরীরে মারাত্মকভাবে জখম হয়। এছাড়া নির্যাতনকারীরা দিনমজুর শিখনের টিনশেড বসতঘরটিও ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে ভাঙচুর করে।

প্রকাশ্যে এই তাণ্ডব চালালেও হামলাকারীদের ভয়ে কেউ গুরুতর আহত শিখনকে উদ্ধার কিংবা হাসপাতালে পাঠাতেও সাহস পায়নি। খবর পেয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাথী বেগম স্থানীয় ইউপি সদস্য ইসমাইলসহ অন্যদের নিয়ে শিখনকে উদ্ধার করে কটিয়াদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠান। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু অর্থাভাবে চিকিৎসা করাতে না পেরে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসে তার পরিবার।

এ পরিস্থিতিতে তার অবস্থার চরম অবনতি হলে গত ১৩ জানুয়ারি গ্রামের মানুষ চাঁদা তুলে তাকে প্রথমে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৫ জানুয়ারি রাতে মারা যায় শিখন।

এ ঘটনায় নিহত শিখন মিয়ার বাবা নূর হোসেন ভূইয়া বাদী হয়ে লোকমান হোসেন রোকনকে প্রধান করে মোট সাতজনকে আসামি করে কটিয়াদী থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় এসআই মো. আবুল বাশার আজাদকে।

কটিয়াদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকির রব্বানী জানান, লোকমান হোসেন রোকন এই হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা। তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ