কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিকলীতে চেয়ারম্যানের আত্মসাত, ৩শ’ দুস্থকে চাল কিনে দিলেন মহিলা সদস্য


 খাইরুল মোমেন স্বপন, স্টাফ রিপোর্টার, নিকলী | ১৩ জুন ২০১৮, বুধবার, ৮:৩৮ | নিকলী  


নিকলীতে জারইতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামরুল ইসলাম মানিকের বিরুদ্ধে ভিজিএফের চাল আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ পরিস্থিতিতে বিক্ষুব্ধ তিনশ দুস্থের মুখে হাসি ফোটাতে স্বউদ্যোগে চাল কিনে দিয়ে টক অব দ্য উপজেলা হয়ে উঠেছেন জেসমিন আরা বিউটি নামের এক ইউপি সদস্য।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার নিকলী উপজেলার জারইতলা ইউনিয়নের ১ হাজার ৩শ’ ২১টি দুস্থ পরিবারের মধ্যে ভিজিএফের চাল বিতরণ করা হয়। অনুমোদিত কোন মাপনীর বদলে একটি ছোট প্লাষ্টিকের বালতি দিয়ে চাল দেয়া হচ্ছিল। যাতে ৫-৬ কেজি পরিমাণ চাল ধরে। কম চাল দেওয়ায় প্রতিবাদী হয়ে উঠেন তারা। চেয়ারম্যান মো. কামরুল ইসলাম মানিক তাদেরকে যা দেওয়া হচ্ছে তা নিয়েই সন্তুষ্ট হতে বলেন। অন্যথায় কিছুই দেওয়া হবেনা বলে জানালে সংরক্ষিত ১, ২ ও ৩ নং সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য জেসমিন আরা বিউটি দুস্থদের পক্ষে প্রতিবাদ করেন। এতে চেয়ারম্যান মো. কামরুল ইসলাম মানিক ও তার সহযোগিরা তাদেরকে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বের হয়ে যেতে নির্দেশ দেন বলে জানান তারা। এমন কি চৌকিদার, ৩নং ওয়ার্ড সদস্য জাকারিয়া বাতেন ও ৩ নং ওয়ার্ড সদস্য দ্বীন ইসলাম তাদেরকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেন।

ক্ষুব্ধ দুস্থরা চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্টদের অপকর্মের বিরুদ্ধে শ্লোগান দিয়ে মিছিল করে রোদার পুড্ডা বাজারে পৌঁছলে জেসমিন আরা বিউটি স্থানীয় একটি মুদির দোকান থেকে প্রত্যেককে দশ কেজি করে চাল কিনে দেন।

ধারীশ্বর গ্রামের জ্ঞানবানু(৩০), কামালপুরের হেলাল(৩৫),পুড্ডার  কুলসুম (৬৪)সহ কমপক্ষে ১০জন জানান, মহিলা মেম্বার চাল কিনে না দিলে তাদের ঈদ আনন্দ মলিন হয়ে যেতো।

মুদি দোকানী সামছুদ্দিন জানান, মহিলা মেম্বার জেসমিন আরা বিউটি ৩শ’ লোককে ১০ কেজি করে চাল দেওয়ার জন্যে বলেছেন। টাকাও পরিশোধ করেছেন। ইতিমধ্যে ২শ’র অধিক লোককে চাল দিয়েছি।

জেসমিন আরা বিউটি বলেন, চেয়ারম্যান চক্রটি দীর্ঘদিন ধরেই অসহায়দের বিভিন্ন সুবিধা আত্মসাৎ করছেন। মুখ বুঝে সহ্য করেছি। ঈদ উপলক্ষে সরকারের দেওয়া সামান্য চালেও তাদের লোভ দেখে নিজেকে ধরে রাখতে পারিনি। প্রতিবাদ করায় পরিষদ থেকে বের করে দিয়েছে। দুস্থদের কথা চিন্তা করে নিজেই ৩শ’ লোককে চাল দিচ্ছি। তিনি আরো জানান, সরকার নারীদের সম্মানে আইন রাখলেও এই পরিষদে নারীরা উল্টো নিগৃহীতই হয়ে আসছে।

চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম মানিকের সাথে মুঠোফোনে ঘটনা জানতে চাইলে তিনি সরেজমিনে দেখার জন্যে এ প্রতিনিধিকে অনুরোধ করে জানান, জেসমিন কেন তার লোকদের নীতি বহির্ভূতভাবে আগে দেওয়া হবেনা বলে রাগ করে চলে গেছেন। পরিমাপে কম দেওয়ার প্রশ্নে তিনি জানান, নানা কারণে পূর্ণ ১০ কেজি দেওয়া সম্ভব নয়। জনপ্রতি সাড়ে ৮ থেকে ৯ কেজি দেওয়া হচ্ছে এ কথা সত্যি।

সরেজমিনে ইউনিয়ন পরিষদে উপস্থিত হলে গেটের সামনে চাল নিয়ে বাড়ি ফিরতে দেখা যায় কয়েক নারীকে। শাহপুর গ্রামের এতাবদ্দিনের কন্যা মাফুজা (৫৫) জানান, তাকে দেয়া চালের পরিমাণ ৬-৭ কেজি হবে। সঙ্গীয়রাও তাই জানালেন। না আনলে তাও পাবোনা, তাই এনেছি।

চালের জন্যে অপেক্ষমান শাহপুর গ্রমের বৃদ্ধ মঞ্জিল মিয়া (৬৫), ছাবেদ (৭০), ছন্দু ভূঁইয়া সহ কয়েকজন জানান, একটা বালতি দিয়া মাইপ্যা দে। ৬ কেজি অইলেও সই, নয় কেজি অইলেও সই। নিলে নেও , না নিলে বাদ দেও। তবে হুনছি ৮ কেজি-৯কেজি অয়। এই ফয়লা ফাইতাছিতো, জানিনা।

শাহপুর গ্রামের নমেন মিয়া(৬৫) জানান, কয় কেজি দিছে জানিনা। ৭-৮ কেজি হবে মনে অয়। বেইচ্চা দিছি। ১শ ৮০ ট্যাহা দিছে।

নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইয়াহ ইয়া খান জানান, ঐ মহিলা সদস্য জেসমিন আমাকে ঘটনাটি জানালে আমি স্থানীয়ভাবে দেখার জন্যে বল্লাম। না হলে আমি যাবো। পরবর্তীতে মহিলা সদস্য আমাকে আর কিছু না জানালে ভেবেছি বিষয়টি মীমাংসা হয়ে গেছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর







সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ