kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

বৃহত্তম ঈদজামাতের জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া, থাকছে স্পেশাল ট্রেন



 বিশেষ প্রতিনিধি | ১৫ জুন ২০১৮, শুক্রবার, ১০:৪২ | বিশেষ সংবাদ 


ফাইল ছবি।

ঐতিহ্যবাহী শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে এবার ১৯১তম ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টায় জামাত শুরু হবে। জামাতে ইমামতি করবেন ইসলাহুল মুসলিহীন পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ। উপমহাদেশের বৃহত্তম এই ঈদজামাত আয়োজনের সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।

এ জন্য সংস্কার করা হয়েছে মিনার, অজুখানা। মুসল্লিদের প্রাকৃতিক কাজ-কর্ম সারার জন্য তৈরি করা হয়েছে বেশকিছূ অস্থায়ী টয়লেট। দূর-দূরান্ত থেকে আসা মুসল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তা ও সুবিধার্থে এবছর মাঠের পাশেই অবস্থিত আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের হলরুমে থাকার সু-ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এ ঈদগাহে আসা মুসল্লিদের আপ্যায়ন ও প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য স্থাপন করা হয়েছে অস্থায়ী স্বেচ্ছাসেবী ক্যাম্প। দূর-দূরান্ত থেকে আসা মুসল্লিদের তৃষ্ণা লাঘব করতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী এবং এলাকাবাসী তৈরি রয়েছেন মুসল্লিদের আতিথেয়তায়। রেওয়াজ অনুযায়ী, তাদের মাঝে বিশুদ্ধ খাবার পানি, বাতাসা, মিষ্টান্ন প্রভৃতি বিতরণ করেন এলাকাবাসী। প্রস্তুত রাখা হয়েছে একাধিক মেডিক্যাল টিম। এছাড়া মুসল্লিগণের জন্য সুপেয় পানি নিশ্চিত করতে প্রথমবারের মতো মাঠের ভেতরে সারি করে বসানো হয়েছে পানির ট্যাপ।

বর্ণিল আলোকসজ্জায় সাজানো হয়েছে পুরো শোলাকিয়া ময়দান। স্থানে স্থানে মুসল্লিদের স্বাগত জানিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে তোরণ, রাস্তার দু’পাশে টানানো হয়েছে রং-বেরংয়ের পতাকা ও ব্যানার। সব মিলিয়ে বৃহত্তম ঈদজামাতের জন্য ২৬৮ বছরের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান এখন পুরোপুরি প্রস্তুত।

অন্যদিকে দূর-দূরান্ত থেকে আসা মুসল্লিদের সুবিধার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে এবারও ‘শোলাকিয়া এক্সপ্রেস’ নামে দু’টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করেছে। ভৈরব বাজার-ময়মনসিংহ ও ময়মনসিংহ-ভৈরব বাজার রুটে বিশেষ ট্রেন দু’টি চলাচল করবে। বিশেষ ট্রেনের একটি ঈদের দিন সকাল ৬টায় ভৈরববাজার থেকে কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে এবং সকাল ৮টায় কিশোরগঞ্জ পৌঁছুবে। জামাত শেষে ট্রেনটি দুপুর ১২টায় পুনরায় ভৈরববাজারের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে এবং বেলা ২টায় ভৈরববাজার পৌঁছুবে।

অপর ট্রেনটি ঈদের দিন সকাল পৌনে ৬টায় ময়মনসিংহ থেকে কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে এবং সকাল সাড়ে ৮টায় কিশোরগঞ্জ পৌঁছুবে। এ ট্রেনটিও জামাত শেষে দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জ থেকে ছেড়ে যাবে এবং বেলা ৩টায় ময়মনসিংহ পৌঁছুবে।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী জানান, উপমহাদেশের বৃহত্তম এই ঈদজামাত আয়োজনের সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। গৃহীত প্রস্তুতির বিবেচনায় লাখ লাখ মুসল্লির অংশগ্রহণে এবারো উৎসবমুখর পরিবেশে সুন্দর ও সুচারুভাবে ঈদজামাত অনুষ্ঠিত হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এবারের ১৯১তম ঈদজামাতে শরীক হওয়ার জন্যও জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী সাদর আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের পূর্বপ্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীর ঘেঁষে অবস্থিত প্রাচীন এবং ঐতিহ্যবাহী এ শোলাকিয়া ঈদগাহ। বাংলার বারো ভূঁইয়ার অন্যতম ঈশাখাঁ’র ষোড়শ বংশধর হয়বতনগরের জমিদার দেওয়ান মান্নান দাঁদ খান তার মায়ের অসিয়াত মোতাবেক ১৯৫০ সালে শোলাকিয়া ঈদগাহের জন্য ৪.৩৫ একর জমি ওয়াক্ফ করেন। সেই ওয়াক্ফ দলিলে উল্লেখ রয়েছে, ১৭৫০ সাল থেকে এ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। সে হিসাব অনুসারে, শোলাকিয়া ঈদগাহের বয়স ২শ’ ৬৮ বছর। প্রতিষ্ঠার ৭৮ বছর পর ১৮২৮ সালে প্রথম বড় জামাতে এই মাঠে একসঙ্গে ১ লাখ ২৫ হাজার অর্থাৎ সোয়ালাখ মুসল্লি ঈদের নামাজ আদায় করেন। এই সোয়ালাখ থেকে এ মাঠের নাম হয় ‘সোয়ালাখিয়া’, যা উচ্চারণ বিবর্তনে হয়েছে শোলাকিয়া।

মুসলিম ঐতিহ্যের ধারক এ ঈদগাহে শত ব্যস্ততা, নানা সমস্যা আর প্রাকৃতিক বৈরিতাকে উপেক্ষা করে সমবেত হন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিগণ। এক কাতারে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করেন ধনী-গরীব নির্বিশেষে। সবার উদ্দেশ্য একটাই- যেন কোন অবস্থাতেই হাত ছাড়া হয়ে না যায় জামাতে অংশ গ্রহণ, আল্লাহর সান্নিধ্য লাভের সুযোগ। ধনী-গরীবের ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে সাম্য ও  সুন্দরের ভিত্তিতে এক নতুন সমাজ গড়ার এই শিা নিয়েই জামাত শেষে বাড়ির পথে শোলকিয়া ছাড়েন তারা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ