কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বন্দুকের গুলি ছুড়ে শুরু হয় শোলাকিয়ার ঈদ জামাত


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ জুন ২০১৮, শনিবার, ২:৪৯ | ভিডিও খবর  


রেওয়াজ অনুযায়ী এবারও বন্দুকের গুলি ছুড়ে শোলাকিয়া ময়দানে ঈদজামাত শুরু হয়। নামাজ শুরুর পাঁচ মিনিট আগে ৩টি, তিন মিনিট আগে ২টি ও এক মিনিট আগে ১টি বন্দুকের গুলি ছুঁড়ে সমবেত মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের প্রস্তুতির জন্য সংকেত দেয়া হয়।

মাঠে মাইক সিস্টেম থাকলেও জনসমুদ্রে পরিণত হওয়া শোলাকিয়ায় আগত মুসল্লিদের মনোযোগ আকর্ষণের জন্য গুলি ছুড়ে সংকেত দেওয়ার এই রেওয়াজ বহু বছর ধরে চলে আসছে।

শনিবার (১৬ জুন) অনুষ্ঠিত শোলাকিয়ার ঈদুল ফিতরের জামাতে অন্তত পাঁচ লাখ মুসল্লি অংশ নেন। এবারের ১৯১তম জামাতে ইমামতি করেন বাংলাদেশ ওলামা-মাশায়েখ সংহতি পরিষদের চেয়ারম্যান মাও. ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। জামাতের পরে তিনি মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বয়ান রাখেন। পরে দেশ, জাতি ও মুসলিম উম্মাহর সমৃদ্ধি ও শান্তি কামনা করে তিনি মোনাজাত পরিচালনা করেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের পূর্বপ্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীর ঘেঁষে অবস্থিত প্রাচীন এবং ঐতিহ্যবাহী এ শোলাকিয়া ঈদগাহ। বাংলার বারো ভূঁইয়ার অন্যতম ঈশাখাঁ’র ষোড়শ বংশধর হয়বতনগরের জমিদার দেওয়ান মান্নান দাঁদ খান তার মায়ের অসিয়াত মোতাবেক ১৯৫০ সালে শোলাকিয়া ঈদগাহের জন্য ৪.৩৫ একর জমি ওয়াকফ করেন। সেই ওয়াকফ দলিলে উল্লেখ রয়েছে, ১৭৫০ সাল থেকে এ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। সে হিসাব অনুসারে, শোলাকিয়া ঈদগাহের বয়স ২শ’ ৬৮ বছর।

প্রতিষ্ঠার ৭৮ বছর পর ১৮২৮ সালে প্রথম বড় জামাতে এই মাঠে একসঙ্গে ১ লাখ ২৫ হাজার অর্থাৎ সোয়ালাখ মুসল্লি ঈদের নামাজ আদায় করেন। এই সোয়ালাখ থেকে এ মাঠের নাম হয় ‘সোয়ালাখিয়া’, যা উচ্চারণ বিবর্তনে হয়েছে শোলাকিয়া। বৃহত্তম জামাতের হিসাব অনুযায়ি, এ বছর এ ঈদগাহ মাঠে ১৯১তম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর