kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

ধর্ষণের শিকার কিশোরী এখন মা, ধর্ষক অধরা


 স্টাফ রিপোর্টার | ২১ জানুয়ারি ২০১৮, রবিবার, ৮:২৮ | হোসেনপুর 


হোসেনপুরে ধর্ষণের শিকার এক কিশোরী গত ২২ ডিসেম্বর পুত্র সন্তানের মা হয়েছে। কিন্তু কিশোরী পায়নি স্ত্রীর মর্যাদা, নবজাতক শিশুটিও পায়নি তার স্বীকৃতি। এছাড়া ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হলেও এখনো গ্রেপ্তার হননি অভিযুক্ত গিয়াস উদ্দিন। অভিযুক্ত গিয়াস উদ্দিন হোসেনপুর উপজেলার টান সিদলা গ্রামের বাসিন্দা। এ পরিস্থিতিতে কিশোরীর পরিবারে হতাশা বিরাজ করছে।

পরিবারের অভিযোগ, ধর্ষণের ঘটনার পর সালিশের নামে কালক্ষেপণ করে আসামির পরিবার ও স্থানীয় মাতবরেরা। সেখানে বিচার না পেয়ে গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর কিশোরগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে পিটিশন মামলা দায়ের করেন কিশোরীর বাবা। যার নং-৬৫৯/১৭। ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. আওলাদ হোসেন ভূঞা হোসেনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) তদন্তের নির্দেশ দেন। ওসি আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী লিখিত প্রতিবেদন পাঠান। পরে ট্রাইব্যুনাল মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে তদন্তের নির্দেশ দেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, আসামি গিয়াস উদ্দিন একজন ধনাঢ্য ব্যক্তি। দারিদ্রের কারণে কিশোরী গিয়াস উদ্দিনের বাড়িতে কাজ করত। গত বছরের ২৯ মার্চ শরীরে তেল মালিশ করার কথা বলে কিশোরীকে ফুঁসলিয়ে ধর্ষণ করেন গিয়াস উদ্দিন। বিষয়টি কাউকে জানালে কিশোরীকে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি দেন গিয়াস উদ্দিন। এ ভয়ে কাউকে না জানিয়ে কিশোরী বিষয়টি গোপন রাখে। কিন্তু কিছু দিন পরে মায়ের সন্দেহ হলে কিশোরী বিষয়টি খুলে বলে। এ পরিস্থিতিতে ২০ সেপ্টেম্বর হোসেনপুর ইউনাইটেড কিনিকে পরীক্ষায় কিশোরী অন্ত:স্বত্ত্বা বলে ধরা পড়ে। বিষয়টি জানাজানি হলে গিয়াস উদ্দিন গর্ভের সন্তান নষ্ট করার জন্য মেয়েটির বাবাকে চাপ দেন। এ সময় মামলা না করার জন্য শাসান। ৩ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করতেও চাপ দেন। এতে রাজি না হয়ে মেয়েটির বাবা হোসেনপুর থানায় মামলা করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে কিশোরগঞ্জ নারী ও মিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন।

কিন্ত এখন পর্যন্ত আসামিকে ধরা হয়নি। ওই কিশোরী তার সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবি জানিয়েছে।

সিদলা ইঊনিয়ন পরিযদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. সিরাজ উদ্দিন বলেন, মেয়েটির বাবা অসহায় ও গরিব। এ কারণে বিচারের আশায় মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও ব্যর্থ হচ্ছেন।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ পিবিআই এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল শফি জানান, মামলাটির তদন্ত চলছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ