www.kishoreganjnews.com

৪৭ বছর ধরে শোলাকিয়ায়



[ বিশেষ প্রতিনিধি | ২৬ জুন ২০১৭, সোমবার, ৮:১৩ | ফিচার ]


শোলাকিয়ার টানে এবারও এসেছিলেন ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার কাসর গ্রামের আখতার হোসেন মণ্ডল (১১২)।

শোলাকিয়ার টানে বারবার ফিরে আসেন তিনি, আবহাওয়া ভালো থাকলে তো কথাই নেই। ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করেও এ মাঠে নামাজ আদায়ের জন্য হাজির হন।

সোমবারও এসেছিলেন। এভাবেই কেটে গেছে ৪৭টি বছর। গাজীপুরের শ্রীপুরের মামা রফিক উদ্দিন মাস্টারের সঙ্গে হেঁটে দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে শোলাকিয়ায় প্রথম ঈদের নামাজ আদায় করেছিলেন আখতার হোসেন মণ্ডল।

মামা রফিক উদ্দিন মাস্টারই তাঁকে প্রথমে জানান, কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈশাখাঁর একটি বড় মাঠ আছে, যেখানে বিরাট বড় ঈদের জামাত হয়। মামা বেঁচে না থাকলেও তার সঙ্গে আসা শোলাকিয়ায় সেই থেকে দীর্ঘ ৪৭ বছর ধরে নিয়মিত ঈদুল ফিতরের জামাতে নামাজ আদায় করছেন তিনি।

যে জামাতে মুসল্লি যত বেশি হয়, সওয়াবও তত বেশি হয় এবং গোনাহ মাফ হয়। এ বিশ্বাস থেকেই প্রতিবছর এখানে নামাজ পড়তে আসেন বলে জানালেন আখতার হোসেন মণ্ডল। তিনি জানান, ৪৭ বছর ধরে এ মাঠে নামাজ আদায় করছেন। তবে বয়স হয়ে যাওয়ায় এখন আর একা আসতে পারেন না। লোকজনের সহযোগিতা নিতে হয়। এবারও এক আত্মীয়কে সঙ্গে করে ২৮ রমজানের দিন দুপুরে শোলাকিয়ায় হাজির হয়েছেন।

বয়স হওয়ার কারণে ছেলেমেয়েরা এখন আর আসতে দিতে চায় না জানিয়ে আখতার হোসেন মণ্ডল বলেন, ‘সন্তানরা নিষেধ করলে কান্না চলে আসে, চোখের পানি ধরে রাখতে পারি না। শোলাকিয়ার টান উপেক্ষা করার শক্তি আমার নেই। তাই ছেলেমেয়েরা আমার আবদারে আর বাধা দেয় না। যত দিন বেঁচে আছি ঈদের নামাজ আমাকে এখানেই আদায় করতে হবে।’

আখতার হোসেন মণ্ডল জানান, প্রথম যখন এ মাঠে নামাজ পড়তে আসেন তখন মাঠের খোলা মিম্বর থেকে নামাজ পরিচালনা করা হতো। ওজুখানাও ছিলো না। মাঠের পাশ দিয়ে বয়ে চলা নরসুন্দা নদীর টলমল পানিতে ওজু করতেন। এখন নদীটি থাকলেও সেই টলমল পানি আর নেই। পুকুরের পাড়ে নির্মাণ করা ওজুখানায় এখন ওজু করেন। সেসময় থাকা-খাওয়ার তেমন কোন ব্যবস্থা না থাকায় শুকনো খাবার যেমন চিড়া-গুড় সঙ্গে করে নিয়ে আসতেন। কয়েক বছর আগে রোজার হিসেবে ভুল হওয়ায় দুইদিন জামাত পড়তে হয়েছিল। কয়েক বছর বৃষ্টিতে ভিজে নামাজ আদায় করেছেন বলেও জানান তিনি।

৪৭ বছর আগের মাঠ আর এখনকার মাঠে তেমন কোন পার্থক্য না থাকলেও মুসল্লিদের সুযোগ-সুবিধা বেড়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। ঈদগাহ মসজিদ মিম্বরে মুসল্লিরা থাকার পাশাপাশি আয়োজক কমিটির আতিথেয়তাও পাচ্ছেন। তিনি বলেন, ৪৭ বছর ধরেই দেখছি প্রতিবারই এ মাঠে মুসল্লির সমাগম বাড়ছে। দিন দিন এ মাঠের সুখ্যাতি চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে। রমজান এলেই চিন্তা শুরু হয় কখন হাজির হব শোলাকিয়ায়। গ্রামের কাউকে সঙ্গে নিয়ে ঈদের দু’য়েক দিন আগেই চলে আসি এখানে, যেন কোন অবস্থাতেই এ মাঠে ঈদের জামাত পড়া থেকে বঞ্চিত না হই।

আখতার হোসেন মণ্ডল আরো জানান, দীর্ঘদিন ধরে এ মাঠে নামাজ পড়ার সুবাদে অনেক স্থানীয় লোকজন ও নিয়মিত মুসল্লিদের অনেকের সঙ্গে পরিচয় ঘটেছে। প্রতিবছর তাদের অনেকে এসে খোঁজখবর নেন।

আখতার হোসেন মণ্ডলের ভাগ্নে সিরাজুল ইসলাম বলেন, শোলাকিয়ায় এতো লোকের সঙ্গে নামাজ পড়াটা সত্যিই সৌভাগ্যের ব্যাপার। আর এই কারণে কেবল মনের জোরে আমার ১১২ বছর বয়সী মামা আখতার হোসেন ম-ল প্রতিবছর ঈদের দিনটায় শোলাকিয়ায় এসে হাজির হন। একটা জামাত শেষ হওয়ার পর সারা বছর ধরে তিনি আরেকটা জামাতের জন্য অপেক্ষায় থাকেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com