www.kishoreganjnews.com

চাই শিক্ষকের প্রকৃত মর্যাদা



[ এম. এ. বাতেন ফারুকী | ৭ ডিসেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার, ২:১৩ | মত-দ্বিমত ]


গত ৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ তারিখের দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা যায়, বগুড়ার আমতলীতে খেকুয়ানী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এস এম মহিউদ্দিন স্বপন উক্ত বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে প্রহৃত হয়েছেন। জানা যায়, উক্ত বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও যুবলীগের সভাপতি আব্দুস সোবাহান লিটন এবং তার সহযোগীরা মিলে কিল, ঘুষি, লাথি প্রভৃতি দ্বারা প্রধান শিক্ষক মহোদয়কে (?) আহত করেছেন। যথারীতি আমাদের  শিক্ষক সমিতি সমব্যথী হয়ে মানববন্ধন করেছেন, চলমান বার্ষিক পরীক্ষা বর্জন করেছেন। মোটকথা সবরকমের ভদ্রোচিত প্রতিবাদ করেছেন। কি বলব, ইদানিং যে হারে মানববন্ধন হচ্ছে সংশয় হয় ভদ্রোচিত প্রতিবাদের ভাষা থেকে ইহা হারিয়ে যায় কিনা।

শিক্ষকের পক্ষে শিক্ষক সমাজ এগিয়ে আসবে- এতো স্বাভাবিক। বরং বিপরীতক্রমে সাংঘর্ষিক। এসব ক্ষেত্রে প্রশাসনকে যথোচিত ভুমিকা রাখার কথা। যদিও একজন ইতোমধ্যে গ্রেফতার হয়েছে। আর প্রশাসনের কথা বলে কি লাভ! যেখানে একজন ইউএনওকে সর্বোচ্চ হেনস্থা করার পরও সর্বোচ্চ নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত সঠিক পদক্ষেপ গৃহীত হয় না সেখানে কিই বা আশা করা যায়।

শুধু কি তাই? শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা, প্রহৃত কিংবা অপমানিত হওয়ার ঘটনাতো কালে-ভদ্রের নয় বরং নৈমিত্তিক। আর যা নৈমিত্তিক তাতো হেডেক নয় বরং সহনীয়। তাই বোধ হয় এ নিয়ে হৈ চৈ তেমন একটা হয় না। তবে মিডিয়ার বাহুল্যে অন্তত মানুষজন জানতে পারে, জাতির কারিগরগণ কোথায় কিভাবে কাদের  দ্বারা প্রহৃত বা লাঞ্ছিত হচ্ছেন। আমাদের লজ্জাবোধ হওয়া উচিত, একদিকে বলি জাতি গড়ার কারিগর অন্যদিকে তাঁদেরকে (?) নিয়মিত লাঞ্ছিত করে যাচ্ছি। প্রশ্ন জাগে, জাতিকে এমন বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলার অধিকার কি আমাদের আছে? একজন শিক্ষক হিসেবে আমার ভয় হচ্ছে, অচিরেই জাতি মেধাশূণ্য হয়ে যাচ্ছে- এই ভেবে। আত্মসমালোচনা করতে দ্বিধা নেই, নিজের দুর্বলতা স্বীকার করতে সংকোচ নেই, শিক্ষকতা পেশায় থাকার সুবাদে শিক্ষকদের সবলতা ও দুর্বলতা দু'ই জানি। তবে এটুকু জোর দিয়েই বলা যায়, এভাবে শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনা নিয়মিত ঘটতে থাকলে চাইলেও আমরা নিকট ভবিষ্যতেতো নয়-ই দূর ভবিষ্যতেও একটি দক্ষ ও চৌকশ শিক্ষক সমাজ গড়তে পারব না। তদুপরি বর্তমানে প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থার রাহুগ্রাসতো রয়েছেই। একেবারে সরল কথা, As you sow so you reap. You can't think a meritorious generation without having a meritorious teachers' society.

বর্তমানে একজন মধ্যমমানের মেধাবী শিক্ষার্থীও কর্মজীবনে শিক্ষক হতে চায় না যদি না সে অপেক্ষাকৃত ভালো ক্যাডারভুক্ত হয় কিংবা তার পছন্দমত চাকরি পায়। যথাযথ সম্মান রেখেই বলছি, কতজন যোগ্য শিক্ষক আছেন যাঁরা শিক্ষকতাকে জীবনের লক্ষ্য হিসেবে নিয়ে এ পেশায় ঢুকেছেন। আসল সত্য হলো, কোনো মেধাবী ও সৃজনশীল শিক্ষার্থীই শিক্ষকতাকে প্রথম পছন্দ হিসেবে গ্রহণ করে না। কারণ, সম্মান ও মর্যাদার অনিশ্চয়তার পাশাপাশি অর্থ ও ক্ষমতার অপ্রতুলতা।

এস এম মহিউদ্দিন স্বপন প্রহৃত হয়েছেন বলেই আমরা প্রতিবাদ করছি হয়তোবা মাঠ সরগরম হবে। কিন্তু এতে তো আর স্থায়ী সমাধান হবে না। আমরা স্থায়ী সমাধান চাই। চাই শিক্ষকের প্রকৃত মর্যাদা ও আর্থিক নিরাপত্তা। পৃথিবীতে আর কয়টি দেশ আছে যেখানে শিক্ষকদেরকে চোর-বাটপারদের মতো পেটানো হয়। তাও আবার অশিক্ষিত ও অর্ধশিক্ষিত এমনকি ক্ষেত্রবিশেষে Ignorant ব্যক্তি দ্বারা। এ অবস্থাটা চলতে দেয়া বা মেনে নেয়া  কিংবা সহ্য করা রাস্ট্রের জন্য বা দেশের জন্য চরম লজ্জাকর। আমার আকুল আহ্বান, রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে শিক্ষকদের সম্মান, মর্যাদা ও আর্থিক নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করুন।

যে দেশে শিক্ষকের সম্মান, মর্যাদা ও আর্থিক নিরাপত্তা সুনিশ্চিত এমন দেশ খোঁজার প্রয়োজন নেই কারণ আমাদের চারপাশে প্রায় সবদেশেই উক্ত অবস্থা বিরাজমান। এমনকি ভারতের পশ্চিমবঙ্গেও শিক্ষকের মর্যাদা ও ক্ষমতা সুসংহত। আর্থিক সুবিধাও ঈর্ষণীয়। ম্যানেজিং কমিটির কার্যক্রম বৃটিশ আমলের নবাবের মত। দায়িত্ব আছে ক্ষমতা নেই। প্রকারান্তরে আমাদের দেশে বিপরীত অবস্থা, ক্ষমতা আছে দায়িত্ব নেই। সেখানে  প্রধান শিক্ষককে দেয়া হয়েছে সুপ্রিম ক্ষমতা। প্রধান শিক্ষকের accountability সরকারের আধিকারিকের নিকট। এখন প্রশ্ন হলো,আমরা পারছি না কেন?

শিক্ষকদের সম্মান আছে সেটা আমাদের মুখে মুখে। তাঁদের প্রাপ্য সম্মানটুকু আইন ও প্রথা অথবা বিধি-বিধানের মাধ্যমে সুসংহত করতে সমস্যা কোথায়? রাষ্ট্র কিংবা প্রশাসন যদি শিক্ষকদের সম্মান দেখায় এবং শিক্ষকদের অপমান বা লাঞ্ছনার যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া যায় তবে সমাজের বা রাষ্ট্রের প্রতিটি স্তরে সয়ংক্রিয়ভাবে শিক্ষকদের সম্মান ও মর্যাদা সুপ্রতিষ্ঠিত হবে। তখন মহিউদ্দিন স্বপন বা শ্যামল কান্তিদের মত আর কোনো শিক্ষক কিংবা প্রধান শিক্ষককে এভাবে লাঞ্ছিত হতে হবে না।

সত্যিই ভাবতে অবাক লাগে, এদেশের মানুষের নৈতিকতার পারদ কি পরিমাণ নিচে নেমেছে! একজন প্রধান শিক্ষক নিয়ম-নীতি বজায় রেখে যথারীতি নিয়োগ কার্যক্রম পরিচালিত করার পরও একজনের মনঃপুত না হওয়ায় তাঁকে নোংরাভাবে নিকৃষ্ট মানুষের মত প্রহৃত হতে হলো। প্রহারকারীর কি পরিমাণ আত্মবিশ্বাস (on indemnity) থাকলে পড়ে এত অন্যায়ভাবে একজন প্রধান শিক্ষককে (যিনি অপেক্ষাকৃত বেশি সালাম পান; ব্যতিক্রম বাদে) সদলবলে সুপরিকল্পিতভাবে ঠাণ্ডা মাথায় প্রহার ও লাঞ্ছিত করতে পারেন।

যতদূর জানি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিক্ষকদের সম্মান করতেন এবং সম্মান ও মর্যাদা দিয়ে কথা বলতেন। আফসোস!  If I were a teacher at that time!

এম এ বাতেন ফারুকী, প্রধান শিক্ষক, সৈয়দ হাবিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, কিশোরগঞ্জ সদর।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com