কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

পাকুন্দিয়ার ভার্মি গ্রাম খামা পরিদর্শন করলেন নান্দাইলের কৃষকরা


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ৩ জুলাই ২০১৮, মঙ্গলবার, ১:২৫ | কৃষি 


কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ভার্মি কম্পোষ্ট সারের গ্রাম খামা পরিদর্শন করলেন পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল উপজেলা কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা ও কৃষকগণ। সম্প্রতি ওই উপজেলার সিআইজি ভুক্ত ৬০জন কৃষক ও কৃষি বিভাগের ছয়জন কর্মকর্তা খামা গ্রাম পরিদর্শন করেছেন।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম ফেজ ও প্রজেক্ট এনএটিপি-২ প্রকল্পের আওতায় খামা বিলপাড় সিআইজিতে ভার্মি কম্পোষ্ট সার উৎপাদন প্রদর্শণী স্থাপন করা হয়। সেখান থেকে কৃষি বিভাগ প্রযুক্তি সম্প্রসারণের মাধ্যমে খামা গ্রামকে ভার্মি গ্রাম হিসেবে ঘোষণা করেন।

এ গ্রামে অধিকাংশ কৃষকদেরকে কেঁচো সার উৎপাদনের সাথে উদ্ধুদ্ধ করণের মাধ্যমে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। যারা এখন কেঁচো সার উৎপাদন করে নিজেদের জমিতে ব্যবহার ও বিভিন্ন পান বরজ, সবজি, ছাদ বাগান চাষিদের কাছে বিক্রয়ের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের পথ বেঁচে নিয়েছেন। আর এ কারণেই জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী জেলার কৃষকরা অত্যান্ত আগ্রহের সাথে কৃষি বিভাগের লোকজনের সহায়তায় এই কার্যক্রম সরেজমিনে দেখতে আসছেন।

তারই ধারাবাহিকরায় ভার্মি কম্পোষ্ট সার উৎপাদনের কৌশল ও সুযোগ-সুবিধার কথা শুনে ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল উপজেলার এনএটিপি-২ প্রকল্পের একদল সিআইজি ভূক্ত কৃষক ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাগণ দিনব্যাপি পরিদর্শেন আসেন উপজেলার খামা গ্রামে। তারা দিনভর খামা গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িতে কেঁচো সার উৎপাদন কার্যক্রম সরেজমিনে পরিদর্শন করেন।

এ সময় পরিদর্শনকৃত কৃষকের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, নারীরাও এই সার উৎপাদনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের সাথে সম্পৃক্ত হতে পারে, তা এখানে এসে বাস্তবে দেখলাম। এই কার্যক্রম দেখে খুব ভাল লাগল। এ কার্যক্রম অনুকরণ করে আমরাও আমাদের এলাকায় তা বাস্তবায়নের চেষ্টা করব।

জানা যায়, উপজেলার খামা গ্রামকে ভার্মি কম্পোষ্ট সারের গ্রাম হিসেবে গড়ে তুলতে উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ অকান্ত পরিশ্রম করেছেন। তারই সহযোগিতায় খামা গ্রামে এই সার উৎপাদনে কৃষকরা এগিয়ে এসেছেন। তিনি প্রতিটি বাড়িতে নিজে গিয়ে তার খোঁজখবর নেন।

উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ভার্মি কম্পোষ্ট সার উৎপাদনের সফলতা দেখতে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ইতি মধ্যে এই গ্রাম পরিদর্শন করেছেন। এছাড়াও প্রায় প্রতি সপ্তাহেই ভার্মি গ্রাম খামা পরিদর্শন করছেন জেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষক ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাগণ। এর সফলতা দেখতে পাশ্ববর্তী উপজেলা নান্দাইল থেকে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাসহ প্রায় অর্ধশত কৃষক অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্য এখানে আসায় আমি দারুন ভাবে আনন্দিত হয়েছি। এভাবে এনএটিপি-২ প্রকল্পের মাধ্যমে ভার্মি গ্রাম খামার সাফল্য সারা বাংলাদেশে ছড়িয়ে পরবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জনাব মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান বলেন, এনএটিপি- ২ প্রকল্পের এই এক্সপোজার ভিজিট এর মাধ্যমে দুই এলাকার কৃষকের মাঝে প্রযুক্তিগত জ্ঞান বিনিময় হলো যা তাদের কৃষি ক্ষেত্রে অনেক কাজে আসবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ