kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

শোলাকিয়ায় জঙ্গি হানার দুই বছর

তদন্ত শেষে চার্জশীট দাখিলের প্রস্তুতি



 বিশেষ প্রতিনিধি | ৭ জুলাই ২০১৮, শনিবার, ১০:৫৩ | বিশেষ সংবাদ 


জঙ্গিবাদ হারাম ঘোষণা করে এক লাখ আলেমের স্বাক্ষর সম্বলিত ফতোয়া প্রকাশের কারণে শোলাকিয়া ঈদগাহের ইমাম মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদকে হামলার টার্গেট করে জঙ্গিরা। হামলার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে নব্য জেএমবি’র মাস্টার মাইন্ড তামিম চৌধুরী ও মেজর জাহিদ দুই জঙ্গি আবির রহমান ও শরীফুল ইসলাম ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে ডনকে সঙ্গে নিয়ে ২০১৬ সালের ৫ই জুলাই কিশোরগঞ্জে এসে শহরের নীলগঞ্জ রোড এলাকার ভাড়া বাসা ‘পরশমনি’তে অবস্থান নেয়।

এর আগে পহেলা জুলাই ছাত্র পরিচয়ে বাসাটি ভাড়া নিয়ে পরদিন ২রা জুলাই সেখানে অবস্থান নেয় নব্য জেএমবি’র ঢাকা বিভাগের অপারেশন কমান্ডার আকাশ। হামলার আগের দিন ৬ই জুলাই বিকালে তামিম চৌধুরী, মেজর জাহিদ, আকাশ, আবির ও ডন প্রত্যেকে আলাদা আলাদা রেকি করে ৭ই জুলাই ঈদের দিন শোলাকিয়ার ইমামকে ঈদগাহের ভিআইপি গেটে হত্যার পরিকল্পনার করে।

ঈদের দিন ৭ই জুলাই সকালে পাঁচ জনের দলটি দুই ভাগে ভাগ হয়ে বেরিয়ে পড়ে অপারেশনে। হামলা পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয় জঙ্গি আবির রহমান ও শরীফুল ইসলাম ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে ডনকে।

কিন্তু তল্লাসি চৌকিতে পুলিশের তৎপরতা নস্যাত করে দেয় তাদের সব পরিকল্পনা। তল্লাসির মুখে পড়ে চাপাতি ও বোমা নিয়ে পুলিশের ওপর হামলে পড়ে জঙ্গি আবির ও শরীফুল।

আলোচিত এই হামলার নেপথ্যে থাকা নব্য জেএমবি’র উত্তরাঞ্চলীয় প্রধান জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী ওরফে সুভাস ওরফে জাহিদ (৩২) এবং নব্য জেএমবি’র ‘অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহকারী চক্রের অন্যতম প্রধান’ আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজ (৩৩) আদালতে দেওয়া ১৬৪ ধারায় তাদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানিয়েছে হামলার পরিকল্পনার আদ্যোপান্ত।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গত বছরের ১লা জুন শোলাকিয়া হামলা মামলায় জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী ওরফে সুভাস ওরফে জাহিদ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জঙ্গি রাজীব গান্ধী জানায়, সরকার উৎখাতের পরিকল্পনা থেকে দু’টি বড় ধরনের হামলার প্রস্তুতি নেয় নব্য জেএমবি। এর বাইরে আরো দু’টি কারণ ছিল। প্রথমত নব্য জেএমবি’র মধ্যে দু’টি গ্রুপ ছিল। দু’টি বড় ধরনের হামলা হলে নিজেদের সেই কোন্দল মিটে যাবে ও নিজেদের মধ্যে আস্থা বাড়বে। এছাড়া মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠীর সমর্থন ও সহযোগিতা পাওয়া সহজ হবে।

হামলার অস্ত্র ও অর্থদাতাদের সম্পর্কে জবানবন্দিতে জঙ্গি রাজীব গান্ধী জানায়, পার্শ্ববর্তী একটি দেশ থেকে বড় মিজানের মাধ্যমে হামলার অস্ত্র সংগ্রহ করা হয়। ছোট মিজান, খালিদ ও রিপন সেই অস্ত্র পৌঁছে দিতো। এছাড়া শোলাকিয়া হামলায় সরাসরি অংশ নেয়া দুই জঙ্গি আবির রহমান ও শফিউলের মধ্যে শফিউল জঙ্গি রাজীব গান্ধীর মাধ্যমে নব্য জেএমবিতে আসে বলেও রাজীব গান্ধী তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানায়।

তদন্ত সূত্র জানায়, রাজীব গান্ধীর এই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির সূত্র ধরে শোলাকিয়া মামলায় নব্য জেএমবির ‘অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহকারী চক্রের প্রধান’ মো. মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজানকে গত বছরের ২৭শে সেপ্টেম্বর পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এরপর গত বছরের ১৩ই নভেম্বর আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজকে তিন দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। রিমান্ড শেষে আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

শোলাকিয়া হামলা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আরিফুর রহমান জানান, মামলার তদন্ত একেবারে শেষ পর্যায়ে রয়েছে। শোলাকিয়া চেকপোস্টে জঙ্গি হামলার ঘটনার নেপথ্যের মাস্টারমাইন্ড, পরিকল্পনাকারী, পরিকল্পনা বাস্তবায়নকারী, অর্থ ও অস্ত্রদাতা এবং সহযোগীদের ব্যাপারে তথ্য পাওয়া গেছে। তাই শীঘ্রই এই গুরুত্বপূর্ণ মামলার চার্জশীট দেয়া সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ