kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

শোলাকিয়ায় জঙ্গি হানার দুই বছর

পুলিশের তাজা রক্তে নির্বিঘ্ন হয় ঈদজামাত



 বিশেষ প্রতিনিধি | ৭ জুলাই ২০১৮, শনিবার, ১১:১১ | বিশেষ সংবাদ 


২০১৬ সালের ঈদুল ফিতরের দিন (৭ই জুলাই) চরশোলাকিয়া সবুজবাগ মোড় পুলিশ চেকপোস্টে বাধা পেয়ে গ্রেনেড, বোমা, চাপাতি ও পিস্তল নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায় জঙ্গিরা। এ সময় জীবন তুচ্ছ করে প্রথম প্রতিরোধ গড়েন চেকপোস্টের দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা। জঙ্গিদের হামলায় ১৪ পুলিশ সদস্য আহত হন। তাদের তাজা রক্তে নির্বিঘ্ন হয় শোলাকিয়ায় উপমহাদেশের বৃহত্তম ঈদজামাত।

আহতদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম তপুর মৃত্যু হয়। অন্যদের মধ্যে কনস্টেবল আনছারুল হক (২৮), রবিকুল ইসলাম, প্রশান্ত কুমার সরকার, তুষার আহম্মেদ, জুয়েল মিয়া, মো. মশিউর রহমান ও এএসআই মো. নয়ন মিয়াকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে কনস্টেবল আনসারুল হককে ময়মনসিংহ সিএমএইচে নেয়ার পর দুপুরে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

ওইদিনই ময়মনসিংহ থেকে গুরুতর আহত ছয় পুলিশ সদস্য রবিকুল ইসলাম, প্রশান্ত কুমার সরকার, তুষার আহম্মেদ, জুয়েল মিয়া, মো. মশিউর রহমান ও এএসআই মো. নয়ন মিয়াকে জরুরীভিত্তিতে ঢাকা সিএমএইচে স্থানান্তর করা হয়।

এদিকে শোলাকিয়ার সবুজবাগ মোড় পুলিশ চেকপোস্ট আক্রান্ত হওয়ার পর পরই হামলাকারী জঙ্গিদের ধরতে অভিযানে নামে পুলিশ। বিশেষ করে শোলাকিয়া ঈদগাহে জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে কোন হেলমেট ও বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ছাড়াই বন্দুকযুদ্ধে অসীম সাহসিকতা দেখিয়ে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার তৎকালীন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মুর্শেদ জামান পরিণত হন জাতীয় বীরে।

এছাড়া জঙ্গিদের বিরুদ্ধে এই প্রতিরোধযুদ্ধে সরাসরি অংশ নিয়ে কিশোরগঞ্জের তৎকালীন পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন খান পিপিএম, তৎকালীন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈয়দ আবু সায়েম, তৎকালীন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) এসএম মোস্তাইন হোসেন, সদর মডেল থানার তৎকালীন ওসি মীর মোশারফ হোসেন, পুলিশ লাইন্সের নায়েক নিকো চাকমা প্রত্যেকেই রাখেন বীরোচিত ভূমিকা।

বিভিন্ন গণমাধ্যম ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শোলাকিয়ায় পুলিশের বীরত্বপূর্ণ এই অভিযানের অনেক ছবি ও ভিডিও ভাইরাল হয়। শোলাকিয়ায় এই সাহসিকতাপূর্ণ ও বীরোচিত ভূমিকা রাখায় ১০ লড়াকু পান বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) এবং প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক (পিপিএম)।

নিহত দুই পুলিশ কনস্টেবলের মধ্যে কনস্টেবল (নং-১৪৭৬) জহিরুল ইসলাম তপু ময়মনসিংহ জেলার ফুলবাড়িয়া উপজেলার ভাটিপাড়া বালাশর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মজিদের ছেলে এবং কনস্টেবল (নং-১৪৩০) আনসারুল হক নেত্রকোনা জেলার মদন উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে।

অন্যদিকে পুলিশের সঙ্গে সন্ত্রাসীদের প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা বন্দুকযুদ্ধ চলাকালে সবুজবাগ এলাকার ঝরণা রাণী ভৌমিক (৪৫) নামে এক গৃহবধূ গুলিবিদ্ধ হয়ে নিজ বাসাতেই মৃত্যুবরণ করেন। নিহত গৃহবধূ ঝরণা রাণী ভৌমিক এলাকার গৌরাঙ্গ চন্দ্র ভৌমিকের স্ত্রী।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ