kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

শোলাকিয়ায় জঙ্গি হানার দুই বছর

যেভাবে শোলাকিয়ায় জঙ্গি হানা



 বিশেষ প্রতিনিধি | ৭ জুলাই ২০১৮, শনিবার, ১১:৩৩ | বিশেষ সংবাদ 


তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কিশোরগঞ্জের সরকারি গুরুদয়াল কলেজের অর্থনীতি বিষয়ের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র পরিচয়ে শহরের নীলগঞ্জ রোড এলাকার ‘পরশমনি’ নামের বাসা ভাড়া নিয়েছিল গাজীপুরের নোয়াগাঁও এলাকার পাতারটেকে পুলিশের অভিযানে নিহত জঙ্গি আকাশ। ২০১৬ সালের পহেলা জুলাই দুপুরে বাসাটি ভাড়া করার সময় সে তার নাম বলেছিল, জয়নাল আবেদীন।

এছাড়া তার বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার আসিমপুর বাজার এলাকায় এবং তার বাবা আসিমপুর বাজারে ধান-চালের স্টক ব্যবসা করে বলেও মিথ্যা পরিচয় দিয়েছিল সে। গুরুদয়াল কলেজের সে সহ চারজন ছাত্র থাকার কথা বলে মাসিক ছয় হাজার টাকা ভাড়া নির্ধারণ করে দুই হাজার টাকা জয়নাল অগ্রীমও দিয়েছিল।

পহেলা জুলাই ভাড়া ঠিক করার পরদিন ২রা জুলাই দুপুরে সে একা বাসায় ওঠে। পরে ৫ই জুলাই নব্য জেএমবি’র মাস্টার মাইন্ড তামিম চৌধুরী ও মেজর জাহিদ দুই জঙ্গি আবির রহমান ও শরীফুল ইসলাম ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে ডনকে সঙ্গে নিয়ে বাসাটিতে অবস্থান নেয়।

পরদিন ৬ই জুলাই বিকালে তামিম চৌধুরী, মেজর জাহিদ, আকাশ, আবির ও ডন প্রত্যেকে আলাদা আলাদা রেকি করে ৭ই জুলাই ঈদের দিন শোলাকিয়ার ইমামকে ঈদগাহের ভিআইপি গেটে হত্যার পরিকল্পনার করে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, ঈদের দিন সকালে জঙ্গি আবির রহমান ও শরীফুল ইসলাম ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে ডন হামলা পরিচালনার দায়িত্ব নিয়ে প্রথমে বাসা থেকে বের হয়। এই দু’জনের পিছু পিছু বেরিয়ে যায় তামিম চৌধুরী, মেজর জাহিদ ও আকাশ। জঙ্গি আবির রহমান ও শরীফুল ইসলাম ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে ডন ‘পরশমণি’ বাসা থেকে পায়ে হেঁটে উকিলপাড়া হয়ে আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন ধোপাবাড়ি মোড় দিয়ে সবুজবাগ পুলিশ চেকপোস্টের দিকে এগিয়ে যায়।

কিন্তু ঈদের দিন ভোর থেকেই সড়কটিতে পুলিশের নিরাপত্তা বলয় জঙ্গিদের সে পরিকল্পনাকে তছনছ করে দেয়। তল্লাসির মুখে পড়ে চাপাতি ও বোমা নিয়ে পুলিশের ওপর হামলে পড়ে জঙ্গি আবির ও শরীফুল। বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ও চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে তারা চেকপোস্টে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের আহত করে। আহতদের কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম তপু (৩০) মারা যান। ময়মনসিংহে মারা যান কনস্টেবল আনছারুল হক। এছাড়া পুলিশ ও জঙ্গিদের মধ্যে গুলি বিনিময়ের ঘটনায় ঘটনাস্থল সবুজবাগ এলাকার গৃহবধূ ঝরণা রাণী ভৌমিক নিজ বাসাতেই গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান।

বন্দুকযুদ্ধের সময় পুলিশের গুলিতে জঙ্গি আবির রহমান ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এছাড়া অপর জঙ্গি সাইফুল ইসলাম ওরফে মোসতাকিন ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে ডন গুলিবিদ্ধ অবস্থায় র‌্যাবের হাতে আটক হয়।

শোলাকিয়া চেকপোস্টে জঙ্গি হামলার ঘটনায় পুলিশের চেকপোস্টে দায়িত্ব পালন করা পাকুন্দিয়া থানার তৎকালীন পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ সামসুদ্দীন বাদী হয়ে সন্ত্রাস বিরোধী আইনে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আটক হওয়া জঙ্গি শফিউল এবং ঘটনাস্থল এলাকার একটি বাসা থেকে আটক স্থানীয় তরুণ তানিমের নামোল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামি করে সদর থানায় ১০ই জুলাই মামলা করেন। এই মামলার আসামিদের মধ্যে জঙ্গি শফিউল ২০১৬ সালের ৪ঠা আগস্ট রাত ১১টার দিকে নান্দাইল উপজেলার ঘোষপালা ও বারুইগ্রামের মধ্যবর্তী স্থানের ডাংরীবন্দ এলাকায় একটি পরিত্যক্ত ইটভাটার কাছে জঙ্গিদের সঙ্গে র‌্যাবের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়।

পরবর্তিতে শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার মামলার আসামি নিহত জঙ্গি শফিউলের গাইবান্ধার বাড়িওয়ালা আনোয়ার হোসেন (৪৫) কে শ্যোন এ্যারেস্ট দেখিয়ে ওই বছরের ২৪শে আগস্ট আদালত থেকে ৫দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। শোলাকিয়া জঙ্গি হামলার মামলার আসামি হিসেবে গ্রেপ্তার হয়ে স্থানীয় তরুণ তানিম ও জঙ্গি শফিউলের গাইবান্ধার বাড়িওয়ালা আনোয়ার হোসেন এই দু’জন আগে থেকে কারাগারে রয়েছে।

পরবর্তিতে জঙ্গি রাজীব গান্ধীকে এই মামলায় শ্যেন অ্যারেস্ট দেখিয়ে গত বছরের পহেলা জুন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণের পর কারাগারে পাঠানো হয়। গত বছরের ২৪ আগস্ট মামলার পূর্ববর্তী তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান আদালতে বড় মিজান ও সোহেল মাহফুজকে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন করেন। পরবর্তীতে ২৭শে সেপ্টেম্বর মো. মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজানকে এবং ১৩ই নভেম্বর আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজকে আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

এই মামলায় এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার হিসেবে জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী ওরফে সুভাস ওরফে জাহিদ, আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজ, মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান, নিহত জঙ্গি শফিউলের গাইবান্ধার বাড়িওয়ালা আনোয়ার হোসেন ও স্থানীয় তরুণ জাহিদুল হক তানিম কারাগারে রয়েছে।

সর্বশেষ গত ২৮শে জুন মামলাটির ধার্য্য তারিখে আব্দুস সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজ, মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান, আনোয়ার হোসেন ও জাহিদুল হক তানিম আদালতে হাজিরা দেয়। জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী ওরফে সুভাস ওরফে জাহিদ অন্যত্র রয়েছে। আগামী ১২ই আগস্ট মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেছেন আদালত।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ