কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


গুরুদয়াল কলেজ এলাকায় সিএনজি স্ট্যান্ড, ইভটিজিংয়ের শিকার ছাত্রীরা


 মোস্তফা কামাল | ২৮ জুলাই ২০১৮, শনিবার, ১২:৩৭ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জ শহরে জেলার প্রধান কলেজ সরকারি গুরুদয়াল কলেজে শিক্ষার্থীদের যাতায়াত এখন রীতিমত ঝক্কি হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে ছাত্রীদের জন্য এক ধরনের বিব্রতকর অবস্থা তৈরি হয়েছে। কলেজে যাওয়ার প্রধান সড়কে কলেজের সীমা ঘেঁষে তৈরি হয়েছে সিএনজিচালিত অটোরিক্সার অনির্ধারিত বা অবৈধ স্ট্যান্ড।

রাস্তার দুই পাশে দীর্ঘ দুই সারিতে অটোরিক্সা দাঁড়িয়ে থাকে। এর ফলে যে কেবল রাস্তা সঙ্কুচিত হচ্ছে তাই নয়, অটোরিক্সার সারির মাঝখান দিয়ে শিক্ষার্থীদের যাতায়াত বিপজ্জনক এবং ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমনকি ছাত্রীরা যাওয়া আসা করার সময় তাদের প্রতি আপত্তিকর মন্তব্য করা বা ইভটিজিং করার অভিযোগও শোনা যায়।

কিশোরগঞ্জে এখন সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সার সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। এগুলির জন্য কোন নির্ধারিত স্ট্যান্ড তৈরি করে দেয়া হয়নি। ফলে শহরের বেশ কিছু জায়গায় অবৈধ স্ট্যান্ড তৈরি হয়েছে। আর এক শ্রেণীর চক্র এসব স্ট্যান্ডের অটোরিক্সার কাছ থেকে চাঁদাবাজি করে চলেছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

সরকারি গুরুদয়াল কলেজ এলাকায়ও এরকমই অবৈধ স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। এখান থেকে ভৈরব ও বাজিতপুর রুটে সিএনজিচালিত অটোরিক্সাগুলো চলাচল করে। শহরের মাঝখানেও কয়েক জায়গায় এ ধরনের অবৈধ স্ট্যান্ড তৈরি হয়েছে।

কয়েকজন শিক্ষক অভিযোগ করেছেন, কলেজ গেটের পাশেই এভাবে দুই সারিতে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অটোরিক্সার সারি দাঁড়িয়ে থাকে। অথচ দেখার যেন কোন কর্তৃপক্ষ নেই। জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায়ও বিভিন্ন সময় বিষয়টি উত্থাপন করা হয়েছে। তার পরও কোন সুরাহা হচ্ছে না।

শিক্ষকরা জানিয়েছেন, সবচেয়ে সমস্যা হচ্ছে ছাত্রীদের। কারণ, দুই সারি অটোরিক্সার মাঝখান দিয়ে যখন ছাত্রীরা যাতায়াত করেন, তখন অটোচালক এবং যাত্রীদের কেউ কেউ নোংরা দৃষ্টিতে তাদের দিকে তাকিয়ে থাকে। আবার কেউ কেউ আপত্তিকর মন্তব্যও করে। এর ফলে ছাত্রীরা চরমভাবে বিব্রতবোধ করেন। কোন কোন শিক্ষক এ নিয়ে কলেজের ছাত্রদের সঙ্গে বড় ধরনের গোলযোগেরও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

এ ব্যাপারে কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ইমান আলীর সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, এই কলেজে ২০ হাজারের ওপরে শিক্ষার্থী রয়েছেন। ১৬টি বিষয়ে অনার্সসহ মাস্টার্স রয়েছে। ফলে এরকম একটি কলেজের পাশে এ ধরনের কোন সিএনজি স্ট্যান্ড থাকতে পারে না। এতে শিক্ষার পরিবেশ বিঘ্নিত হবে। ছাত্রছাত্রীরা যাওয়া আসার পথে যে কোন রকম দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া উচিত বলে তিনি মন্তব্য করেন।

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি আবু শামা মো. ইকবাল হায়াত জানান, প্রায়ই পুলিশ পাঠিয়ে অটোরিক্সাগুলো সরিয়ে দেয়া হয়। এরপর আবার এসে দাঁড়ায়। সমস্যাটি তিনি আবারও দেখবেন বলে মন্তব্য করেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ