kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

পাকুন্দিয়ায় সাড়া ফেলেছে কমিউনিটি বীজতলা


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ২৪ জানুয়ারি ২০১৮, বুধবার, ১২:৫৪ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় জনপ্রিয় হচ্ছে কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি। এ পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি করতে দিন দিন কৃষকদের আগ্রহ বেড়েই চলছে। যার ফলে সময় ও খরচ দুুটিই কম লাগছে কৃষকদের। সুস্থ্য চারা উৎপাদনের নিশ্চয়তা ও চারা কোল্ড ইনজুরির ঝুঁকি নেই বলে কৃষি বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরিই বর্তমানে আদর্শ পদ্ধতি।

জানা যায়, ধানের চারা মূল জমিতে রোপণের পূর্বে যেখানে চারা উৎপাদন করে রোপণ উপযোগী করা হয় তাকেই বীজতলা বলা হয়। কৃষক তার পুরো জমিতে চারা রোপণের জন্য অল্প জায়গায় একসাথে ছিটিয়ে বীজ বপন করে বীজতলা তৈরি করেন। সনাতন এই পদ্ধতিতেই কৃষক বীজতলা তৈরি করে থাকেন। এই পদ্ধতির বীজতলায় বেশি পরিমাণে বীজ ব্যবহার করা হয় যার ফলে চারাগুলো লিকলিকে হয়ে সহজেই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়। বর্তমানে কৃষি বিশেষজ্ঞরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের এনএটিপি-২ প্রকল্পের আওতায় মাঠ পর্যায়ে কমিউনিটি বীজতলা স্থাপনে সফলতা পেয়েছেন।

সরজমিনে পাকুন্দিয়া উপজেলার আংগিয়াদী ব্লকের আদিত্যপাশা গ্রামে কৃষক রুক্কুন উদ্দিনের সাথে কমিউনিটি বীজতলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এনএটিপি-২ প্রকল্পের আওতায় আদিত্যপাশা বাগানবাড়ি সিআইজিতে আদর্শ বীজতলা/কমিউনিটি বীজতলা তৈরির জন্য প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে উপকরণ পেয়েছি। প্রশিক্ষণে জানতে পারি, বীজতলার চারপাশে ছয় ইঞ্চি গভীরতার ৫০ সেন্টিমিটার চওড়া করে নালা রেখে (১.০০-১.২৫) মিটার প্রস্থ ও ১০মিটার লম্বা বেড তৈরি করে দুই বেডের মাঝে ৩০ সেন্টিমিটার নালা রেখে প্রতি বর্গ মিটার বেডে ৮০ গ্রাম বীজ বপন করার পরামর্শ দেওয়া হয়। সে মোতাবেক আমরা সিআইজির সদস্যরা মিলে কমিউনিটি বীজতলা তৈরি করি।

এর সুবিধা সম্পর্কে জানতে চাইলে ওই এলাকার কৃষক রফিক, আতিকুর রহমান ও দাদন মিয়া বলেন, কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজ বপন করলে ৫০-৬০ ভাগ বীজের অপচয় রোধ হয়। চারা সতেজ ও বলবান হয় এবং এই বীজতলা থেকে কম বয়সের চারা মূল জমিতে রোপণ করলে কুশি বেশি হয় ও উৎপাদন বেড়ে যায়। তাছাড়া এভাবে বীজতলা তৈরি করলে বীজতলার পরিচর্যা করা খুবই সহজ হয়। আমাদের ৩০ জন কৃষক দ্বারা গঠিত বাগান বাড়ি সিআইজির মাসিক নিয়মিত সভায় এই ভাবে বীজতলা তৈরি করার বিষয়ে পরামর্শ দেন উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ ভাই। যার ফলে আমরা সিআইজিভুক্ত কৃষকরা কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরির বিষয়টি অনুসরণ করে ননসিআইজি ভুক্ত কৃষকরাও এই পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি করছেন।

এ ব্যাপারে আংগিয়াদী ব্লকের উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ বলেন, দিনদিন এ পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। বিভাগীয় নির্দেশনা মোতাবেক কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি করার জন্য কৃষকদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। যে কারণে এ মৌসুমে শতকরা ৮০ ভাগ কৃষকই কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি করেছেন। এই পদ্ধতিতে বীজতলায় চারা উপাৎদন সুস্থ্য এবং কোল্ড ইনজুরির ঝুঁকি কম হয়।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, এই উপজেলার জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্পের আওতায় পৌরসভাসহ ৯টি ইউনিয়নে ২০টি কমিউনিটি বীজতলা স্থাপন করা হয়েছে। অন্যান্য কৃষকদেরকে উদ্ধুদ্বকরণের মাধ্যমে কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরির পরামর্শ দেয়া  হচ্ছে। এতে প্রতি বিঘায় সাড়ে ছয় কেজি বীজ সাশ্রয় হয়। যা থেকে সরকারের বিপুল পরিমাণ অর্থ সাশ্রয় হবে। এছাড়াও এই পদ্ধতিতে বীজতলা করার সুবিধা হলো রাতের বেলা বেডে পানি দিয়ে দিনের বেলায় তা নিষ্কাশন করলে অধিক শীতের কারণে কোল্ড ইনজুরিতে ধানের চারা মরে যাওয়ার আশংকা কম থাকে। তাই এই উপজেলায় কমিউনিটি বীজতলা তৈরিতে কৃষকদের আগ্রহ দিন দিন বেড়েই চলছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর










সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ