kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

কিশোরগঞ্জে নতুন উপসর্গ সকালে বাণিজ্যকেন্দ্রে চুরি



 মোস্তফা কামাল | ৮ আগস্ট ২০১৮, বুধবার, ১২:৫১ | অপরাধ 


জনজীবনে চুরির মত উৎপীড়ন সবসময়ই ছিল, এটা আদিকালের সমস্যা। গভীর রাতে কাঁচা ঘরে সিঁধ কেটে চুরি, বেড়া কেটে চুরি, ভেন্টিলেটর দিয়ে পাতলা গড়নের কাউকে বা শিশুদের ঢুকিয়ে দরজা খুলে চুরি, গভীর রাতে বিশেষ কৌশলে বাসার গেট বা জানালার গ্রীল কেটে চুরি, বাসার সবাইকে অজ্ঞান করে চুরি, কর্মজীবী মানুষদের বাসায় দিনের কোন এক নির্জন সময়ে তালা খুলে চুরি ইত্যাদি নানা কায়দার চুরির ঘটনা অহরহই দেখা যেত। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে চুরির নতুন সময় এবং কৌশল দেখা যাচ্ছে।

কিশোরগঞ্জ শহরের বাণিজ্যিক কেন্দ্র বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লোকেরা অনেক রাত পর্যন্ত ব্যবসা করে বাসায় ফেরেন। আর সকাল ১০টার আগে তারা প্রতিষ্ঠান খোলেন না। ফলে চোরেরা এখন সকাল বেলাটা চুরির জন্য নিরাপদ বলে বেছে নিয়েছে।

সকাল ৭টার পর সংঘবদ্ধ চোরের দল বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের তালা খুলে বা আধুনিক কাটার দিয়ে তালা কেটে দোকানে ঢুকে নগদ টাকা এবং মূল্যবান মালামাল ব্যাগে ভরে নিয়ে নিরাপদে পালিয়ে যাচ্ছে।

এমন সময়ে তারা দোকানে হানা দিচ্ছে, পথচারীরা দেখলে মনে করবে, সকাল হয়েছে তো, কাজেই মালিক নিজেই দোকান খুলেছেন। আর ঘটনার সময় আবার দোকানের বাইরে বা রাস্তায় দুর্বৃত্ত চক্রের কয়েকজন সহযোগী পাহাড়ায় থাকে। তারা আয়েশি ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে সবদিকে এমনভাবে নজর রাখে, দেখলে মনে হবে তারাও পথচারী। হয়ত যানবাহনের জন্য দাঁড়িয়ে আছে।

কিছুদিন আগে শহরের প্রধান বাণিজ্যকেন্দ্র বড়বাজারে একই দিন সকাল বেলায় অন্তত ১০টি দোকানে এভাবেই দুঃসাহসী চুরি সংঘটিত হয়েছে। তবে একটি দোকানের গোপন সিসি ক্যামেরায় চুরিকাণ্ডের ঘটনা ধরা পড়ে। ফলে পুলিশ ক্যামেরার ফুটেজ দেখে চোরকে ধরতে সক্ষম হয়।

কয়েকদিন আগে শহরের পুরানথানা এলাকায় একাধিক মোবাইল ফোনের দোকানেও একই কায়দায় সকাল বেলায় চুরির ঘটনা ঘটেছে। সেখান থেকে দুটি ব্যাগ ভর্তি করে নগদ টাকা ও দামি মোবইল সেটসহ কয়েক লাখ টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে। তবে সেই মার্কেটের সিসি ক্যামেরায় চুরি করার কায়দাকৌশলের দৃশ্য ধরা পড়েছে।

ফুটেজে দেখা গেছে, মার্কেটের সামনে রাস্তার ফুটপাতে চার জায়গায় চারজন সহযোগী দাঁড়িয়ে এদিকওদিক নজরদারি করছে। কখনো মোবাইলে কথা বলতে দেখা যাচ্ছে। এক সময় রাস্তা দিয়ে একটি পুলিশ ভ্যান চলে যেতেও দেখা গেছে। কিন্তু কারো বোঝার উপায় নেই বা সন্দেহ করারও উপায় নেই যে, মার্কেটের ভেতরে সকাল বেলায় এতবড় একটি চুরির ঘটনা ঘটে চলেছে।

এক পর্যায়ে দেখা গেল, দুই যুবক মার্কেটের ভেতর থেকে দুটি বড় কাপড়ের বা চটের ব্যাগ নিয়ে বেড়িয়ে আসলো। বোঝাই যাচ্ছে, ব্যাগ দুটি মালামালে পরিপূর্ণ এবং বেশ ভারী। এরপর বাইরে পাহাড়ায় থাকা চার দুর্বৃত্তসহ সবাই রিক্সা এবং অটোরিক্সা থামিয়ে পশ্চিম দিকে চলে গেল।

পুলিশ অবশ্য এ ঘটনায় ক্যামেরার ফুটেজ দেখে এদিনই দুজনকে আটক করেছিল।

এ ধরনের চুরির ঘটনায় ব্যবসায়ীদের মধ্যে এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করছে। রাতের বেলায় বিভিন্ন মার্কেটে পাহাড়ার ব্যবস্থা থাকে। পুলিশেরও টহল থাকে। ভোরবেলায় পাহাড়াদার এবং পুলিশ সবাই চলে যায়। আর এই সময়টাকেই এখন চোর চক্র বেছে নিয়েছে।

যদিও এখন অনেক বাণিজ্য কেন্দ্র এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সিসি ক্যামেরা লাগানো হচ্ছে। তার পরও  সব জায়গায় তো আর সিসি ক্যামেরা নেই। আর সকাল বেলায় ব্যবসায়ীরা ১০টার আগে প্রতিষ্ঠানে আসেন না। আর এই সময়টাকেই চোর চক্র এখন নিরাপদ মনে করছে। ফলে চোরদের নতুন নতুন কৌশল উদ্ভাবন ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষদেরও আতঙ্কিত করে তুলছে।

কিশোরগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আসাদুজ্জামান খান মনির জানান, গত ৬ মাসে এরকম অন্তত ২০টি চুরির ঘটনা ঘটেছে। এতে ব্যবসায়ীদের মধ্যে এক ধরনের নিরাপত্তাহীনতা এবং আতঙ্ক বিরাজ করছে। ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ ও সদর থানার ওসি আবু শামা মো. ইকবাল হায়াতের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করে তাদের উদ্বেগের কথা জানিয়ে নিরাপত্তা দাবি করেছেন।

পুলিশ কর্মকর্তাগণ ব্যবসায়ী নেতাদের প্রহরির সংখ্যা এবং সিসি ক্যামেরা বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন। আর পুলিশ বিভাগের পক্ষ থেকেও তৎপরতা এবং সহযোগিতা বৃদ্ধির আশ্বাস দেয়া হয়েছে বলে ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আসাদুজ্জামান খান মনির জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ