কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার দিন সকালেই কিশোরগঞ্জে প্রতিবাদ


 মোস্তফা কামাল | ১৫ আগস্ট ২০১৮, বুধবার, ১২:০৬ | এক্সক্লুসিভ 


পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট মিছিলকারীদের কয়েকজন।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট গভীর রাতে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার খবর পেয়ে সকালেই কিশোরগঞ্জ শহরে কতিপয় অকুতোভয় তরুণ ঝটিকা মিছিল বের করেন। ‘মুজিব হত্যার পরিণাম বাংলা হবে ভিয়েতনাম, বঙ্গবন্ধুর রক্ত বৃথা যেতে দেব না’ ইত্যাদি শ্লোগান দিয়ে তারা শহর প্রদক্ষিণ করেন। শেষে পুলিশ গিয়ে তাদের ধাওয়া দিয়ে গ্রেফতারের চেষ্টা করলে প্রতিবাদী তরুণরা কোনরকমে পুলিশের নজর এড়িয়ে শহর ছেড়ে বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে দীর্ঘদিন আত্মগোপনে সময় কাটান।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট প্রত্যুষে রেডিওতে বঙ্গবন্ধু হত্যার খবর শুনেই তৎকালীন ছাত্র ইউনিয়নের সংগঠক জেলা সিপিবির প্রয়াত সভাপতি অ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম, বর্তমান জেলা গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, অ্যাডভোকেট গোলাম হায়দার চৌধুরী, জেলা সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট অশোক সরকার, হাবিবুর রহমান মুক্তু, হালিম দাদ খান, জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাংগঠনিকি সম্পাদক পীযুষ কান্তি সরকার, সিপিবি নেতা ডা. এনামুল হক ইদ্রিছ, রফিকউদ্দিন পনির, অলক ভৌমিক, গোপাল দাস, আলী আজগর স্বপন, প্রয়াত সেকান্দর আলী, আকবর হোসেন খান, নূরুল হোসেন সবুজ, অরুণ কুমার রাউত, আব্দুল আহাদ, নির্মল চক্রবর্তী, সাইদুর রহমান মানিক ও সৈয়দ লিয়াকত আলী বুলবুলসহ কিছু তরুণ সকাল বেলায় মিলিত হন স্টেশন রোডের জেলা ছাত্র ইউনিয়ন কার্যালয়ে। এদের মধ্যে কেউ কেউ মুক্তিযোদ্ধা।

সকাল পৌনে ৯টার দিকে এসব দুঃসাহসী তরুণ ‘মুজিব হত্যার পরিণাম বাংলা হবে ভিয়েতনাম, বঙ্গবন্ধুর রক্ত বৃথা যেতে দেব না, খুনি ডালিমের ঘোষণা মানি না মানি না’ ইত্যাদি নানারকম প্রতিবাদী শ্লোগান দিয়ে শহরে ঝটিকা কায়দায় বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলশেষে তারা পুনরায় ছাত্র ইউনিয়ন কার্যালয়ের সামনে এসে পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে পরামর্শ করার উদ্যোগ নেন। এমন সময় পুলিশের গাড়ি এসে তাদের ধরার জন্য ধাওয়া করে। তরুণরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যার যার মত করে শহর ত্যাগ করেন এবং দীর্ঘদিন তারা বিভিন্ন জায়গায় আত্মগোপনে সময় কাটান।

এবার বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত হচ্ছে। কিন্তু সেদিনের প্রতিবাদকারীরা আজকে গর্বের সঙ্গে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেদিনের প্রতিবাদের স্মৃতিচারণ করলেও একটা দীর্ঘ সময় গেছে, যখন তারা এই ঘটনার কথা সহজে বলতে পারতেন না।

প্রতিবাদকারীদের অনেকেই আজ জীবিত নেই। যারা জীবিত আছেন, তাদের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বললে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচারকাজ সম্পন্ন হওয়া এবং কয়েকজনের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। তবে খুনিদের যারা ফাঁসির রায় মাথায় নিয়ে এখনো বিদেশে পালিয়ে আছেন, তাদেরকেও অবিলম্বে দেশে ফিরিয়ে এসে বিচারের রায় কার্যকর করার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানিযেছেন। সেই সঙ্গে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার নেপথ্যে আরো জড়িত ছিলেন, তাদেরও বিচারের আওতায় আনার জন্য দাবি জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার খবরে কিশোরগঞ্জের মত বরগুনায়ও সেদিন প্রতিবাদ হয়েছিল। কিশোরগঞ্জ ও বরগুনার প্রতিবাদকারীদেরকে গতবছর ১৪ অক্টোবর ঢাকার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছিল। বিশ্ব শান্তি পরিষদ কর্তৃক বঙ্গবন্ধুকে জুলিও ক্যুরি শান্তি পদক প্রদানের প্রস্তাবনার ৪৫তম বার্ষিকী উপলক্ষে ‘জুলিও ক্যুরি বঙ্গবন্ধু শান্তি সংসদ’ আয়োজিত এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিবাদকারী প্রত্যেককে একটি করে উত্তরীয় পরিয়ে দেন এবং ক্রেস্ট প্রদান করেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ