kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলেও অনিশ্চিত সঞ্জয়ের লেখাপড়া


 তাফসিলুল আজিজ | ৮ জানুয়ারি ২০১৮, সোমবার, ৩:০৭ | শিক্ষা  


অদম্য মেধাবী শারীরিক প্রতিবন্ধী সঞ্জয় চন্দ্র বর্মন (১৯)। পেয়েছেন তিন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ । ভর্তিও হয়েছেন একটিতে। কিন্তু আর্থিক সামর্থ্য না থাকায় পড়ালেখা নিয়ে সংশয়ে আছে সঞ্জয়সহ তার পরিবার।

সঞ্জয় কিশোরগঞ্জ জেলার সীমান্তবর্তী ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার সীমান্তবর্তী মোহনপুর গ্রামের মৃত সন্তোষ চন্দ্র বর্মনের ছেলে। তার ছয় বছর বয়সে প্রথম শ্রেণিতে পড়ার সময় দুরারোগ্য ক্যান্সার ব্যাধিতে মারা যায় বাবা।

জন্ম থেকেই সঞ্জয়ের ডান হাত অচল। একদমই  শক্তি পায় না সে হাতে। বাম চোখের দৃষ্টিও অনেকটা কম। সেজন্য বাম হাত দিয়েই সকল  কাজ করতে হয় তাকে। সঞ্জয়ের বাবা ছিলেন একজন  জেলে। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিটিকে হারিয়ে ছেলে-মেয়েদের নিয়ে দারিদ্রের সাথে সংগ্রাম করে আসছে সঞ্জয়ের মা জয়ন্তি রানী বর্মন। দুই ভাই ও তিন বোনের মধ্যে সঞ্জয় তৃতীয়। বড় দুই বোন বিবাহিত।

বাবা না থাকায় সঞ্জয়ের নিজের পড়ালেখাসহ ছোট দুই ভাই-বোনের পড়ার দায়িত্বও তার ওপর। সঞ্জয়দের সম্বল শুধু বাবার রেখে যাওয়া এক ফসলি একখন্ড জমি আর  বাড়ি। এতো বাঁধা বিপত্তির মাঝেও সঞ্জয় তার মনোবল হারায়নি। মাসে ৬শ টাকা প্রতিবন্ধী ভাতা আর  বাবার শেখানো জাল টেনে মাছ ধরে কোনো রকমে চলছে তিনজনের পড়ালেখার খরসহ তাদের সংসার।

সঞ্জয় ২০১৫ সালে কিশোরগঞ্জ সদরের হাজী মোমতাজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় বাণিজ্য শাখা থেকে ৪. ৫ জিপিএ পেয়ে এসএসসি পাস করে। এবং ময়মনসিংহ আনন্দমোহন সরকারি কলেজ থেকে এ বছর বাণিজ্য শাখায় ৪.৭৫ জিপিএ পেয়ে পাস করে। শত বাধা বিপত্তি সত্বেও তার উচ্চ শিক্ষার আগ্রহ কমেনি। জগন্নাথ, রাজশাহি ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে তিনটিতেই ভর্তির সুযোগ পান তিনি।

সঞ্জয় জানায়, প্রতিবন্ধী হলেও প্রতিবন্ধীর কোটা ছাড়াই তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি পরীক্ষায় উত্তির্ণ হয়েছে। ভর্তির শেষ পর্যায়ে এসে নিজের জমানো প্রতিবন্ধী ভাতার কিছু টাকা ও ধার কর্জ করে কোনো রকমে ১০ হাজার ৪০০টাকা জোগার করে গত ৩ ডিসেম্বর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে হিসাব বিজ্ঞান বিষয়ে ভর্তি হয়। কিন্তু এখন তাঁর চিন্তার অন্ত নেই, কীভাবে তাঁর পড়ালেখার খরচ চলবে। বাড়ির পাশে বিলে বাবার রেখে যাওয়া ৬ কাটা জমিতে বছরে একবার ফসলের টাকায় সংসার চলে না। এরমধ্যে ছোট দুই-ভাই বোন পড়ালেখা করছে। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার খরচ চালাতে যেয়ে বাড়ি থেকে কোনো রকম সহযোগিতার প্রশ্নই উঠেনা। কিন্তু তাঁর ইচ্ছা উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে বিসিএস দিয়ে  প্রশাসনের কর্মকর্তা হয়ে মানুষের সেবা করা। তাই সরকার যেন প্রতিবন্ধী হিসেবে তার প্রতি সুনজর দেয় সে কামনা করেন তিনি। 

সঞ্জয়ের মা জয়ন্তি রানী বর্মন জানান, পাঁচটা ছেলে-মেয়ে রেখে ১৩ বছর আগে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে সঞ্জয়ের বাবা মারা যান। সেই থেকে ছেলে-মেয়ে নিয়ে খেয়ে না খেয়ে অনেক কষ্টে সংসার চলছে। এদের মধ্যে সঞ্জয় শারীরিক প্রতিবন্ধী। এরপরও তাঁর পড়ালেখার প্রতি অনেক আগ্রহ। নিজে জাল দিয়ে মাছ ধরে উপার্জন করে লেখাপড়ার খরচসহ সংসারে সহায়তা করতো। এখন সে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেয়েছে। তাঁরা অনেক গরিব। কীভাবে লেখাপড়ার খরচ জোগাবে এ নিয়ে খুব চিন্তায় আছেন। জয়ন্তি বলেন, ছেলেটার মুখের দিকে থাকালে খুব কষ্ট হয়। আজ ওর বাপ বেঁচে থাকলে ছেলেটাকে নিয়ে তাকে এতো চিন্তা করতে হতো না।  

কিশোরগঞ্জ সদরের হাজী মোমতাজ উদ্দিন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অসিত কুমার পাল বলেন, ছোটবেলা থেকে সঞ্জয় খুব মেধাবী ছেলে। তার একটা হাত সম্পূর্ণ অচল। এমনকি বাম চোখ ও একটি পায়ে সমস্যা নিয়ে শারীরিক সকল প্রতিবন্ধকতাকে উপেক্ষা করে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের লক্ষে তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পায়। কিন্তু দুঃখজনক হলো অদম্য এই মেধাবী দরিদ্র ছেলেটিকে দেখার কেউ নেই। তাই তিনি সমাজের বিত্তবান ও সরকারকে ছেলেটির পড়াশোনায় সহযোগিতা করার আহবান জানান।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর









সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ