কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


খেলাধুলা সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড জোরদারের তাগিদ জেলা প্রশাসকের


 স্টাফ রিপোর্টার | ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার, ৬:৫০ | বিশেষ সংবাদ 


খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড জোরদারের আহবানের মধ্যে দিয়ে কিশোরগঞ্জে জেলা পর্যায়ে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম সম্পর্কিত ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৫ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত সভায় জেলার ১০৮টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউপি সচিবগণ অংশ নেন।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে জেলা শিল্পকলা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তৃতা করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক জহিরুল ইসলাম, ডিস্ট্রিক্ট ফেসিলিটেটর মো. আক্তারুজ্জামান, সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ, জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল ও কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব পালন করা অত্যন্ত জটিল ও কঠিন। এত এত মানুষের মধ্যে সবাইকে খুশি করে দায়িত্ব পালন করা যায় না। এর মধ্যে দিয়েই জনগণের অর্পিত দায়িত্ব ও সরকারি নানা উন্নয়ন কর্মসূচী সুচারুরূপে বাস্তবায়ন করে যেতে হবে।

জেলা প্রশাসক বলেন, চেয়ারম্যানরা একটি এলাকার অভিভাবক। তাদেরকে যার যার এলাকায় বাল্যবিয়ে ও মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর মনোভাব নিয়ে কাজ করতে হবে। এলাকায় সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড ও খেলাধুলা চালিয়ে যেতে হবে। এর মাধ্যমেও মাদকের গ্রাস থেকে তরুণ সমাজকে রক্ষা করা সম্ভব হবে।

জেলা প্রশাসক যোগ করেন, সরকারের ১০টি উদ্যোগ সম্পর্কে সম্যক ধারণা রাখতে হবে এবং এগুলি বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা দিয়ে কাজ করতে হবে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জন করতে হবে। এর জন্য শিশুশ্রম রোধেও চেয়ারম্যানদের ভূমিকা নিতে হবে। এলাকার সামগ্রিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে নেয়ার জন্য জেলা প্রশাসক চেয়ারম্যানদের সঙ্গে উপজেলা প্রশাসনের সুসম্পর্কের ওপরও বিশেষ জোর দেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক জহিরুল ইসলাম বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানদের সক্ষমতা প্রমাণে ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট প্রণয়ন ও সঠিক বাস্তবায়ন করতে হবে। কোন বরাদ্দ আসলে তা সক্ষমতার সঙ্গে বাস্তবায়ন করতে হবে। প্রতিটি ক্ষেত্রে সরকারের আইন ও বিধান অনুসরণ করে কাজ করতে হবে। এলজিএসপির টাকা যথাযথ নিয়মে খরচ করার বিষয়েও সভায় নির্দেশনা দেয়া হয়।

কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান তাদের বক্তৃতায় বলেন, এখন অনেক মামলা আদালত থেকে ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতে পাঠানো হচ্ছে স্থানীয়ভাবে ফয়সালা করার জন্য। কিন্তু একজন ইউপি সচিবের পক্ষে এসব মামলার কাজকর্ম সম্পন্ন করে পরিষদের কাজ সামাল দেয়া অনেক কঠিন হয়ে যায়। এ ব্যাপারে বিকল্প ভাবনা বা পন্থা উদ্ভাবনের জন্য তারা দাবি জানিয়েছেন। বাল্যবিয়েকে সহায়তা করার জন্য যারা এফিডেভিট করে বর-কনের বয়স বাড়িয়ে দেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও চেয়ারম্যানগণ দাবি জানিয়েছেন। তারা একজন চেয়াম্যানের ১০ হাজার টাকা মাসিক সম্মানী ভাতা খুবই অপ্রতুল মন্তব্য করে ভাতা বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর