kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

গুরুই গণহত্যায় শহীদ হন ৩০ নিরীহ গ্রামবাসী



 খাইরুল মোমেন স্বপন, স্টাফ রিপোর্টার, নিকলী | ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার, ৯:৪৪ | ইতিহাস-ঐতিহ্য 


১৯৭১ সালের  ৬ই সেপ্টেম্বর দিনটি নিকলী উপজেলার গুরুই গ্রামবাসীর জন্য এক শোকাবহ কালোদিন। এই দিনে পাকবাহিনী ও তাদের দোসরদের হাতে গুরুই গ্রামের কমপক্ষে ৩০ জন নিরীহ গ্রামবাসী নৃশংস হত্যাযজ্ঞের শিকার হয়ে শহীদ হন।

জানা যায়, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ভারতীয় প্রশিক্ষণ ছাড়াই নিকলী উপজেলার গুরুই গ্রামের কতিপয় যুবকদের নিয়ে আব্দুল মোতালেব বসু গড়ে তোলেন বসু বাহিনী। গুটি কয়েক দেশি বন্দুক আর সাহস ভরসা করে মুক্তিকামি এই বাহিনীটি মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তায় স্থানীয়ভাবে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র করে প্রশিক্ষিত করেন শতাধিক যোদ্ধাকে। ছোট ছোট যুদ্ধ জয়ে সংগৃহীত গোলাবারুদ নিয়ে একে একে দুঃসাহসিক অভিযান পরিচালনা করেন। নিজ এলাকাসহ আশেপাশে বিস্তীর্ণ এলাকা শত্রুমুক্ত রাখেন তারা।

তৎকালীন নিকলী সদরে অবস্থানরত পাকবাহিনী বসু বাহিনীর কারণে সর্বদাই সন্ত্রস্ত থাকতো। এর জেরে বসু বাহিনীকে প্রতিহত করতে ৬ই সেপ্টেম্বর পাক মেজর দুররাণি, আসলাম ও ফিরোজের নেতৃত্বে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় অতর্কিত গুরুই গ্রামের পূর্ব পাড়ায় আক্রমণ চালায়। তাদের আক্রমণে কমপক্ষে ৩০ জন নিরীহ গ্রামবাসি শহীদ হন।

আক্রমণ প্রতিহত করতে গেরিলা কৌশল অবলম্বন করে বসু বাহিনী। কয়েক জন ব্যস্ত রাখেন আক্রমণকারী পাক হায়েনাদের। বসু বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড শামসুল হক বিভিন্ন অবস্থান থেকে গেরিলা কায়দায় একাই ৫ পাক সদস্য ও ১০ রাজাকারকে নির্ভেদ্য গুলিতে নিধন করেন। দুই রাজাকারকে অস্ত্রসহ জীবিত আটক করেন।

শামছুল হক জানান, দিনটি ইতিহাসের পাতায় অমর হয়ে রয়েছে। কিন্তু সরকারি বেসরকারি কোন উদ্যোগে দিনটি উদযাপিত না হওয়ায় ইতিহাসের পাতা থেকে আজ মুছে যেতে বসেছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর










সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ