kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

‘নরসুন্দার সংস্কার ও উন্নয়ন কাজে অনিয়ম হলে ছাড় দেয়া হবে না’



 বিশেষ প্রতিনিধি | ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শুক্রবার, ১২:৪৫ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে নদী রক্ষা বিষয়ক সেমিনারে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ও সচিব ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী নদী রক্ষার জন্য ভাল আইন করেছেন। ২০০০ সনের জলাধার আইন অনুসারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কেউ নিজের পুকুরও ভরাট করতে পারবেন না।

তিনি বলেন, শত কোটি টাকা ব্যয়ে কিশোরগঞ্জের নরসুন্দা নদীর সংস্কার ও উন্নয়ন কাজে কেউ অনিয়ম করে থাকলে কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। প্রয়োজনে দুদকের সহায়তা নেয়া হবে। নদ-নদী আমাদের প্রাণ, আমাদের অস্তিত্বের অংশ। নদ-নদী না থাকলে আামরাও থাকবো না, মানব জাতি থাকবে না। যেখানেই নদী দখল হবে, সেখানেই উচ্ছেদ করা হবে। নদী রক্ষায় স্থানীয় কেউ বাধা দিলে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ে জানানো হবে। প্রধানমন্ত্রী নিজও এ ব্যাপারে খুবই আন্তরিক।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কালেক্টরেট সম্মেলন কক্ষে নদী রক্ষা কমিশন ও জেলা প্রশাসন আয়োজিত ‘কিশোরগঞ্জ জেলাধীন নদী-নদীর দখল, দূষণ ও ভরাট প্রতিরোধে করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ও সচিব ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার এসব কথা বলেন।

সেমিনারে পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জের নদ-নদীর ওপর সচিত্র প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দুলাল চন্দ্র সূত্রধর ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম।

এরপর জাতীয় নদী কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার এবং বিশেষ অতিথি জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য মো. আলাউদ্দিন ছাড়াও বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তরফদার মো. আক্তার জামীল, ইটনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান খান, তাড়াইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার, বাজিতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারুন আহাম্মেদ, ভৈরব পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম, জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু, জেলা ক্যাব সভাপতি আলম সারোয়ার টিটু, পরিবেশ কর্মি বিলকিস বেগম প্রমুখ।

প্রধান অতিথি জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ও সচিব ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার তার বক্তব্যে আরো বলেন, অনেকেই সিএস রেকর্ড বাদ দিয়ে আওআর, আরএস রেকর্ড দেখিয়ে নদীর জায়গা দখল করে নেন। নিম্ন আদালতও এসব রেকর্ডের ভিত্তিতে রায় দিয়ে দেন। কিন্তু হাইকোর্ট ২০০৯ সালে ৩০৫০৯ নম্বর রীট পিটিশনের আদেশে অত্যন্ত পরিষ্কারভাবে বলেছেন, ‘সিএস ডেকর্ডের সীমানা হইবে নদীর সীমানা’। কাজেই এখানে নদীর সীমানা চিহ্নিত করা বা অবৈধ দখলদার চিহ্নিত করা কোন জটিল বিষয় নয়। কেউ অবৈধভাবে নদী দখল করলে এবং তাকে কোন কর্মকর্তা সহায়তা করলে, উচ্ছেদের উদ্যোগের পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল মামলাও করা হবে বলে নদী কমিশন চেয়ারম্যান হুশিয়ারী উচ্চারণ করেছেন। তিনি নদী দখল বন্ধের পাশাপাশি নদীর ভরাট এবং দূষণ রোধেও কার্যকর উদ্যোগ নেয়ার জন্য প্রশাসনসহ জনগণের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

তিনি পরিবেশ অধিদপ্তরের উদ্দেশ্যে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে বলেছেন, ‘৩-আর : রিডিউস, রিসাইকেল, রি-ইউজ’ মাথায় রেখে কাজ করতে হবে, যেন বর্জ্যকে ক্ষতিকর মনে না করে একে মানুষের কাজে লাগানো যায়। তা না হলে রাসায়নিক হোক আর গৃহস্থালি হোক, এসব বর্জ্য পরিবেশ দূষিত করতে থাকবে।

স্থানীয় আলোচকগণ হোসেনপুরের কাউনা এলকায় পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে উৎপত্তি হয়ে কিশোরগঞ্জ শহরের মাঝখান দিয়ে বয়ে যাওয়া নরসুন্দা নদীর শত কোটি টাকার সংস্কার ও উন্নয়ন কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ তুলে ধরেন। তারা বলেন, নদীকে কেন্দ্র করে ওয়াকওয়েসহ যেসব নির্মাণকাজ করা হয়েছে, এর অনেকগুলোই এখন ভেঙে যাচ্ছে। প্রশস্ত নদীকে অনেক জায়গায় অপ্রশস্ত খালে পরিণত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে আর্থিক দুর্নীতিসহ কাজের মানও খারাপ হয়েছে। তিনজন সচিব এসে এ ব্যাপারে গণশুনানিও করে গেছেন।

এর জবাবে নদী কমিশন চেয়ারম্যান বলেন, যারাই দুর্নীতি করে থাকুক না কেন, কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। প্রয়োজনে দুদকের সহায়তা নেয়া হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ