কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জনপ্রিয় হচ্ছে ভাসমান বেডে ধানের বীজতলা তৈরি


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮, সোমবার, ১:১৯ | কৃষি 


বন্যা ও জলাবদ্ধ এলাকায় জলবায়ু পরিবর্তনের অভিযোজন কৌশল হিসেবে ভাসমান পদ্ধতিতে ফসল চাষ বিশেষ ক্ষেত্রে আমন ধানের চারা উৎপাদন কৃষি সমৃদ্ধির নতুন দুয়ার খুলে দিয়েছে। আস্তে আস্তে তা জলাবদ্ধ এলাকায় সম্প্রসারিত হচ্ছে।

এর ধারাবাহিকতায় কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার আংগিয়াদী গ্রামের হুলহুলিয়া খালে কৃষক নুরুল ইসলাম, হাদিউল ইসলাম, আলাউদ্দিন ও আতাবুর রহমানসহ বেশ কয়েকজন কৃষক ভাসমান বেড পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি করেছেন। ভাসমান বেড পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি সুবিধাজনক হওয়ায় দিন দিনই এই পদ্ধতি জনপ্রিয় হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে ভাসমান বেড সম্পর্কে কৃষকদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, বীজতলা তৈরির জায়গা স্বল্পতার কারণে আবার কেউ সময়মত বীজতলা তৈরি করতে না পারায় দ্রুত চারা উৎপাদনের লক্ষ্যে ও বীজতলা তৈরির খরচ কমানোর জন্যই কৃষি বিভাগের পরামর্শে এই ভাসমান পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরী করেছেন।

ভাসমান বেড তৈরি সর্ম্পকে তারা বলেন, বেড তৈরির প্রধান উপকরণ হলো কচুরিপানা। প্রথমে ১০মিঃ দৈর্ঘ্যের ও ১.২৫ মিঃ প্রস্থের বাঁশের ফ্রেম তৈরি করে তা পানির উপর রেখে তাতে চারপাশে কচুরি পানা এনে স্তুপ আকারে সাজিয়ে বেড তৈরি করা হয়। তারপর বেডের উপর ২-৩ সেন্টিমিটার কাদা মাটির প্রলেপ দিয়ে ফসল আবাদের উপযুক্ত করা হয়।

এর পর প্রয়োজন অনুসারে সবজি, মসলা জাতীয় ফসল, বীজতলা এমনকি বেডের উপর পাকচং ঘাস আবাদ করা যায়। যা গবাদী পশুর খাবার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। আমন ধানের বীজতলা তৈরির ক্ষেত্রে প্রতি বর্গমিটারে ৮০ থেকে ১০০ গ্রাম বীজ ফেলতে হয়। এক্ষেত্রে অতিরিক্ত সেচের প্রযোজন হয় না, মাঝে মধ্যে ছিটিযে পানি দেওয়া যেতে পারে, ১২ থেকে ১৫ দিনের মধ্যে সে চারা রোপণের উপযোগী হয়।

ভাসমান বেডে উৎপাদিত চারা স্বাভাবিক চারার মতো মূল জমিতে লাগানো যায়। জলাবদ্ধ এলাকায় সঠিক বয়সের চারা রোপণ নিশ্চিত করতে ও যে সমস্ত কৃষকদের বীজতলা তৈরি করার জায়গা নেই তাদের চারা তৈরির বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে ভাসমান বেডে রোপা আমন বীজতলা তৈরি করা হয়। এ পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরী করতে খরচ কম ও স্বল্প সময়ে রোপণ উপযোগী এবং অতিরিক্ত কোন চাষযোগ্য জমি ব্যবহার না করে চারা উৎপাদন করা যায়। বিষয়টি সহজ ও সুবিধাজনক হওয়ায় কৃষকদের মাঝে ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়।

এ ব্যাপারে উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ বলেন, ভাসমান বেডে উদ্ভিদের প্রয়োজনীয় পুষ্ঠি উপাদান প্রচুর পরিমাণে থাকে বিধায় সমতল ভুমির তুলনায় ঘন করে বীজ বপন করা যায়। ভাসমান বেড পদ্ধতিতে প্রচলিত চাষের তুলনায় ফসল দ্রুত বাড়ে অনেক ক্ষেত্রে ৩-৫গুণ ফলন বেশি পাওয়া যায়। বেডে পর্যায় ক্রমে বিভিন্ন সবজিও চাষ করা যায়। সর্বশেষ বেডে পচনকৃত কুচরিপানা ফসলী জমিতে মাটির সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করে ফসল উৎপাদন করা যায় এবং ফল গাছের গোড়ায় ব্যবহার করে উৎপাদন বাড়ানো যায়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ জানান, ভাসমান বেড তৈরি করে কৃষক রোপা আমন বীজতলা এবং পরবর্তীতে সবজি ও ঘাস চাষ করতে পারবে। এতে কৃষকের সময় সাশ্রয় হবে, ফসলী জমিও আগাম কাজে লাগানো যাবে। এতে কৃষকের লাভ বেশি হবে খরচও বাঁচবে এবং পরিবেশ বান্ধব ফসল উৎপাদিত হবে। সর্বোপরি জলবায়ূ পরিবর্তনের ফলে প্রতিকূল পরিবেশে চাষাবাদের সাথে কৃষক অভিযোজিত হতে পারবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর


















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ