কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

প্রাইভেট কারে চড়ে অষ্টগ্রামে রাষ্ট্রপতির উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শন, চালক পুত্র এমপি তৌফিক



 অজিত দত্ত, অষ্টগ্রাম প্রতিনিধি | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৮:৪০ | অষ্টগ্রাম 


রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ অষ্টগ্রাম উপজেলায় সফরের দ্বিতীয় দিনে মঙ্গলবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন করেছেন। তিনি প্রাইভেট কারে চড়ে হাওরে নির্মাণাধীন অলওয়েদার সড়ক পরিদর্শন করেন। রাষ্ট্রপতিকে বহনকারী গাড়িটির চালক ছিলেন রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম) আসনের এমপি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক।

এ সময রাস্তার দু’পাশে শত শত নারী-পুরুষ রাষ্ট্রপতিকে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান। রাষ্ট্রপতিও গাড়ি থেকে হাত নেড়ে তাদের শুভেচ্ছা জানান।

অষ্টগ্রাম সদর থেকে ধলেশ্বরী নদীতে নির্মিত রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সেতুর উপর দিয়ে তিনি প্রাইভেট কারে চড়ে বাঙ্গালপাড়া ইউনিয়ন হয়ে নোয়াগাও পর্যন্ত হাইওয়ে সড়ক পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে জনগণের সাথে কথা বলেন। পাশাপাশি সড়ক ও জনপথের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সঠিকভাবে রাস্তা নির্মাণের কাজ সম্পন্ন করার নির্দেশ দেন।

সেখান থেকে পরে তিনি ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম অলওয়েদার সড়কের অষ্টগ্রাম অংশের জিরো পয়েন্ট থেকে ভাতশালা পর্যন্ত সড়ক পরিদর্শন করেন। এ সময় উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রপতি বলেন, এ রাস্তা আপনাদের, এটি দেখাশুনা করার দায়িত্বও আপনাদের।

তিনি আরো বলেন, এ রাস্তা হলে আপনারা অষ্টগ্রাম থেকে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা ও বিভাগীয় শহরে গাড়িতে চড়ে যাতায়াত করতে পারবেন।

এসময় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে কিশোরগঞ্জ-৫ (নিকলী-বাজিতপুর) আসনের এমপি আফজাল হোসেন, অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম জেমস, রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়–য়া, একান্ত সচিব আব্দুল হাই সহ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাগণ ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি দুপুর ২.০৫ মিনিটে অষ্টগ্রাম থেকে হেলিকপ্টারে করে ইটনা উপজেলার উদ্দেশ্যে রওনা দেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ