কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করিমগঞ্জে আওয়ামী লীগ আহ্বায়কের অব্যাহতি ও দলীয় প্রার্থীর দাবিতে সংবাদ সম্মেলন


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শনিবার, ৫:১৭ | রাজনীতি 


করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদকে আহ্বায়ক পদ থেকে অব্যাহতি এবং কিশোরগঞ্জ-৩ (করিমগঞ্জ-তাড়াইল) আসনটি জাতীয় পার্টিকে না দিয়ে আওয়ামী লীগের শিক্ষিত, সৎ ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিকট গ্রহণযোগ্য নেতাকে নৌকা প্রতীক দিয়ে এমপি প্রার্থী করার দাবিতে কিশোরগঞ্জে সংবাদ সম্মেলন করেছেন করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির নয় সদস্য।

তারা হলেন, হাজী গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, হাজী আব্বাস উদ্দিন আহমেদ, হাজী হাফিজ উদ্দিন ভূঁইয়া, মো. সাইদুজ্জামান চেনু, মো. জামাল উদ্দিন, মো. ছাবির উদ্দিন, মো. আব্দুল হেলিম, মো. হরমুজ আলী ও মো. মিজানুর রহমান।

শনিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে শহরের খরমপট্টি এলাকার প্রতীতী সংসদ কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির নয় সদস্য ছাড়াও কিশোরগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী দুই নেতা জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. মাহবুব ইকবাল ও আইটি ব্যবসায়ী শেখ কবির আহমেদ, করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা মো. ইকবাল ও অ্যাডভোকেট আবুল বাশার এবং দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির হাজী গিয়াস উদ্দিন আহমেদ এবং মো. মিজানুর রহমান বক্তব্য রাখেন। তারা বলেন, ২০০২ সালে করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ৪৫ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে চলছে করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ। এই সময়ে আহ্বায়ক কমিটির ১৩জন সদস্য মৃত্যুবরণ করেছেন।

আহ্বায়ক নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ ঢাকায় বসবাস করার কারণে কোন সময়েই নিয়মিত সভা ও বর্ধিত সভা আহ্বান করেন না। তিনি বিগত ইউপি নির্বাচনে কোন ইউনিয়ন বা উপজেলার কোন বর্ধিত সভা না করে টাকার বিনিময়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় নয়, এমন অযোগ্য ব্যক্তিদের চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখেন। ফলে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ৮টিতেই নৌকা প্রতীকের পরাজয় হয়। এছাড়া আহ্বায়ক নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ ১৬ বছর যাবৎ উপজেলা আওয়ামী লীগের স্থানীয় এবং জাতীয় কর্মসূচি এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অনুপস্থিতি, নিস্ক্রিয়তার দরুণ আওয়ামী লীগ একটি দুর্বল সংগঠনে পরিণত হয়েছে।

অন্যদিকে করিমগঞ্জ এবং তাড়াইল উপজেলা আওয়ামী লীগের দুর্গ হওয়ার পরও বিগত ২০০৮ এবং ২০১৪ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী মুজিবুল হক চুন্নুকে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হয়। জাতীয় পার্টির এমপি হওয়ায় স্থানীয় উন্নয়ন কর্মকা-সহ নানা ভাবে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা উপেক্ষা ও বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন।

তাই আগামী সংসদ নির্বাচনে এই আসনটি জাতীয় পার্টিকে না দিয়ে আওয়ামী লীগের শিক্ষিত, সৎ ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিকট গ্রহণযোগ্য নেতাকে নৌকা প্রতীক দিয়ে এমপি প্রার্থী করার দাবি জানানো হয়।

এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদের দু’টি মোবাইল নম্বর বিকালে একাধিকবার ফোন করা হলেও বন্ধ পাওয়া যায়।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ