কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় ক্ষতিকর পোকা দমনে ব্যবহৃত হচ্ছে ‘আলোক ফাঁদ’


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ২ অক্টোবর ২০১৮, মঙ্গলবার, ১:১৫ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় ফসলের ক্ষতিকর পোকা দমনে দিন দিনই আলোক ফাঁদের ব্যবহার কৃষকদের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। রোববার (৩০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা হতে রাত পর্যন্ত উপজেলার ২৮টি ব্লকে একযোগে আলোক ফাঁদ পদ্ধতি স্থাপন করা হয়।

বিগত বছরেও প্রায় ১২ থেকে ১৫ ভাগ ফসলই পোকার আক্রমনে নষ্ট হত। বর্তমানে পোকার দ্বারা ফসল যাতে নষ্ট হতে না পারে সে জন্য কৃষি বিভাগ আলোক ফাঁদ পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে।

জানা যায়, আলোক ফাঁদ তৈরি করার জন্য  ফসলের  মাঠ হতে ৫০মিটার থেকে ১০০ মিটার দূরে ৭-৮ ফুট উচ্চতার ৩টি বাশেঁর বা লোহার খুটি একসাথে করে স্থাপন করে উপরের দিকে আলোর উৎস হিসেবে চার্জ যুক্ত সাদা বাল্ব  ঝুলিয়ে আলো জ্বালিয়ে রাখতে হয় এবং নিচে একটি পাত্রে পানি রেখে তাতে ডিটারজেন্ট মিশ্রিত করে রাখতে হয়।

সন্ধার পর মাঠ জুড়ে যখন অন্ধকার নেমে আসে তখন আলোক ফাঁদের আলোর ঝলক দেখে পোকা মাকড় আলোতে চলে আসে, আলোর নিচে রাখা ডিটারজেন্ট মিশ্রিত পানিতে পড়ে পোকা মাকড় মারা যায়।  এটাই হলো আলোক ফাঁদ পদ্ধতি।

রোববার (৩০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় আদিত্য পাশা বাগানবাড়ী সিআইজির উদ্দোগে আদিত্য পাশা বাগানবাড়ীতে আলোক ফাঁদ স্থাপন করা হয়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আগ্রহ নিয়ে কৃষকরা আলোক ফাঁদ তৈরি করছে। সে সময় এখানে উপস্থিত ছিলেন আদিত্য পাশা বাগানবাড়ী সিআইজির সভাপতি আতিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, এসারসিন্দুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বজলুল করিম বাবুল ও উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে  উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ  বলেন, আলোক ফাঁদ স্থাপন করে পোকামাকড়ের উপস্থিতি নিরুপন করা হচ্ছে। যার মাধ্যমে কৃষকরা জানতে পারে এই এলাকায় কি ধরনের পোকার উপস্থিতি রয়েছে। পোকার ধরন বুঝে সে অনুযায়ী দমন ব্যবস্থা নিতে হবে। কৃষক যাতে আমন ফসল ঘরে তুলতে পারে সে লক্ষে বিভাগীয় নির্দেশনা মোতাবেক নিয়মিত আলোক ফাঁদ স্থাপন করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, উপজেলায় প্রত্যেক ব্লকে  নিয়মিত আলোক ফাঁদ স্থাপনের মাধ্যমে পোকা মাকড়ের উপস্থিতি লক্ষ্য করা হচ্ছে। কোথাও কোন প্রকার পোকার উপস্থিতি দেখা গেলে সে অনুযায়ী দমন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এই পদ্ধতি ব্যবহার করে কৃষকদের আর্থিক খরচ খুবই কম হচ্ছে। তার সুফল হিসেবে ফসলের উৎপাদনও ভাল হয়।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর


















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ