কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘কিশোরগঞ্জের মাটি আর মানুষ আমার রাজনীতির বিশ্ববিদ্যালয়’


 সাজন আহম্মেদ পাপন, পলিটিক্যাল রিপোর্টার, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৮ অক্টোবর ২০১৮, সোমবার, ৯:০৬ | বিশেষ সংবাদ 


প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, আমার রাজনীতির ৫৮ বছর হয়ে গেছে। আর রাজনীতির স্কুল কলেজ গুরুদয়াল হলেও এই কিশোরাগঞ্জের মাটি আর এই কিশোরগঞ্জের মানুষ আমার রাজনীতির বিশ্ববিদ্যালয়। এখানকার মানুষের কাছে আমি রাজনীতি শিখেছি। আমি রাজনীতি করার সময়ে কিশোরগঞ্জে আমি রিকসা সংগঠন করেছি, রিকসাওয়ালা ভাইদের নিয়েও আমি রাজনীতি করেছি। মুঠে শ্রমিক, ঠেলা গাড়ি শ্রমিক এদেরকে নিয়েও আমি রাজনীতি করেছি, সংগঠন করেছি। হোটেল রেস্টুরেন্ট শ্রমিক তাদেরকে নিয়েও আমি রাজনীতি করেছি। প্রতিটি শ্রমজীবী মানুষকে নিয়ে আমি রাজনীতি করেছি।

প্রেসিডেন্ট বলেন, এই কিশোরগঞ্জবাসীর দোয়ায় আমার মতো একজন সাধারণ মানুষ বাংলাদেশের দুই দুইবার প্রেসিডেন্ট হয়েছি। এটা আমার বড়ো পাওয়া। আমি মনে করি, এ পাওয়া আমার না সমস্ত কিশোরগঞ্জবাসীর এই পাওয়া। আমি জানি, কিশোরগঞ্জবাসী আমার জন্য দোয়া করেছে। তারা আমার সাফল্য কামনা করেছে। তাদের আন্তরিক কামনাতেই হয়তো আমি দ্বিতীয়বারের মতো প্রেসিডেন্ট হয়েছি। আসলে এটা চরম পাওয়া এইজন্য যে, এ উপমহাদেশে এরকম দ্বিতীয় নজির আর নেই।

সোমবার (৮ অক্টোবর) বিকালে কিশোরগঞ্জ শহরের সরকারি গুরুদয়াল কলেজ মাঠে প্রেসিডেন্টকে দেয়া গণসংবর্ধনায় তিনি এসব কথা বলেন। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় কিশোরগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে কিশোরগঞ্জের কৃতিপুরুষ মো. আবদুল হামিদকে এই গণসংবর্ধনা দেয়া হয়।

প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেন, আজকে গুরুদয়াল কলেজের এই মাঠে এসে আমার অতীতের অনেক স্মৃতি মনে পড়ে গেলো। এই যে গুরুদয়াল কলেজ এ মাঠ থেকে আমার রাজনীতি শুরু যদিও স্কুলে থাকতে আমি রাজনীতি করেছি দুই বছর। আমার রাজনীতির নেতৃত্ব এই গুরুদয়াল কলেজ থেকে শুরু। ১৯৬১ সালে আমি মেট্রিক পাস করে গুরুদয়াল কলেজে ভর্তি হই। ৬১ সালে তদানিন্তন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের ফটো ভাঙ্গা দিয়ে শুরু করেছিলাম।

প্রেসিডেন্ট যোগ করেন, আমার মনে পড়ে, এই গুরুদয়াল কলেজের তখন প্রিন্সিপাল ছিলেন ওয়াসিমুদ্দীন স্যার। শিক্ষকেরা সাধারণত ভালো ছাত্রদেরকে পছন্দ করেন। কিন্তু ওয়াসীমুদ্দীন স্যারসহ যারা তখন শিক্ষক ছিলেন, কেন জানি না আমি ভালো ছাত্র না হওয়া সত্ত্বেও আমাকে পছন্দ করতেন। সেটা আমি আজো জানি না। তারা আমাকে অত্যন্ত ভালোবাসতেন।

প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেন, আমি প্রথম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত পর সে সময় যে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়েছিলো, সে সংবর্ধনায় আমার ছোট ভাই সৈয়দ আশরাফ উপস্থিত ছিলো। আমার দুঃখ লাগে, সে আজ পাশে নাই। কারণ সে অসুস্থ। তবে আমি আশা করি এবং পরম করুণাময় আল্লাহর কাছে দোয়া করি, আপনারাও করবেন, সে যেনো অচিরেই আমাদের মাঝে ফিরে আসে। আবারো যেনো সে সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করতে পারে।

প্রেসিডেন্ট গণসংবর্ধনা মঞ্চে থাকা সহধর্মিণী রাশিদা হামিদের প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বলেন, ৬১ সালে আমার দীর্ঘ রাজনীতি শুরু করলেও আজ থেকে ৫৪ বছর আগে ৬৪ সালে বিয়ে করেছিলাম। আমি কলেজে ছাত্রলীগ করার সময় তখন কোনো ছাত্রী রাজনীতিতে আসতে চাইতো না। তখন কি করবো এই সবেদন নীলমনি ঘরে একজন আছে, সেই ছাত্রীটাকেই ছাত্রলীগ বানিয়েছিলাম।

আবার আওয়ামী লীগে যখন মহিলারা আসতো না, তাকে নিয়েই শুরু করলাম। তাঁর অবদান আমি অস্বীকার করি না। কারণ সে ৬৪ সালে বিয়ের পর থেকে ছাত্রজীবনে যে ছাত্র ভাইয়েরা আসতো, তাদেরকে চা বানিয়ে খাইয়েছে। তখন গ্যাস ছিলো না, লাকড়ির চুলা আর কেরোসিনের চুলায় চা বানিয়ে খাইয়েছে।

তিনি রসিকতা করে বলেন, আমার কপাল ভালো, বউডা আমার বাইট্টা। যদি বেশি লম্বা-টম্বা থাকতো, তাহলে মনে হয় চা বানাইতে বানাইতে কোমরডা বাঁকা হইয়া যাইতো।

কিশোরগঞ্জবাসীর বিভিন্ন দাবি-দাওয়ার বিষয়ে বলতে গিয়ে প্রেসিডেন্ট বলেন, যে সব দাবি-দাওয়ার কথা আপনারা বলছেন, এই দাবি-দাওয়া সব আমি জানি। কারণ এই কিশোরগঞ্জ শহরের এমন কোনো বাড়ি নাই, অলি-গলি নাই, রাস্তাঘাট নাই, যেখানে আমি বহুবার যাই নাই। কিশোরগঞ্জের এমন কোনো ওয়ার্ড-ইউনিয়ন নাই, যেখানে আমি যাই নাই। সুতরাং এই কিশোরগঞ্জের সমস্ত কিছু আমি জানি। যেসব দাবি-দাওয়া আপনারা করেছেন, এগুলো কিশোরগঞ্জের প্রাণের দাবি এবং সেটা আমারো মনের দাবি, প্রাণের দাবি। এ দাবিগুলো পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে।

খুব তাড়াতাড়ি কিশোরগঞ্জে একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় হবে উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট বলেন, এ বছরই এটি হবে। আমি আজকেই চলে যাচ্ছি না। আমি কালকে (মঙ্গলবার) আছি এবং পরশুদিন (বুধবার) বিকালে যাবো। দু’য়েকটা সাইট আমি ঘুরে দেখবো, কোথায় বিশ্ববিদ্যালয় করা যায়? এর মধ্যে আমি যদি সিদ্ধান্ত নিতে পারি, নিবো। না নিলে পারলে আমি একটি কমিটি করে দিয়ে যাবো। উনারা বসে অচিরেই কোথায় বিশ্ববিদ্যালয় করলে ভালো হবে, এটি নির্বাচন করে দেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ শুরু করার জন্য সরকারকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেয়া হবে।

তিনি বলেন, আপনারা ট্রেনের দাবি করেছেন, এটা যৌক্তিক দাবি। ভৈরব এসে ট্রেন আধ ঘন্টা থেকে এক ঘন্টা অপেক্ষা করে ইঞ্জিন ঘুরিয়ে কিশোরগঞ্জ আসতে হয়। যাওয়ার সময় আবার ইঞ্জিন ঘুরিয়ে ভৈরবে আধ ঘন্টা-এক ঘন্টার জন্য থাকতে হয়। এ জন্য একটা বাইপাস করে দিলেই ট্রেন সরাসরি কিশোরগঞ্জ আসতে পারে। এটার জন্য আমি ডিও লেটার দিয়েছি।

আমি কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকায় ফিরেই খুব দ্রুত রেল মন্ত্রী ও রেল সচিবকে আমি বঙ্গভবনে ডাকবো। এ ব্যাপারে যেনো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয় এবং আমাদের ট্রেনের যে সমস্যা এগুলো দূর করা হয়। আমি প্রথম প্রেসিডেন্ট হয়ে কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস নামে একটি ট্রেন বাড়িয়েছিলাম। চাহিদার প্রয়োজনে এখন আবার একটা নতুন ট্রেনের দরকার এবং ট্রেনের কোচ এবং বগি বাড়ানো প্রয়োজন।

প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেন, দেখেন প্রেসিডেন্ট, মন্ত্রী, বড় বড় আমলা, বিচারপতি পুলিশের আইজি, সেনাবাহিনী প্রধান, প্রিন্সিপাল সেক্রেটারী, কেবিনেট সেক্রেটারী, সচিব এবং এই ধরণের যারা আছে, তারা একটু বড় হয়ে গেলে, নামী হয়ে গেলে, মানুষকে আর মানুষ মনে করে না। এটা একদম ঠিক না। মানুষকে মানুষ মনে করতে হবে এবং জনগণের প্রতিনিধি যারা, তাদেরকে আরো বেশি মানুষকে মানুষ মনে করতে হবে। কারণ জনগণের ভোটেই তারা প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়। জনগণের ভোটে প্রতিনিধি হয়ে তাদের উপরেই আবার মাতব্বরি দেখানো যাবে না। জনগণের সাথে ভাল ব্যবহার করতে হবে।

প্রেসিডেন্ট বলেন, আজকে দেখেন, কেউ কেউ ভোটের কথা বলে গেছেন। আমি কিন্তু ভোটের কথা বলতে পারি না। আমি প্রেসিডেন্ট নিরপেক্ষ লোক। ভাই-বন্ধু এবং আপনাদের সন্তান হিসেবে আমি আপনাদের পরামর্শ দেবো, আপনারা এমন দলকে ভোট দিবেন, যে দলকে ভোট দিলে দেশের সার্বিক কল্যাণ হবে। যে দলকে ভোট দিলে দেশের স্বার্থ রক্ষা হবে, তাদের ভোট দিবেন।

রাজনৈতিক দলগুলোকে আমি বলবো, আপনারা ভালো মানুষকে মনোনয়ন দিবেন। যারা লুটপাট করে আর মানুষের সাথে ক্ষমতার দাপট দেখায় তাদের ভোট দিবেন না। যারা কন্ট্রাক্টরের কাছ থেকে টাকা নিয়ে কাজের মান খারাপ করে, টিআর-কাবিখা যারা বিক্রি করে দিবে, এ ধরনের লোককে আপনারা ভোট দিবেন না।

জেলা গণসংবর্ধনা কমিটি আয়োজিত এই গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান।

এতে অন্যদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য মো. আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রেসিডেন্টপুত্র রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো. সোহরাব উদ্দিন, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য দিলারা বেগম আসমা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল, জেলা ন্যাপ সভাপতি অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক খান রতন, জেলা গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, জেলা জেএসডি সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান, জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আশরাফ উদ্দিন রেনু, জেলা সিপিবি সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টি সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, জেলা জাসদ সভাপতি অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম নূরু, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বকুল, সাবেক প্রচার সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার কামাল, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শফিকুল গণি ঢালী লিমন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্মসাধারণ সম্পাদক পিপি শাহ আজিজুল হকের সঞ্চালনায় গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে গণসংবর্ধনা কমিটির আহ্বায়ক প্রেসিডেন্টের মেজো ছেলে রাসেল আহমেদ তুহিন স্বাগত বক্তৃতা করেন এবং কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ মানপত্র পাঠ করেন।

এছাড়া গণসংবর্ধনা মঞ্চে প্রেসিডেন্টপত্নী রাশিদা হামিদ, জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী ও পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম উপস্থিত ছিলেন।

গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জেলা সদর ছাড়াও বিভিন্ন উপজেলা থেকে নানা সাজে বাদ্য বাজিয়ে এবং বর্ণাঢ্য মিছিল নিয়ে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার বিপুলসংখ্যক মানুষ হাজির হন।

এর আগে দুপুর সোয়া ২টার দিকে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ হেলিকপ্টারযোগে কিশোরগঞ্জ শহরের আলোর মেলা এলাকার শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়ামে অবতরণ করেন। সেখান থেকে সার্কিট হাউসে যাওয়ার পর প্রেসিডেন্টকে গার্ড অব অনার দেয়া হয়। পরে বিকাল সাড়ে ৩টায় প্রেসিডেন্ট সরকারি গুরুদয়াল কলেজ মাঠের গণসংবর্ধনাস্থলে পৌঁছান।

প্রেসিডেন্টের তিন দিনের এই সফরের দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার (৯ অক্টোবর) প্রেসিডেন্টকে পেশাজীবনের স্মৃতি বিজড়িত জেলা আইনজীবী সমিতিতে সংবর্ধনা দেয়া হবে। বেলা সাড়ে ১১টায় জজ কোর্ট প্রাঙ্গণে কিশোরগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ