কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘নিজে আইন না মেনে অন্যকে মানানো আইনের শাসন নয়’


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৯ অক্টোবর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৮:৫৪ | বিশেষ সংবাদ 


প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, আমি শুনেছি, কোন আইনজীবীর বিরুেেদ্ধ যদি কেউ মামলা করে, তাহলে আমাদের কোন আইনজীবী তার বিপক্ষে দাঁড়াবে না। সবাই আইনজীবীর পক্ষে যাবে। বাদীর কোন আইনজীবী পাওয়া যাবে না। এটি ঠিক নয়। আবার অনেক সময় দেখা যায়, পারিবারিক ঝামেলা নিয়ে মামলায় আইনজীবী পরিবারের যে সদস্য আইনজীবী না তার পক্ষেও আইনজীবী পাওয়া যায় না। উকিলের পক্ষে সব উকিলরা থাকবে আবার সে কোন উকিল পাবে না। আপনাদের ইউনিটি দিয়ে যদি কারো উপর সেটা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ অত্যাচার হয়ে যায়, এটি ঠিক না। কারণ প্রতিটি মানুষের ন্যায্য বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে।

প্রেসিডেন্ট বলেন, আইনজীবীরা ডেফিনিটলি একটি শক্তি। কিন্তু এই শক্তির অপপ্রয়োগ করা কোন ভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তাহলে জনগণের কাছে আইনজীবীদের যে আস্থা রয়েছে, তা হারাতে হবে। যেভাবে জনগণের আস্থা থাকে, সেভাবে আইনজীবীদের কাজ করতে হবে। এই দেশের সাধারণ মানুষ যাতে বিচার কাজে সাহায্য পায়, এজন্যে আমরা আইনজীবী পেশায় নিয়োজিত রয়েছি। আইনজীবীরা অন্যায় করলে তারও বিচার হতে হবে। আমি আইন মানবো না, অন্যরা সবাই মানবে। এটা তো আইনের শাসন হতে পারে না।

মঙ্গলবার (৯ অক্টোবর) দুপরে কিশোরগঞ্জ জজ কোর্ট প্রাঙ্গণে প্রেসিডেন্টকে দেয়া সংবর্ধনায় তিনি এসব কথা বলেন। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় কিশোরগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে কিশোরগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির পাঁচ বারের সভাপতি মো. আবদুল হামিদকে এই সংবর্ধনা দেয়া হয়।

সিনিয়র আইনজীবীরা তৎপর হলে বারের পরিবেশ সুন্দর হবে মন্তব্য করে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেন, আমরা রাজনীতি করেছি রাজনীতির মাঠে। বারে আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। বারের পরিবেশ ঠিক রাখার জন্য দলমত নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

আইনজীবীরা জনগণের জন্য মন্তব্য করে প্রেসিডেন্ট বলেন, এখানে ওকালতনামার জন্য অনেক বেশি টাকা নেয়া হচ্ছে। এটি ভাবার কোন কারণ নেই যে, যারা মামলা-মোকদ্দমা করতে আসে তারা খুব বড়লোক। সাধারণ মানুষগুলোই মামলা-মোকদ্দমা করতে আসে। অনেক সময় ওকালতনামার পেছনেই তাদের ৫শ’ টাকা খরচ হয়ে যায়। এমনটি হলে গরিব মানুষদের আইনের সহায়তা পেতে সমস্যা হবে।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এম এ রশিদ এর সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এমপি।

এতে অন্যদের মধ্যে সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মুক্তিযোদ্ধা মুহম্মদ মাহবুব-উল ইসলাম এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান বক্তব্য রাখেন।

এছাড়া প্রেসিডেন্টের উদ্দেশ্যে জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক সহিদুল আলম শহীদ এবং আইনমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে সহ-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রাকিবুল হাসান রাকিব মানপত্র পাঠ করেন।

সংবর্ধনা মঞ্চে থাকা আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সম্পর্কে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেন, সে আমাদের ভাইগ্না। আবার তার বাবা সিরাজুল হক সাহেব, উনি আমার ভাই। সুতরাং সে ভাতিজাও হয় আবার ভাইগ্নাও হয়। আমি সিরাজ ভাইকে সিরাজ ভাই ডাকতাম। স্বাভাবিক ভাবেই ভাইয়ের স্ত্রীকে ভাবি ডাকা হয়। কিন্তু সেটি আমি করতে পারিনি। সেখানে গিয়ে আমাকে আপা-ই ডাকতে হয়েছে। আপা-র কাছে সে (আনিসুল হক) আমার ভাইগ্না হিসাবে আর ভাইয়ের কাছে সে ছিল আমার ভাতিজা হিসাবে। কিন্তু দুই রিলেশনের মাঝে মারাত্মক কোন জটিলতার সৃষ্টি হয়নি।

এ প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ১৯৭০ সালের নির্বাচনের সময় সিরাজুল হক সাহেবের সাথে আমার পরিচয় হয়েছিল। উনিও নির্বাচন করেছিলেন, আমিও করেছিলাম। আমি যেহেতু উনার চেয়ে ছোট ছিলাম, উনি আমাকে স্নেহ করতেন। আমাকে দীর্ঘদিন উনি বলেননি তার শ্বশুরবাড়ি কিশোরগঞ্জ। দেশ স্বাধীনের পর তাঁর বাড়িতে যখন গেলাম, তখন উনি বললেন, ‘আমার শ্বশুরবাড়ি কিশোরগঞ্জ নীলগঞ্জ’। আমি সিরাজ ভাইকে বললাম, আপনি আগে বললেন না কেন? তাহলে তো ভাই না বলে ‘দুলাভাই’ ডাকতাম। উনি আমাকে থাপ্পড় মারবেন বলে তেড়ে এসেছিলেন।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এমপি বলেন, আজকের এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসে আমি এক বিরল সুযোগ পেয়েছি। শ্রদ্ধাভাজন প্রেসিডেন্টের পাশে বসতে পেরেছি, উনার নিজ জেলায়, যেখানে তিনি আইনপেশা শুরু করেছিলেন, যেখানে আমার মামার বাড়ি। দ্বিতীয় বারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় প্রেসিডেন্টের অর্জন এ এলাকার প্রত্যেকটি মানুষকে অলঙ্কৃত ও গর্বিত করেছে, আমাকেও গর্বিত করেছে।

আইনমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয় নিয়ে কাজে নেমেছেন। তিনি বলেছেন, আমাদের বাজেটের শতকরা ৯০ ভাগ নিজেদের অর্থায়নে করতে পারব। এ এক বিরাট অর্জন। আমাদের এ অগ্রযাত্রার ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে। এক্ষেত্রে আমাদের আইনজীবীরা ভালো ভূমিকা রাখতে পারেন। তারা উন্নয়নের অগ্রদূত হিসেবে কাজ করবেন।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ আইনমন্ত্রীকে সাথে নিয়ে কিশোরগঞ্জ জজ কোর্টের তৃতীয় তলার সম্প্রসারিত ভবন এবং জজ কোর্ট প্রধান ফটকের শুভ উদ্বোধন করেন।

দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর তিন দিনের সফরে সোমবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ কিশোরগঞ্জ জেলা শহরে আসেন। ওইদিন বিকালে শহরের গুরুদয়াল সরকারি কলেজ মাঠে প্রেসিডেন্টকে জেলাবাসীর পক্ষ থেকে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়। এছাড়া সন্ধ্যার পর সার্কিট হাউসে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কিশোরগঞ্জের নানা শ্রেণিপেশার মানুষ সৌজন্য সাক্ষাত করেন।

বুধবার (১০ অক্টোবর) বিকালে প্রেসিডেন্ট ঢাকার উদ্দেশ্যে কিশোরগঞ্জ ত্যাগ করবেন।

আরো পড়ুন: ‘কিশোরগঞ্জের মাটি আর মানুষ আমার রাজনীতির বিশ্ববিদ্যালয়’



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ