kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

গানের পাখি জান্নাতুন নাঈম পিংকী


 সিম্মী আহাম্মেদ, সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৩০ জানুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার, ৩:০৫ | বিনোদন 


জান্নাতুন নাঈম পিংকী, নতুন প্রজন্মের প্রতিশ্রুতিশীল একজন শিল্পী। তিনি তার গায়কী এবং কন্ঠ মাধুর্য্যে জয় করে নিয়েছেন দর্শক শ্রোতার মন। কিশোরগঞ্জের সংগীতাংগনে এরই মধ্যে তিনি পরিচিতি লাভ করেছেন ‘গানের পাখি’ হিসেবে। নিয়মিত তিনি গেয়ে থাকেন রবীন্দ্র সংগীত, নজরুল সংগীত এবং আধুনিক গান। মিষ্টি চেহারার এই গানের পাখি বাংলাদেশ বেতারেরও একজন তালিকাভুক্ত শিল্পী।

পিংকী মনে করেন, গান তার কাছে এক অনুপম আশ্রয়ের জায়গা, যেখানে অবলীলায় তিনি নিজেকে সমর্পণ করতে পারেন। গানের পাশাপাশি ছড়া ও কবিতা লিখা এবং ছবি আঁকাতেও তিনি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

জান্নাতুন নাঈম পিংকী কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ সরকারি গুরুদয়াল কলেজের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী। হিসাববিজ্ঞানের এই ছাত্রী গানের মায়ায় জড়িয়েছেন ২০০৭ সালে যখন তিনি নবম শ্রেণির ছাত্রী।

এ প্রসঙ্গেও জানা গেল এক চমকপ্রদ তথ্য। কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের বয়লা এলাকার মেয়ে পিংকীর ছোট বোন জান্নাতুন মাওয়াকে ওই বছর জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে নৃত্য প্রশিক্ষণের জন্য ভর্তি করা হয়। ছোট্ট সেই বোনকে শিল্পকলা একাডেমিতে নিয়ে যাওয়া এবং প্রশিক্ষণ শেষে বাসায় নিয়ে আসার দায়িত্ব পড়ে পিংকীর ওপর। ছোটবেলা থেকে পিংকীর গানের প্রতি ঝোঁক থাকায় ছোট বোনকে নিয়ে শিল্পকলায় আসা-যাওয়া করতে গিয়ে পিংকীর নিজের মাঝেও এক সুপ্ত বাসনা উঁকি দেয়। যেহেতু পিংকীকে শিল্পকলায় আসা-যাওয়া করতেই হবে তাই পিংকীও সেখানে সংগীত প্রশিক্ষণে ভর্তি হওয়ার আগ্রহের কথা জানান পরিবারকে। পরিবারের সম্মতিতে শুরু হয় পিংকীর সংগীত চর্চা।

২০০৭ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ওস্তাদ প্রণয় কুমার দাসের কাছে পিংকী সংগীতে প্রশিক্ষণ নেন। প্রশিক্ষণ শেষে পিংকীর মনে হয়, গানটাই তার করা দরকার। এরপর থেকে পিংকী তার কণ্ঠ মাধুর্য্য দিয়ে নিজের ঔজ্জ্বলতা ক্রমশ ছড়িয়ে দিচ্ছেন সংগীত ভুবনে।

২০১৫ সালে প্রথম বড় মঞ্চে নিজেকে মেলে ধরার সুযোগ পান জান্নাতুন নাঈম পিংকী। ওই বছর বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ সাংস্কৃতি উৎসবে তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার প্রতিনিধিত্ব করেন। ওই উৎসবে তার সঙ্গে পুরুষ শিল্পী হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করেন বরেণ্য শিল্পী আবুল হাশেম। উৎসবে অল্পসময় গান করেই সুরের আবেশে শ্রোতাদের মন ভরিয়ে দেন জান্নাতুন নাঈম পিংকী। প্রশংসা কুড়ান দেশের সংগীত বোদ্ধাদের।

এর আগেই অবশ্য ২০১৩ সালে রবীন্দ্র সংগীত ও আধুনিক গানে বেতারে কণ্ঠশিল্পী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন পিংকী। প্রথমবারের মতো অডিশন দিয়েই উভয় বিষয়ে তালিকাভুক্ত হওয়ার সুযোগ পান তিনি। শুরু হয় তার সামনে এগিয়ে চলার গল্প।

জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের প্রতিযোগিতায় রবীন্দ্র সংগীত, উচ্চাঙ্গ সংগীত আর দেশাত্মবোধক প্রতিযোগিতায় বিভাগীয় চ্যাম্পিয়ন হওয়া ছাড়াও রবীন্দ্র নাথের সার্ধশত বার্ষিকীতে আয়োজিত প্রতিযোগিতা ময়মনসিংহ অঞ্চলে চ্যাম্পিয়ন হন পিংকী।

এসবের বাইরে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসন আয়োজিত জাতীয় দিবসসমূহের অনুষ্ঠানে তার সরব পদচারণা তো রয়েছেই। জান্নাতুন নাঈম পিংকীর মনে করেন, পেশা হিসেবে নয় ভালবাসার জায়গা থেকেই তিনি গান করতে চান। স্বপ্ন দেখেন, বাচ্চাদের জন্য একটি ভাল গানের স্কুল প্রতিষ্ঠার।

সংগীতের বাইরেও নানা মাধ্যমে কাজ করছেন জান্নাতুন নাঈম পিংকী। অনুষ্ঠান উপস্থাপনাও তাকে টানে। বিটিভিতে একাধিক অনুষ্ঠান উপস্থাপনার সুযোগও পেয়েছেন তিনি।

পছন্দ করেন ছবি আঁকতে। ছোট বেলা থেকেই ছবি আঁকার ঝোঁক ছিল তার। যদিও প্রাতিষ্ঠানিকভাকে ছবি আঁকা শেখা হয়নি তার। এরপরও কাগজের বুকে তৃষিত পেন্সিলের আঁচড়ে ফুটিয়ে তুলেন রাধা-কৃষ্ণ, মমতাময়ী মায়ের প্রতিচ্ছবি। খেলা করেন কাগজ নিয়ে। মনের মাধুরী মিশিয়ে তৈরি করেন কাগজের হরেক রকম পুতুল। যার মাধ্যমে তিনি নিজেকে ফিরিয়ে নিয়ে যান শৈশবের পুতুল খেলার দিনগুলোতে।

রূপে-গুণে অনন্যা জান্নাতুন নাঈম পিংকী এই সময়ের একজন প্রতিশ্রুতিশীল কবি-ছড়াকারও। তার আবেগ-অনুভুতিগুলো পাখনা মেলে অনুপম ছন্দের গাঁথুনিতে। সময় পেলেই লিখেন ছড়া-কবিতা। সেসব ছাপাও হচ্ছে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা, সাময়িকীতে।

এভাবেই নানা সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে জান্নাতুন নাঈম পিংকী নিজের মেধা, মননে আলোকিত করছেন সাহিত্য-সংস্কৃতির ভুবন। হয়ে ওঠছেন আগামী দিনের এক সম্ভাবনাময় মানুষ, যার মনুষত্বের আলোয় হেসে ওঠবে আগামীর পৃথিবী।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর












সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ