কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত প্রধান শিক্ষক আহসান উল্লাহ স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার, ৬:৪৪ | করিমগঞ্জ  


সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নিকলী উপজেলার দামপাড়া ইউনিয়নের এ.বি নূরজাহান হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক শাহ মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) বাদ আসর করিমগঞ্জ উপজেলার গুনধর ইউনিয়নের ইন্দাচুল্লী ঈদগাহ মাঠে এই আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ইন্দাচুল্লী গ্রামের সন্তান প্রয়াত শাহ মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ স্মরণে গ্রামবাসী এর আয়োজন করেন।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রয়াত শাহ মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ’র চাচা ডা. এস এম মোস্তফা খান পাঠান।

এতে আলোচক ছিলেন বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ডের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ শরীফ সাদী, জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি বিএনপি নেতা জাহাঙ্গীর আলম মোল্লা, করিমগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি আজিজুল ইসলাম দুলাল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিউজ্জামান শফি, এ.বি নূরজাহান হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নূরুল আমিন, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মৌলভী জসিম উদ্দিন, সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী শাহ মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, গুনধর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন আঙ্গুর ভূঁইয়া, জয়কা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. হারুন-অর-রশিদ, প্রয়াতের ভাতিজা সাংবাদিক শাহ মুহাম্মদ মোশাহিদ প্রমুখ।

আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন করিমগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম শাহজাহান। আলোচনা সভায় প্রয়াত শাহ মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ’র লেখা শেষ কবিতা আবৃত্তি করেন কবি সদরুল উলা।

এতে কোরআন তেলাওয়াত করেন শাহ আব্দুল্লাহ আল নোমান। এছাড়া মোনাজাত পরিচালনা করেন প্রয়াতের ছোট ভাই মাও. শাহ ফায়েজ উল্লাহ।

আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেন।

প্রসঙ্গত, গত ৬ অক্টোবর সকালে কিশোরগঞ্জ থেকে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে নিকলীগামী সিএনজিচালিত অটোরিকশা উল্টে এ.বি নূরজাহান হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহ মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ (৫০) মারা যান।

প্রয়াত প্রধান শিক্ষক শাহ মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ করিমগঞ্জ উপজেলার গুনধর ইউনিয়নের ইন্দাচুল্লী গ্রামের মৃত মাওলানা শাহ মোহাম্মদ হামিদ উল্লাহর ছেলে এবং দৈনিক আজকালের খবর এর সম্পাদকীয় সহকারী শাহ মুহাম্মদ মোশাহিদ এর চাচা। তিনি দুই পুত্র সন্তানের জনক।

শাহ মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ শিক্ষকতা ছাড়াও লেখালেখির সাথে জড়িত ছিলেন। গল্প, প্রবন্ধ ও কবিতাসহ সাহিত্যের প্রায় সব ক্ষেত্রে তার সমান বিচরণ ছিলো। দারুণ পড়ুয়া মানুষটি শিক্ষার্থীদের মাঝে পাঠাভ্যাস গড়ে তুলতে নিবেদিত ছিলেন।

এছাড়া তিনি বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর