কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

বিএডিসি’র বীজে উচ্চমূল্য, বিক্রি নিয়ে ডিলাররা শঙ্কিত


 মোস্তফা কামাল | ২২ অক্টোবর ২০১৮, সোমবার, ১১:৩৭ | কৃষি 


বিএডিসি আগামী বোরো ও রবি মৌসুমে আবাদযোগ্য বিভিন্ন ফসলের বীজের চড়া মূল্য নির্ধারণ করেছে বলে জানা গেছে। এতে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন ডিলারগণ।

তারা আশঙ্কা করছেন, খোলা বাজারে এসব ফসলের দাম অনেক কম থাকায় বীজের প্যাকেটগুলো শেষ পর্যন্ত অবিক্রিত পড়ে থাকবে। এই সুযোগে বিভিন্ন প্রাইভেট কোম্পানীর বীজ বেশি বিক্রি হওয়ার সুযোগ তৈরি হবে। এতে সরকার এবার কোটি কোটি টাকা লোকসানের ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।

যেসব ডিলার ঝুঁকি নিয়ে এসব বীজ কিনবেন, তারাও আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বেন বলে মনে করা হচ্ছে। ফলে ডিলারদের পক্ষ থেকে বিএডিসি’র চেয়ারম্যানের কাছে এসব বীজের মূল্য হ্রাসের অনুরোধ জানিয়ে লিখিত আবেদন জানানো হয়েছে।

বিএডিসি বীজ ডিলার এসোসিয়েশন কিশোরগঞ্জ অঞ্চলের পরিচালক মো. আতাউর রহমান বিএডিসি’র চেয়ারম্যান বরাবরে বীজের মূল্য হ্রাসের দাবিতে গত ১৮ই অক্টোবর একটি লিখিত আবেদন জমা দিয়েছেন।

এতে তিনি উল্লেখ করেছেন, এবার বিএডিসির ধান বীজের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ টাকা কেজি। অথচ খোলা বাজারে এখন খাবার ধান ১৭ টাকা কেজি। গম বীজের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৬ টাকা কেজি। অথচ খোলা বাজারে খাবার গম এখন ২০ টাকা কেজি। ‘এ-গ্রেড’ আলু বীজের দাম ৩০ টাকা আর ‘বি-গ্রেড’ আলু বীজের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৮ টাকা কেজি। অথচ খাবার আলু বর্তমান বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৬ থেকে ১৭ টাকা কেজি।

আবেদনে ধান বীজ ৩৫ টাকা কেজি, গম বীজ ৩৫ টাকা কেজি এবং আলু বীজ ২০ ও ২২ টাকা কেজি নির্ধারণের দাবি জানানো হয়েছে। খাবারের ধান, আলু আর গামের দামের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ মূল্য নির্ধারণ করা উচিত। অন্যথায় সরকার এবার কোটি কোটি টাকা লোকসানের ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। যেসব ডিলার ঝুঁকি নিয়ে এসব বীজ কিনবেন, তারাও আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বেন বলে লিখিত আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে আতাউর রহমানসহ কয়েকজন ডিলারের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, গত বছর দুই গ্রেডের আলু বীজের দাম রাখা হয়েছিল ২২ ও ২৩ টাকা। এবার বাড়ানো হয়েছে। ধান বীজ গতবছরও এবারের মত ৫০ টাকা কেজি রাখা হয়েছিল।

কিন্তু গতবছর বন্যায় ফসলহানির কারণে খাবার ধানের দাম ছিল অনেক বেশি, আর এবার দাম অনেক কম। গম বীজের দামও গতবছর ছিল ৫০ টাকা কেজি। খাবার গমের দামও গতবছর ছিল অনেক বেশি।

কিন্তু এবার খাবার গমের দামও অনেক কম। সেই কারণেই বীজের দাম এবার না কমালে কৃষকরা এসব বীজ কিনতে চাইবেন না। ডিলারদের গুদামে বীজ পড়ে থাকবে। শেষ পর্যন্ত খোলা বাজারে কম দামে খাবার পণ্য হিসেবে এসব বীজের প্যাকেট বিক্রি করতে হবে।

শুধু তাই নয়, বিএডিসির বীজের দাম বেশি থাকলে অনেক অসাধু বেসরকারী কোম্পানী নিম্নমানের বীজ বাজারে ছেড়ে দেয়। অনেকে খোলা বাজারের খাবারের ধান, আলু ও গম কিনে বীজ হিসেবে প্যাকেট করে কৃষকদের কাছে বিক্রি করে। এসব বীজ কিনে কৃষকরা প্রতারিত হন। ঠিকমত অঙ্কুরোদগম হয় না, ফলনও ভাল হয় না। নানারকম রোগবালাইয়ে ফসল নষ্ট হয়। ফলে কেবল সরকার এবং ডিলারদের ক্ষতির কারণে নয়, কৃষকদের স্বার্থেই বীজের দাম কমানো দরকার বলে ডিলারগণ মনে করছেন।

অন্যান্য অঞ্চলের ডিলারগণও বীজের মূল্য হ্রাসের দাবিতে বিএডিসি’র চেয়ারম্যানের কাছে এরকম লিখিত আবেদন করেছেন বলে ডিলার নেতা আতাউর রহমান জানিয়েছেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ