কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তাড়াইলে বাজার ভরা সবজি, এরপরও দাম চড়া


 এম.এম রুহুল আমিন, তাড়াইল | ২৭ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার, ৩:৫৫ | অর্থ-বাণিজ্য 


শনিবার (২৭ অক্টোবর) তাড়াইল উপজেলা সদর বাজার তরিতরকারির দোকান থেকে শাক কিনছিলেন হাবিবুর রহমান। তিনি কিশোরগঞ্জ নিউজকে বলেন, অনেক রকমের শাক পাচ্ছি। শীতের শাকও আসতে শুরু করেছে। তবে এগুলো অনেক চড়াদামে কিনতে হচ্ছে।

বাজারে তিন আঁটি লাল শাক ৪০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। বিক্রেতা মস্তুফা মিয়া বলেন, বেশি দামে কিনেছি। আমরাও বেশি দিয়া বেচতাছি।

শুধু শাকই নয়, শীতের কিছু সবজিরও দেখা মিলছে বাজারে। তবে এগুলোর দামও চড়া। যদিও এগুলো বাজারে বিশ দিনেরও বেশি সময় ধরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রকারভেদে শিম বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা, টমেটো ৯০ থেকে ১০০ টাকা, প্রতি পিস বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা, প্রতি পিস ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, গাজর বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা, মূলা বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা কেজি, প্রতি পিস লাউ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা, পেঁপে বিক্রি হচ্ছে ৬০টাকা ও বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি।

এছাড়া প্রতি কেজি শসা বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা, ঢেঁড়শ ৬০ টাকা, পটল ৪০ টাকা, বরবটি ৫০ টাকা, কাকরোল বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, করলা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, ধনিয়াপাতা ১২০ টাকা, কাচাকলা হালি ৪০ টাকা, লেবু হালি ৩০ থেকে ৪০ টাকা।

আরো দেখা যায়, পুঁইশাক, কলমিশাক, লালশাক, লাউশাক ও মূলাশাক বেশ কিছুদিন ধরেই বাজারে পাওয়া গেলেও নতুন করে এসবের সাথে যুক্ত হয়েছে পাটশাক। পাইকারিতে এগুলো ৫-৬ টাকা আঁটি বিক্রি হচ্ছে, যা আবার খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকা আঁটি।

উপজেলার সদর বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, অগ্রিম চাষের শাক পরিমাণে কম, এ জন্য বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। চাহিদা উপযোগী সকল প্রকারের শাকের সরবরাহ আসতে আরো অন্তত ২০ দিনের মতো লাগবে।

উপজেলা সদর বাজারের কাঁচা বাজার ব্যবসায়ী হুমায়ূন আহমাদ বলেন, বেশি হলে আর ২০ দিন লাগবে। শীতের সব সবজিই বাজারে  পাওয়া যাবে। তখন দামও কমতে শুরু করবে। এখন পরিমাণে কম আসে বলে দামও চড়া।

সাধারণ মানুষের সাথে কথা হলে তারা বলেন, ব্যবসায়ীরা যে যেভাবে পারছে দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। এভাবে প্রত্যেকটি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ছে। এতে বিপাকে পড়তে হচ্ছে আমাদের মতো নিম্ন আয়ের মানুষের। তারা বাজার মনিটরিংয়ের জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর