kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

গুরুদয়াল কলেজ: স্বপ্ন যেখানে ডানা মেলে


 গাজী মহিবুর রহমান | ৩১ জানুয়ারি ২০১৮, বুধবার, ৩:১৯ | এক্সক্লুসিভ 


কিশোরগঞ্জ শহরের বুক চিরে বয়ে যাওয়া এক সময়ের খরস্রোতা নরসুন্দার তীর ঘেঁষে অবস্থিত জেলার কলেজ পর্যায়ের প্রথম বিদ্যাপীঠ সরকারি গুরুদয়াল কলেজ। যদিও প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে কলেজটি এই নামে ছিল না। এমনকি কলেজটি এই স্থানেও অবস্থিত ছিল না। আজকের এই ঐতিহ্যবাহী সরকারি গুরুদয়াল কলেজ প্রতিষ্ঠা এতটা সহজ ছিল না। এই কলেজ প্রতিষ্ঠার পেছনে রয়েছে নতুন প্রজন্মের অনেকের কাছেই অজানা এক ইতিহাস।

তখনো ভারতবর্ষে বৃটিশ শাসনামল বিদ্যমান। সেই ১৯৪৩ সালের কথা। কিশোরগঞ্জ মহকুমায় তখনও কোন কলেজ গড়ে উঠেনি। উচ্চ শিক্ষার তেমন কোন সুযোগ না থাকার কারণে শিক্ষা ক্ষেত্রে এখানকার মানুষের পশ্চাৎপদতা ক্রমশ বাড়তে থাকে। এমন বাস্তবতায় বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী, বিজ্ঞ আইনজীবি জনাব জিল্লুর রহমানের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে জনাব আ. ওয়াদুদ চৌধুরী ও বাবু বিপিন চন্দ্র রায় প্রমুখ বিদ্যোৎসাহী ব্যক্তিবর্গের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় কিশোরগঞ্জের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মধ্যে শিক্ষার আলো বিস্তারের লক্ষ্যে তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী বাজিতপুরের কৃতি সন্তান খান বাহাদুর আব্দুল করিম সাহেবের সম্মতিতে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

অবশ্য এমনটাও শোনা যায় যে, কিশোরগঞ্জের তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক জনাব শাহাদাত হুসেন চৌধুরী এক জনসভায় কিশোরগঞ্জে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন। সেই সভায় তখন উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, আইন সভার সদস্যগণ, ব্যবসায়ী, বুদ্ধিজীবী এবং মহকুমার সকল স্তরের কর্মজীবী মানুষ। পদাধিকার বলে মহকুমা প্রশাসক শাহাদাত হুসেন চৌধুরীকে উক্ত কলেজের সভাপতি, আব্দুল ওয়াদুদ চৌধুরী ও বিপিন চন্দ্র রায়কে যুগ্ম সম্পাদক করা হয়। এছাড়া শাহ আব্দুল হামিদ ও প্রফুল্ল চন্দ্র ধরকে সদস্য করে এবং নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়।

১৯৪৩ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ‘কিশোরগঞ্জ কলেজ’ নামে কলেজটির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। কলেজ অর্গানাইজিং কমিটি পঁচিশ হাজার টাকা চাঁদা সংগ্রহ করে শুভ কাজের সূচনা করেন। এই সামান্য অর্থ দিয়ে রাকুয়াইল পাট গবেষণা কেন্দ্রের পাশে অবস্থিত তৎকালীন সিএন্ডবি (বর্তমান সড়ক ও জনপথ) এর ডাকবাংলোতে কলেজটির কার্যক্রম শুরু হয়।

ময়মনসিংহ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও কালেক্টরেট মিঃ ক্রীক কিশোরগঞ্জ কলেজের দ্বার উন্মোচন করতে এসে বলেছিলেন, “I hope this institution will be one of the best colleges not only in the district of mymensingh but also in the province of Bengal.”

ড. ধীরেন্দ্র লাল দাসকে কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। মিঃ দাস, মাত্র ছয় জন অধ্যাপক নিয়ে কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছিলেন। প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ ড. ডি এল দাস সেদিন তার ভাষণে বলেছিলেন, “সৎ শিক্ষা লাভে বঞ্চিত তরুণ সমাজ ক্রমশ বিপথগামী হতে থাকলে জাতির জীবন মেঘে ঢাকা তারার মত অবক্ষয়ের অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে। তাই সত্য, প্রেম ও পবিত্রতার আদর্শ প্রতিষ্ঠা ও সত্যিকারের মানুষ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে এ কলেজের যাত্রা শুরু হলো।”

এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন, অধ্যক্ষের মাসিক বেতন ১২৫ টাকা এবং অধ্যাপকদের মাসিক বেতন ৭৫ টাকা দিয়ে শুরু হয়েছিল কলেজের যাত্রা। এবং প্রথম বছর আই,এ ও আই,কম কাশে মাত্র ১১৩জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয়েছিল। একতলা একটি দালান ও ছোট্ট একটি টিনের ঘর, তাতেই স্থাপিত হলো কলেজের অফিস, স্টাফ রুম এবং অধ্যক্ষের বসার জায়গা। এরই মধ্যে সিএন্ডবি প্রাঙ্গণে নির্মাণ করা হলো একটি লম্বা টিন শেড ঘর এবং দান সামগ্রী রাখার জন্য একটি গুদামঘর। সিএন্ডবি কর্তৃপক্ষ তাদেরকে সর্বোত সহযোগিতা করলেন কিন্তু জানাতে ভুললেন না যে, এটা তাদের স্থায়ী ঠিকানা নয়।

এভাবেই প্রায় দুই বছর কলেজের কার্যক্রম চালানো হলো। এই পর্যায়ে এসে ক্রমবর্ধমান ছাত্রছাত্রীর জায়গা সংকুলান করা এবং কলেজের স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ সময়ের দাবিতে পরিণত হয়। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে তা করা যাচ্ছিল না।

এমন বাস্তবতায় ইটনা থানার কাঠৈর গ্রামের মৎস্য ব্যবসায়ী বাবু গুরুদয়াল সরকার বিষয়টি জ্ঞাত হলে তিনি এবং তার ভাই কৃষ্ণ দয়াল সরকার কলেজের উন্নয়নে এক লাখ টাকা প্রদানের অঙ্গিকার করেন এবং নগদ ৪৮,০০১ টাকা প্রদান করেন। ১৯৪৫ সালে তাঁদের দেওয়া এই টাকা দিয়েই জায়গা ক্রয় এবং কলেজের ভবন নির্মাণ করে কলেজটি তার নিজস্ব জায়গায় ও বর্তমান অবস্থানে স্থানান্তরিত হয়। এরপর থেকেই কলেজটির নামকরণ করা হয় গুরুদয়াল কলেজ।

১৯৮০ সালে কলেজটিকে সরকারিকরণ করা হয়। তারপর থেকে কলেজটি গুরুদয়াল সরকারি কলেজ নামে পরিচিত।

জেলার সবচেয়ে পুরনো এবং ঐতিহ্যবাহী এই কলেজটি ২২.৭২ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত। বর্তমানে এই কলেজে সতেরটি বিষয়ে অনার্স কোর্স এবং দশটি বিষয়ে মাস্টার্স কোর্স চালু রয়েছে। যথারীতি আই এ এবং বি এ কোর্স তো রয়েছেই। এছাড়াও পাঁচটি বিষয়ে প্রিলি মাস্টার্স কোর্স চালু রয়েছে।

বর্তমানে এই কলেজে ওয়াসিমুদ্দিন মুসলিম ছাত্রাবাস ও ড. এম ওসমান গণি ছাত্রাবাস নামে দুইটি ছাত্রাবাস এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নামে একটি ছাত্রী নিবাস রয়েছে। যেখানে দুটি  ছাত্রাবাসে পাঁচ শতাধিক ছাত্র এবং একমাত্র ছাত্রীনিবাসে ১৫০জন ছাত্রী আবাসিক সুবিধা ভোগ করছেন।

একটি কথা না বললেই নয়, কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ মুহাম্মদ ওয়াসিমুদ্দিন যিনি তাঁর প্রজ্ঞা, মেধা, সততা ও শ্রমে কলেজকে আজকের এই অবস্থানে নিয়ে আসতে অনন্য ভুমিকা রেখেছেন তাঁর মৃত্যুর পর কলেজের তৎকালীন একমাত্র ছাত্রাবাসটি তাঁর নামে নামকরণ করা হয়। আরো দু’টি ছাত্র ও ছাত্রী নিবাস নির্মাণাধীন রয়েছে।

এই কলেজে পড়াশুনা করে যারা দেশবরেণ্য হয়েছেন তাঁদের মধ্যে রয়েছেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের বর্তমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব আব্দুল হামিদ, প্রাক্তন মহামান্য রাষ্ট্রপতি প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদ, সদ্য বিদায়ী প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য প্রফেসর ড. আ. মান্নান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য প্রফেসর ড. আলাউদ্দিন আহমেদ, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য প্রফেসর ড. দূর্গাদাস ভট্রাচার্য্য, প্রাক্তন সেনা প্রধান ও সাবেক মন্ত্রী লে. জে. (অব.) নূরুদ্দীন খান, সেনা কর্মকর্তা মেজর জেনারেল (অব.) জিয়াউদ্দিন আহমেদ, মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুল মতিন, মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য বীরত্বের জন্য বীরবিক্রম খেতাবে ভূষিত শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মো. সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

গুরুদয়াল কলেজ মোড় থেকে কলেজ ক্যাম্পাসের দিকে হাঁটতে শুরু করলে ডানদিকে সুবিশাল খেলার মাঠ, বামপাশে মসজিদ। মূল ক্যাম্পাসে প্রবেশের আগে বামপাশে তাকালেই চোখে পড়বে বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নামে নির্মিত খালেদা জিয়া ছাত্রী হোস্টেল। উল্লেখ্য যে বেগম জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন নিজেই হোস্টেলটি উদ্বোধন করেছিলেন। এই হোস্টেল গেটের সামনে এবং কলেজের সীমানা প্রাচীরের ঠিক কোণায় রাস্তার পাশ ঘেষে কৃষ্ণচূঁড়া গাছটি এমনভাবে রক্তিম আভায় দণ্ডায়মান দেখে মনে হবে যেন পুষ্পমাল্য হাতে কোন বৃক্ষদেবী দাড়িঁয়ে আছেন আলোর ভুবনে স্বাগত জানাতে।

এই কৃষ্ণচূড়া পার হয়ে যেতেই ডানদিকে রাস্তার পাশে দক্ষিণ মূখী হয়ে ভাষা শহীদদের স্মৃতি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে কলেজের শহীদ মিনার। যেটি মূলত জেলা সদরের প্রধান শহীদ মিনারও বটে। একটু সামনে এগোলেই কলেজের মূল ফটক। কলেজ ক্যাম্পাসের ভেতরে প্রবেশ করতেই বামপাশে নির্মাণ করা হয়েছে, যার নামে নামকরণ করা হয়েছে এই কলেজের সেই বাবু গুরুদয়াল সরকার এর ভাস্কর্য। আর ডানদিকে নির্মাণ করা হয়েছে এই কলেজের সূর্য সন্তান, বীরবিক্রম শহীদ সিরাজুল ইসলামের ভাস্কর্য।

কলেজ ক্যাম্পাসের মনোরম পরিবেশ, সুবিন্যস্তভাবে নির্মিত একাডেমিক ভবনগুলো এমনভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে তৈরি করা হয়েছে যাতে করে প্রত্যেকটি ভবনের সামনে রয়েছে পর্যাপ্ত খোলা জায়গা। একটি ভবন থেকে আরেকটি ভবনে যাওয়ার জন্য রয়েছে পায়ে হাটার পিচ ঢালা রাস্তা। কলেজ ক্যাম্পাসের সৌন্দর্যকে বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে কলেজের উত্তর সীমানায় নরসুন্দা নদের তীর ঘেঁষে অবস্থিত বিশাল আয়তনের পুকুর। পুরো ক্যাম্পাস জুড়ে বিশেষকরে পুকুর পাড়ে কালের সাক্ষি হয়ে দাঁড়িয়ে আছে বিশাল বিশাল নানান জাতের বৃক্ষরাজি।

এছাড়াও কলেজের পশ্চিম দক্ষিণ কোণায় নির্মাণ করা হয়েছে কিশোরগঞ্জের কৃতি সন্তান বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের নামে একটি অডিটোরিয়াম। যেখানে কলেজের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের পাশাপাশি সভা সেমিনার করার জন্য একটি মনোরম পরিবেশ তৈরি হয়েছে বলে শিক্ষকদের অনেকেই মনে করেন। গুরুদয়াল সরকারি কলেজে বিএনসিসি, রোভার স্কাউট এর কার্যক্রম বেশ প্রশংসনীয়। কলেজের প্রতিটি বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চার অংশ হিসেবে প্রায়শঃই দেয়াল পত্রিকা প্রকাশ ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে।

প্রশাসনিক ভবনের পূর্ব দিকে নরসুন্দার কুল ঘেঁষে মহান মুক্তিযুদ্ধে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্মৃতিস্বরূপ জেলার শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা খচিত একটি স্মৃতিস্তম্ভ কালের সাক্ষি হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। কলেজ ক্যাম্পাসের বাইরে সুবিশাল খেলার মাঠ ছাড়াও নরসুন্দার তীর ঘেঁষে বিস্তৃত খালি জায়গা সেই ওয়াসিমুদ্দিন মুসলিম ছাত্রাবাস হয়ে ড. ওসমান গণি ছাত্রাবাস পর্যন্ত।

নরসুন্দা লেক সিটি প্রকল্পের আওতায় এখানে নদীর উপরে নির্মাণ করা হয়েছে মুক্তমঞ্চ, পুনঃসংস্কারের মাধ্যমে কলেজ ব্রীজকে আধুনিক রূপ দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে, পাশাপাশি নরসুন্দা খননের মাধ্যমে কলেজ পাড়ার পরিবেশকে গড়ে তুলা হয়েছে একটি দর্শনীয় স্থান হিসেবে। বর্তমানে মুক্তমঞ্চকে ঘিরে কলেজের সামনে নরসুন্দার কুল ঘেঁষে যে মনোরম পরিবেশ গড়ে উঠেছে তা শুধু এই কলেজে পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের জন্য নয় বরং বিনোদন প্রেমী, সাংস্কৃতিক কর্মী থেকে সাধারণ মানুষ সবার জন্য একটি বৈকালিক আড্ডার অন্যতম স্থান হয়ে উঠেছে। এখন অনেকেই বলছেন, বর্তমানে গুরুদয়াল কলেজ অত্র অঞ্চলের শুধু একটি প্রাচীন বিদ্যাপীঠ বলেই নয় বরং বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ আসবে একটি আকর্ষণীয় স্থান পরিদর্শনের জন্য।

দুই জন মহামান্য রাষ্ট্রপতির বক্তব্য

রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ার পর ২০১৩ সালে মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব আব্দুল হামিদকে গুরুদয়াল সরকারি কলেজ কর্তৃক প্রদত্ত এক সংবর্ধনায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানটি আমার জীবনের অনন্য স্মরণীয় ঘটনা। রাষ্ট্রপতি হিসেবে নয় বরং কিশোরগঞ্জের সন্তান ও এই কলেজের ছাত্র হিসেবে আমি আপনাদের মাঝে আসতে পেরে নিজেকে গর্বিত মনে করছি। আজকের এই আনন্দঘন দিনে আমার স্মৃতিপটে ভেসে উঠছে কলেজ জীবনের কথা।

তিনি আরো বলেন, গুরুদয়াল কলেজ আমার প্রাণের কলেজ। এর প্রতিটি ধুলিকণার সঙ্গে রয়েছে আমার আত্মার সম্পর্ক।

১৯৯৩ সালে গুরুদয়াল সরকারি কলেজের সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠানে প্রদত্ত ভাষণে সাবেক রাষ্ট্রপতি, সাবেক প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমদ তার ছাত্রজীবনের স্মৃতিচারণ করেন। ১৯৪৬ সালের জুলাই মাসে তিনি এই কলেজে আই এ কাসে ভর্তি হন। পরের বছর অর্থাৎ ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের ফলে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাস অনুযায়ী ১৯৪৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে আই এ পরীক্ষা দিয়ে পাশ করে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বি এ অনার্স ভর্তি হন। পরে ১৯৫৪ সালে পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে যোগদান করেন।

সুবর্ণ জয়ন্তীতে প্রকাশিত স্মরণিকায় তিনি তাঁর বাণীতে উল্লেখ করেন, দূর থেকে এই কলেজের ক্রমোন্নতি গর্বের সঙ্গে লক্ষ্য করে আসছি। আজ এই কলেজ বাংলাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। এই কলেজ এখন সরকারি কলেজ এবং এর অনেক কৃতী শিক্ষার্থী রাষ্ট্রের ও সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে মূল্যবান অবদান রাখছেন।

বাংলাদেশের দুই দুইজন রাষ্ট্রপতি, দেশ বরেণ্য নামীদামি অনেক গুণি মানুষের বিদ্যাপীঠ এই গুরুদয়াল সরকারি কলেজ। এই কলেজ কেবল কিশোরগঞ্জ জেলার নয় বরং সারাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ হিসেবে পরিচিত। এই কলেজের যেমন রয়েছে সোনালী অতীত তেমনি প্রতিবছর উত্তরোত্তর ভাল ফলাফলের মাধ্যমে আলোকিত ভবিষ্যতের দিকেই এগুচ্ছে জেলার সবচেয়ে পুরনো এই বিদ্যাপীঠ। এই কলেজের ছাত্রত্ব অবস্থায় যারা উজ্জল ভবিষ্যতের স্বপ্ন বুনেন, তাদের স্বপ্ন একদিন গল্প হয়ে ডানা মেলবে- এমন প্রত্যাশাই থাকলো।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর








সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ