কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

১৪ দলের শরীক হিসেবে কিশোরগঞ্জ-১ আসনে মনোনয়ন চায় গণতন্ত্রী পার্টি


 সাজন আহম্মেদ পাপন, পলিটিক্যাল রিপোর্টার, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ২৯ অক্টোবর ২০১৮, সোমবার, ২:১৪ | নির্বাচনী হালফিল 


আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর) আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের পক্ষ থেকে মনোনয়ন চাইছেন গণতন্ত্রী পার্টির কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জেলার সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন।

দলটির সুত্রে জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ  নির্বাচন সামনে রেখে তারা আওয়ামী লীগের কাছে ২৬ টি আসনের লিস্ট জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে কমপক্ষে  ৫টি আসন পাবেন বলে তারা আশাবাদী। এই ৫টি আসনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ-১ আসনটি পেতে তারা জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ আসনে দোলনের মনোনয়ন নিশ্চিত করতে গণতন্ত্রী পার্টি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে আলাপ-আলোচনা করছেন বলে জানা গেছে।

ভূপেন্দ্র ভৈামিক দোলন ১৯৭৫ এর ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হলে বাংলাদেশে প্রথম তাৎক্ষণিক যে কয়জন এর প্রতিবাদ করেন ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন এদের একজন। বঙ্গবন্ধু হত্যার খবর পাওয়ার সাথে সাথে ১৫ই আগষ্ট সকালে অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলনসহ আরো বেশ কয়েকজন ছাত্রনেতার নেতৃত্বে  কিশোরগঞ্জ জেলা শহরে প্রথম প্রতিবাদ মিছিল বের করা হয়।

বাম ঘরানার তুখোর রাজনীতিবিদ দোলন ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সাথে যুক্ত। ১৯৬৮-৬৯ এর ১১ দফার আন্দোলনে তৎকালীন মহকুমা ছাত্র ইউনিয়নের সদস্য হিসেবে যুক্ত হয়ে রাজনীতির মাঠে আসেন তিনি। ১৯৭১ সালে তিনি বিশেষ গেরিলা বাহিনীর হয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন।

মুক্তিযুদ্ধোত্তর বাংলাদেশে সার্বক্ষণিক রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে প্রথমে তিনি ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) মহকুমা কমিটির অফিস সম্পাদক পরে সাংগঠনিক সম্পাদক হন। ১৯৭৪ সালে তিনি ত্রি-দলীয় ঐক্যজোটের ন্যাপের প্রতিনিধি হিসেবে ভূমিকা পালন করেন।

১৯৭৫ সালের ৭ জানুয়ারি ন্যাপের সফরকারী প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসেবে তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নে যান। সেখানে ছয় মাস অবস্থান করে সামাজিক বিজ্ঞান বিষয়ে কোর্স করেন। এ সময় তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ করেন। ১৯৭৫ সালে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাকশাল প্রতিষ্ঠা হলে সেখানে তিনি যোগ দেন।

১৯৭৭ সালের ১৭ এপ্রিল জিয়াউর রহমানের দেয়া গণভোট বানচাল করার সন্দেহভাজন হিসেবে মতিয়া চৌধুরীর বাসা থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানের আরও চার জন রাজনৈতিক সহযোদ্ধার সাথে তিনি গ্রেফতার হন। ১৯৯০ সালে গণতন্ত্রী পার্টি প্রতিষ্ঠিত হলে তিনি ওই দলে প্রথমে জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পান। পরে সাধারণ সম্পাদক হন। বর্তমানে তিনি ওই দলের জেলা কমিটির তিন তিন বারের নির্বাচিত সভাপতি। সেই সাথে ছয় বছর ধরে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পার্লামেন্টারি বোর্ডের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

জেলা গণতন্ত্রী পার্টি জানায়, বাম ঘরানার ‘কিন ইমেজের’ রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন রাজনীতি ছাড়াও কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত। তিনি ডায়বেটিক সমিতি কিশোরগঞ্জের সাত বারের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক, বর্তমানে এডহক কমিটির সদস্য। বর্তমানে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের তিনবারের নির্বাচিত সভাপতি তিনি।

অ্যাডভোকেট দোলন একাধিকবার জেলা আইনজীবি সমিতির সহসাধারণ সম্পাদক ও সম্পাদক ছাড়াও ২০০৮-৯ মেয়াদে নির্বাচিত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এ ছাড়াও শহর সমবায় সমিতি কিশোরগঞ্জ লিমিটেড এর চার বারের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক, কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিমিটেড এর নির্বাচিত ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য ও ১৯৮৮ সাল থেকে তিন বছরের মেয়াদে কিশোরগঞ্জ জেলা সমবায় ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি।

এছাড়াও তিনি কিশোরগঞ্জ জেলা নরসুন্দা মুক্ত স্কাউট গ্রুপ, সমাজ ও পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থার ও জেলা পাবলিক লাইব্রেরির তিনবারের নির্বাচিত সহসভাপতি ছিলেন। বর্তমানে উপরোল্লেখিত এসব সংগঠনের উপদেষ্টাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আছেন তিনি। সে হিসেবে এবং ব্যাক্তি ইমেজের কারণে কিশোরগঞ্জ সদর ও হোসেনপুরের রাজনীতি ও সামাজিক কার্যক্রমে  অ্যাডভোকেট দোলনের ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে।

আগামী নির্বাচনে গণতন্ত্রী পার্টির পক্ষে ১৪ দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে ইতিমধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর ও হোসেনপুর উপজেলার জনগণের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়েছেন তিনি। নির্বাচন সামনে রেখে তিনি প্রায় প্রতিদিনই দলীয় কর্মীদের নিয়ে নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন ইউনিয়নে গিয়ে সভা-সমাবেশ-উঠান বৈঠকের মাধ্যমে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। এসব গণসংযোগে আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের স্থানীয় নেতাকর্মীদের  সম্পৃক্ত করে নিজের পক্ষে জনসমর্থন আদায়ের চেষ্টা করছেন তিনি। এছাড়াও নিজের পরিচয় জানান দিয়ে তিনি জেলা শহরসহ সদর ও হোসেনপুর উপজেলার রাস্তা-ঘাট, হাটবাজারসহ বিভিন্ন জনবহুল স্থানে সাঁটিয়েছেন ব্যানার, পোস্টার।

অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলনের লোকজনের দাবি, এ আসনে তিনি ১৪ দলের পক্ষ থেকে মনোনয়ন পাবেন এবং মনোনয়ন পেলে তিনি বিজয়ী হবেন।

এ ব্যাপারে অ্যাডভোকেট দোলন বলেন, ‘নির্বাচন সামনে রেখে এলাকার মানুষের সাথে গণসংযোগ, মতবিনিময়সহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সক্রিয়ভাবে পালন করছি। শুধু নির্বাচন নয়, এলাকার মানুষের সাথে আগে থেকেই আমার ও আমার পরিবারের একটা নিবিড় সম্পর্ক আছে। গরীব অসহায় মানুষের বিপদে-আপদে সব সময় আমি পাশে থাকি।’

১৪ দলের পক্ষে  এ আসনে তাঁর মনোনয়ন চাওয়ার পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে দোলন বলেন, ‘এ আসনের দুই উপজেলায় গণতন্ত্রী পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা বেশ সুদৃঢ়। দুই উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন এমনকি ইউনিয়নগুলোর প্রতিটি ওয়ার্ডে আমাদের শক্তিশালী সংগঠন রয়েছে। সে হিসেবে আমি মনোনয়ন চাইছি। মনোনয়ন পেলে এ আসনটি আমি শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে পারবো।’



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ