কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

‘শত প্রলোভনেও সৈয়দ নজরুল মাথা নত করেননি’


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৩ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার, ১:৪০ | বিশেষ সংবাদ 


১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট সপরিবারে হত্যা করা হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। নির্মম এ হত্যাকাণ্ডের পর আওয়ামী লীগের কিছু নেতা হাত মেলান খুনিদের সঙ্গে। বারবার চাপ দেয়া হয় জাতীয় চার নেতাকে। কিন্তু তারা আপোষ করেননি। পরিণতিতে কারাগারে নিক্ষেপ করা হয় তাদের। আর কারাগারেই ১৯৭৫ সালের ৩রা নভেম্বর হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতা- সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে।

সে সময়কার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ২০১৬ সালে ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের বড় ছেলে জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছিলেন, ‘আওয়ামী লীগে সবাই মোশ্‌তাক হয় নাই। সবাই বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেনি। অনেকেই নিজের জীবন দিয়েও বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিশ্বাস রক্ষা করেছিলেন।’

২০১৫ সালের পহেলা ডিসেম্বর শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের সহোদর সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়া মারা যান। মৃত্যুর আগে জেলহত্যার মতো নির্মম হত্যাযজ্ঞের পর সেই সময়ের দুঃসহ নানা স্মৃতির কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

তিনি তখন বলেছিলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর সৈয়দ নজরুল ইসলামের বাসায় একাধিকবার ফোন করেছিলেন খন্দকার মোশতাক আহমেদ। সৈয়দা নাফিসা ইসলাম ফোন রিসিভ করলে চাইতেন সৈয়দ নজরুল ইসলামকে। কিন্তু খন্দকার মোশতাকের ফোনই ধরেননি সৈয়দ নজরুল ইসলাম।

সৈয়দা নাফিসা ইসলামকে ফোনে তখন মোশতাক বলেছিলেন, ‘আশরাফের বাপের তো ভয়াবহ পরিণতি হবে। তুমি তাকে বল আমার সাথে যেতে। আর্মিদের আমি কন্ট্রোল করতে পারছি না। আসলে ওর যা প্রাপ্য তার চাইতে বেশি সুযোগ-সুবিধা আমি দিব।’

খন্দকার মোশতাকের ফোন আর প্রলোভনের কথা সৈয়দ নজরুল ইসলামকে জানানোর পর স্ত্রী সৈয়দা নাফিসা ইসলামকে তিনি বলেছিলেন, ‘যারা বঙ্গবন্ধুসহ সারা পরিবারকে মেরে ফেলেছে। তাদের সাথে কোন কথা হতে পারে না। আমি কী করে বঙ্গবন্ধুর সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করব?’

খন্দকার মোশতাকের ডাক উপেক্ষা করায় ২৩শে আগস্ট গ্রেপ্তার করা হয় সৈয়দ নজরুল ইসলামসহ জাতীয় চার নেতাকে। জেলখানায়ও অনেক প্রলোভন দেখানো হয় সৈয়দ নজরুলকে। কিন্তু শত প্রলোভনেও তিনি মাথা নত করেননি। যতবার প্রলোভন এসেছে, প্রস্তাব এসেছে, প্রত্যেকবার তিনি তা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

আটকের ২ মাস ১১দিন পর ১৯৭৫ সালের ৩রা নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম। সেদিন মধ্যরাতে রাষ্ট্রীয় হেফাজতে বন্দি থাকা অবস্থায় নির্মমভাবে হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে।

সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়া আরো জানিয়েছিলেন, ওই সময় তিনি ঢাকাতেই ছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর সৈয়দ নজরুলসহ জাতীয় চার নেতাকে যখন গ্রেপ্তার করা হয়, তখন সৈয়দা নাফিসা ইসলাম সরকারি বাসভবন ছেড়ে গোপীবাগে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে সেখানে ওঠেন। সেই বাসা থেকেই প্রতিদিন রান্না করে সৈয়দ নজরুলের জন্য তিনি কেন্দ্রীয় কারাগারে খাবার পাঠাতেন। কিন্তু ৩রা নভেম্বর তিনি বারবার খাবার পাঠালেও প্রতিবারই কারা কর্তৃপক্ষ সেই খাবার ফেরত পাঠায়। তখনই অজানা আশঙ্কা জাগে পরিবারের সদস্যদের মাঝে। হয়তো ভয়ানক কিছু একটা ঘটেছে, এমনটি আঁচ করেন তারা। শেষ পর্যন্ত তাদের সেই আশঙ্কাই সত্যি হয়।

নারকীয় হত্যাযজ্ঞের পর সৈয়দ নজরুলের তখনকার নিরাপত্তা কর্মকর্তা এসএম করিম ঢাকার জেলা প্রশাসককে ঘটনা অবহিত করেন। জেলা প্রশাসক চরম এই দুঃসংবাদটি জানান ঢাকার আরমানিটোলায় সৈয়দ নজরুল ইসলামের সম্বন্ধী আসাদুজ্জামানের বাসায়। সৈয়দ নজরুল ইসলামের লাশ তার আরেক সম্বন্ধী মসুদুজ্জামানের পুত্র ক্যাপ্টেন আনু কারাগার থেকে আসাদুজ্জামানের বাসভবনে নিয়ে আসেন। পরে আরমানিটোলা মাঠে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়।

সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়া জানিয়েছিলেন, ৩রা নভেম্বরের জেলহত্যা ঘটনার সময় সৈয়দ নজরুল ইসলামের চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে বড় ছেলে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও ছোট ছেলে সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম দেশের বাইরে এবং সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম বিএমএ-র ট্রেনিংয়ে চট্টগ্রামে।

সৈয়দ নজরুল ইসলামের সহধর্মিণী সৈয়দা নাফিসা ইসলাম দুই মেয়ে সৈয়দা জাকিয়া আক্তার নূর লিপি ও সৈয়দা রূপা এবং অবুঝ ছেলে সৈয়দ শরীফুল ইসলামকে নিয়ে পাথরচাপা কষ্টে শোক সামলেছেন। সে সময় তাদের সমবেদনা জানানোর মতোও কেউ ছিল না। দুঃসহ যন্ত্রণা নিয়ে তাঁদের নিঃসঙ্গ দিন কাটাতে হয়েছিল।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ