kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

ক্ষতিকর পোকামাকড় নিধনে জনপ্রিয় হচ্ছে ‘আলোক ফাঁদ’


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১:৫৮ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় ফসলে ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি নিরূপনে ব্যবহৃত হচ্ছে ‘আলোক ফাঁদ’। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার আঙ্গিয়াদী ব্লকের খামা গ্রামের কৃষক আকাশ মিয়া, আবদুল মোতালিব, নূরুল ইসলাম ও সেকান্দর আলীর জমির পাশে পোকার উপস্থিতি নিরূপনে এই ‘আলোক ফাঁদ’ স্থাপন করা হয়।

এছাড়া উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্যোগে ও সহযোগিতায় প্রতি রোববার বিভিন্ন ব্লকে ‘আলোক ফাঁদ’ স্থাপন করে পোকা-মাকড়ের উপস্থিতি নিরূপন করা হয় বলেও জানা যায়। ফসলে কীটনাশক ব্যবহার না করে কম খরচে ক্ষতিকর পোকা-মাকড় নিধনে দিন দিনই কৃষকদের মাঝে ‘আলোক ফাঁদ’ পদ্ধতিটি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

এ উপলক্ষে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার আঙ্গিয়াদী ব্লকে এক কৃষক মাঠ দিবসের আয়োজন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা খামারবাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম, জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা সাদেক ইবনে ছামস, উপজেলা কৃষি অফিসার ড. গৌর গোবিন্দ দাশ, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মোহাম্মদ আনিছুজ্জামান, উপসহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা আবুল কাশেম আকন্দ ও উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ প্রমুখ।

জানা যায়, একজন কৃষক সর্বোচ্চ ফলন প্রাপ্তির আশায় তার ফসল আবাদ করে অনেক শ্রম ও অর্থ বিনিয়োগ করে থাকেন। কিন্তু তার এই নিরলস শ্রমকে ম্লান করে দেয় ফসলের ক্ষতিকর পোকামাকড়। এমন অনেক পোকামাকড় রয়েছে বীজতলা থেকে শুরু করে ফসল কর্তনের পূর্ব পর্যন্ত আক্রমণ করে থাকে এ কারণে ফসলের ক্ষতির মাত্রা কোন কোন ক্ষেত্রে শতভাগ পর্যন্ত হয়ে থাকে। এ থেকে রেহাই পেতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে ‘আলোক ফাঁদ’ যার মাধ্যমে পোকার উপস্থিতি খুব সহজেই সনাক্ত করা যায়। পোকা সনাক্ত করে সেই পোকা দমনে যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে পোকা দমন করা হয়ে থাকে।

‘আলোক ফাঁদ’ স্থাপন করার সময় হচ্ছে সন্ধ্যার পূর্ব মুহুর্ত হতে সন্ধ্যার দুই ঘন্টা পর পর্যন্ত। ফসলী জমি হতে ৫০ মিটার দুরে একটি পাত্রে পানি নিয়ে তাতে অল্প পরিমাণ ডিটারজেন্ট পাউডার মিশ্রিত করতে হয়। পাউডার মিশ্রিত  পাত্রের এক ফিট উপরে আলোর ব্যবস্থা করা হয়। আর এই আলোতে আকৃষ্ট হয়ে উপকারি ও অপকারি উভয় ধরনের পোকা এসে পাউডার মিশ্রিত পানির উপর পড়ে। এতে সহজেই পোকা সনাক্ত করা যায় এবং পোকার ধরন অনুযায়ী দমনের পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হয়।

এ বিষয়ে অঙ্গিয়াদী ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ বলেন, চলমান বোরো মৌসমে পোকামাকড়ের আক্রমনে কৃষকদের যাতে কোনরূপ ক্ষতি না হয়, নির্বিঘ্নে বোরো ফসল আবাদ করতে পারে ও  সঠিক সময়ে যেন পোকা দমনে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে সেই লক্ষ্যে বিভাগীয় নির্দেশনা মোতাবেক আলোক ফাঁদ স্থাপন করছি। যার কারণে পোকামাকড়ের আক্রমন কম হবে। কৃষক তার ফসলের সঠিক ফলন পাবে।

উপজেলার কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, পোকার উপস্থিতি নিরূপনে উপজেলার বিভিন্ন ব্লকে প্রতি রোববার আলোক ফাঁদ স্থাপন করে যাচ্ছি। পোকার উপস্থিতি লক্ষ্য করে সে অনুযায়ী দমন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। যার ফলে আশা করা যায় বোরো মৌসমে পোকা-মাকড় দ্বারা ফসলের ক্ষতি সাধিত হবে না। ফলে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে এবং কৃষকের উৎপাদন খরচও কম হবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ