কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দিলো ঈশা খাঁ বিশ্ববিদ্যালয়


 সাজন আহম্মেদ পাপন | ৭ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার, ৫:৩৪ | শিক্ষা  


কিশোরগঞ্জে ২০১৮ সালের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দিয়েছে ঈশা খাঁ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ। বুধবার (৭ নভেম্বর) সকালে শহরের গাইটাল এলাকার অতিথি কমিউনিটি সেন্টারে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী।

ঈশা খাঁ ইন্টারন্যাশেনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. সুলতান উদ্দিন ভূঞার সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. দুর্গাদাস ভট্টাচার্য, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) উপসচিব তরফদার মো. আক্তার জামীল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান বিভাগের ডিন প্রফেসর মো. আরজ আলী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার চৌধুরী বলেন, কিশোরগঞ্জকে শিক্ষা নগরী বানানোর জন্য জেলা প্রশাসন বদ্ধপরিকর। সেই লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক-নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করে যাচ্ছে।

জেলা প্রশাসক শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই যাত্রায় তোমরাও গর্বিত অংশীদার। বর্তমান সরকার প্রধান শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা নির্মাণের লক্ষ্যে যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, তাকে ত্বরান্বিত করতে তোমরা অন্যতম ভূমিকা পালন করবে।

অন্যান্য বক্তারা এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফলে জেলার ছাত্র-ছাত্রীদের বিগত বছরগুলোর সাফল্যের উর্ধগতিতে প্রশংসা করে বলেন, শিক্ষার অধিকার মানুষের সার্বজনীন অধিকার। শিক্ষার্থীদের মধ্যে জ্ঞানের ক্ষুধা থাকতে হবে। মানবসম্পদ উন্নয়নের জন্য শিক্ষা অপরিহার্য্য। শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা হতে পারে না, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হয় সেবামূলক। নৈতিকতা, সততা ও আন্তরিকতা নিয়ে জীবনের প্রতিটি পর্যায়ে কাজ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে ২০১৮ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ক্রেস্ট দিয়ে সংবর্ধিত করা হয়।

এ সময় সংবর্ধিত শিক্ষার্থীরা ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, অভিভাবক ও শহরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলে কিশোরগঞ্জ শহরের ঈশা খাঁ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ সর্বপ্রথম বেসরকারি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়। ২০১২ সালের ১৪ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়টি যাত্রা শুরু করে। বিশ্ববিদ্যলয়টির বয়স অল্প হলেও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সদ্য পাশ করা গ্র্যাজুয়েটদের অনেকইে ইতিমধ্যে বাংলাদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করে আসছেন। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত ৩০ জন শিক্ষার্থী দেশের বাইরে স্কলারশীপের মাধ্যমে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করছেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর