কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় জনপ্রিয় হচ্ছে ব্যাগিং পদ্ধতিতে বিষমুক্ত কলা চাষ


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ১০ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার, ১১:৩৬ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় বিটল পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য ব্যাগিং পদ্ধতিতে বিষমুক্ত কলা চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষক। খরচের তুলনায় লাভ দ্বিগুণ হওয়ায় অন্য ফসলের তুলনায় চাষিরা ঝুঁকছেন ব্যাগিং পদ্ধতিতে কলা চাষের দিকে। বিভিন্ন জেলায় কলার চাহিদা বেশি থাকায় লাভবান হচ্ছেন এ অঞ্চলের কলা চাষীরা।

কলা আমাদের দেশে বেশ জনপ্রিয় একটি ফল। আমাদের দেশে সারা বছরই কলা পাওয়া যায়। খাবার জন্য কাঁচা কলা এবং পাকা কলা খুবই উপকারী। পুষ্টিকর ফল হিসাবে কলার চাহিদা অনেক বেশি।

কলার অনেক গুলো জাত রয়েছে। তার মধ্যে অমৃত সাগর, সবরী, চাঁপা, মেহের সাগর, বিচি কলা, কাচ কলা এ জাতগুলো কৃষকদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। এ দেশে প্রায় বেশির ভাগ বাড়িতেই বাড়ীর আশে পাশে পতিত জায়গায় ২-৪টি কলা গাছ দেখতে পাওয়া যায়। যা পারিবারিক চাহিদা মিটানোর জন্য রোপন করা হয়।

চিকিৎসকদের মতে, প্রতিদিন যদি একটি করে কলা খাওয়া যায় তা হলে শরীরের সর্বপ্রকার ভিটামিন এর অভাব দূর হয়। সকালে ঘুম থেকে উঠার পর দুইটি কলা খেয়ে এক গ্লাস গরম দুধ খাওয়া যায় তা হলে শরীরে কোন কান্তি থাকে না। শক্তি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এনার্জিও বাড়ে। অপর দিকে খাওয়ার পর যদি প্রতিদিন একটি কলা খাওয়া যায়, তা হলে খাবার তাড়াতাড়ি হজম হয়। তাছাড়া কলার ছোকলা হাপানি ও কাশি কমায়।

কলাতে রয়েছে বিভিন্ন পুষ্টিগুণ। রয়েছে শর্করা, আমিষ, ভিটামিন ও খনিজ লবনের সমন্বয়। কলায় ভিটামিন এ, বি ও সি আছে। একটি কলা প্রায় ১০০ ক্যালরী শক্তি যোগান দেয় এবং নিরাপদ হজমের পথ্য হিসাবে কাজ করে।

স্থায়ী ভাবে আলসার আক্রান্ত রোগীরা কোন সমস্যা ছাড়াই সর্বদা কলা খেতে পারেন। ডায়েট চিকিৎসার ক্ষেত্রে ১০ থেকে ১৫ দিন পর্যন্ত প্রতিদিন ৬টি কলা এবং ৪ গ্লাস দুধ খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে। সর্বোপরি এদেশের সকল মানুষের কাছেই জনপ্রিয় ফল কলা। তাই কৃষকেরা কলা চাষ করে বেশ লাভবান হয়।

কিন্তু কলার মোচা বের হওয়ার পর কলায় বিটল পোকার আক্রমণ হয়ে থাকে। যার ফলে কলায় দাগ পরে যায়। আর দাগ যুক্ত কলার বাজার মূল্য অনেক কম। বিটল পোকা মোচা বের হওয়ার পর কলার উপরে হাটাহাটি করে ও রস চুষে খায়। ফলে কলায় বসন্ত রোগের দাগের মত দেখা যায়। কলা বড় হওয়ার সাথে সাথে দাগ গুলো আরো স্পষ্ট হয়। অধিকাংশ কলা ছোট হয় এবং ফলন কমে যায়।

এ অবস্থা থেকে রেহাই পেতে কৃষক কলায় অতি মাত্রায় বিষ প্রয়োগ করেন। যার কারণে কলার সেই পুষ্টি ও গুণাগুণ বজায় থাকে না। তাই কলার পুষ্টি গুণাগুণ বজায় রাখতে ও নিরাপদ কলা উৎপাদনের জন্য পাকুন্দিয়া উপজেলার আঙ্গিয়াদী গ্রামের কৃষক মো. বিল্লাল হোসেনের জমিতে ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম ফেজ II প্রজেক্ট (এনএটিপি-২) প্রকল্পের আওতায় কলায় ব্যাগিং প্রদর্শনী স্থাপন করা হয়। যার ফলে সেই বাগানের কলায় বিটল পোকার আক্রমণ পরিলক্ষিত হয়নি।

কৃষক মো. বিল্লাল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আঙ্গিয়াদী টান পাড়া সিআইজির সদস্য হিসাবে নিরাপদ কলা উৎপাদনের জন্য কলায় ব্যাগিং প্রদর্শনী পাই। প্রদর্শনী হতে প্রাপ্ত ছিদ্র যুক্ত পলিথিন ব্যবহার করার ফলে আমার বাগানে একটি কলার কাদিও বিটল পোকায় আক্রান্ত হয়নি এবং কোন প্রকার বিষ প্রয়োগ করার প্রয়োজন হয়নি। যার ফলে কলার বাজার মূল্য পাচ্ছি দ্বিগুণ।

এ বিষয়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ বলেন, বিটল পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে কলায় ব্যাগিং একটি কার্যকর প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তি দেখে ইতিমধ্যে অনেক কৃষক আকৃষ্ট হয়েছে এবং বেশ কয়েকজন নন সিআইজি কৃষক এই প্রযুক্তি ব্যবহার করছে।

ব্যাগিং পদ্ধতিতে কীটনাশক ব্যবহার করতে হয় না বিধায় কৃষকদের আর্থিক সাশ্রয় হচ্ছে এবং কলার বাজার মূল্য বেশি পাচ্ছে। অপর দিকে নিরাপদ কলা বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। তাই আশা করা যায় ধীরে ধীরে সকল কলা চাষী এ প্রযুক্তি ব্যবহারের আওতায় চলে আসবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর


















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ