কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু তাহের সাঈদের মৃত্যুর কারণ নির্ণয়ে পোস্টমর্টেম


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১০ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার, ১:৫৪ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জ কালেক্টরেটের সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু তাহের মোহাম্মদ সাঈদ এর মৃত্যুর কারণ নির্ণয়ে পোস্টমর্টেম করা হয়েছে। শনিবার (১০ নভেম্বর) সকালে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে লাশের পোস্টমর্টেম করা হয়।

পোস্টমর্টেমের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. রমজান মাহমুদের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। মেডিকেল বোর্ডের অন্য সদস্যরা হলেন, কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আবুল হোসেন মাছুম, ডা. সজীব ঘোষ, ডা. মামুনুর রশিদ ও ডা. মাইনুল হাসান।

মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা অত্যন্ত নিবিড়ভাবে লাশের পোস্টমর্টেম সম্পন্ন করেন। এ সময় কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান পর্যবেক্ষক হিসেবে সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

পোস্টমর্টেম শেষে সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান জানান, লাশের কপাল, নাক ও মাথার ডান পাশে চারটি ছোট্ট আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ে ভিসেরা পরীক্ষার জন্য ঢাকার মহাখালীতে নমুনা পাঠানো হচ্ছে।

এর আগে শুক্রবার (৯ নভেম্বর) রাত ১০টায় শহরের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদ প্রাঙ্গণে মরহুমের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

নামাজে জানাজায় সর্বস্তরের হাজারো মানুষের ঢল নামে। নামাজে জানাজায় ইমামতি করেন পাগলা মসজিদের খতিব মাওলানা আশরাফ আলী।

নামাজে জানাজার আগে সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। তিনি কিশোরগঞ্জে কর্মকালীন সময়ে আবু তাহের সাঈদের অবদানের কথা তুলে ধরে মরহুমের আত্মার মাগফেরাতের জন্য সবার কাছে দোয়া চান।

নামাজে জানাজায় জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী ছাড়াও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ, বিপিএম, জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বিভিন্ন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, জনপ্রতিনিধি, শহরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন।

শনিবার (১০ নভেম্বর) ময়নাতদন্তের পর দাফনের জন্য নরসিংদী জেলার পলাশ উপজেলার মাঝেরচর গ্রামের বাড়িতে লাশ নিয়ে যাওয়া হয়।

শুক্রবার (৯ নভেম্বর) বিকাল ৫টার দিকে শহরের পুরাতন কোর্ট এলাকার অফিসার্স ডরমেটরিতে আবু তাহের সাঈদ (৫৭) কে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়। দ্রুত কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

তাঁর মৃত্যুর খবরে কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ, বিপিএম প্রমুখসহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা হাসপাতালে ছুটে যান।

সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু তাহের মোহাম্মদ সাঈদ এর মৃত্যুর কারণ হিসেবে প্রাথমিকভাবে ফুড পয়জনিংয়ের কথা বলা হলেও মৃত্যুর সুস্পষ্ট কারণ নির্ণয়ের জন্য পোস্টমর্টেম করা হয়।

কিশোরগঞ্জে মাদক, ভেজাল বিরোধী এবং অবৈধ দখল উচ্ছেদ অভিযানে নেতৃত্ব দিয়ে আলোচিত সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু তাহের মোহাম্মদ সাঈদ ৭ম বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়ে প্রশাসন ক্যাডারে যোগদান করেন। প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করা আবু তাহের মোহাম্মদ সাঈদ একজন সৎ, সাহসী, নির্লোভ ও নিরহংকারী মানুষ ছিলেন।

চিরকুমার আবু তাহের সাঈদ চাকুরির সিংহভাগ সময় কাটিয়েছেন কিশোরগঞ্জ জেলায়। এখানকার মাটি ও মানুষের সাথে তাঁর ছিল নিবিড় যোগাযোগ। এরকম একজন জনবান্ধব, সৎ ও সাহসী কর্মকর্তার মৃত্যুতে গোটা জেলায় শোকের ছায়া নেমে আসে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর