কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ওসমান ফারুকের দেশে ফেরা-না ফেরা নিয়ে নানা গুঞ্জন


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২০ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৫:৫২ | নির্বাচনী হালফিল 


করিমগঞ্জ ও তাড়াইল উপজেলা নিয়ে কিশোরগঞ্জ-৩ আসন। স্বাধীনতাপরবর্তী বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত দশটি নির্বাচনের মধ্যে ১৯৯৬ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনসহ মাত্র দুইবার বিএনপি এই আসনে জয়ের স্বাদ পায়। বাকি আটটি নির্বাচনে জয় পান অন্যরা।

এর মধ্যে একবার স্বতন্ত্র, তিনবার আওয়ামী লীগ এবং সর্বোচ্চ সংখ্যক চারবার জাতীয় পার্টি এই আসনটি নিজেদের দখলে নেয়। এই চার বারই জাতীয় পার্টির প্রার্থী ছিলেন মো. মুজিবুল হক চুন্নু। এর মধ্যে অবশ্য ২০০৮ সালের নির্বাচনে তিনি লড়েছেন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থী হিসেবে এবং সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে প্রার্থী দিয়েও শেষ মুহূর্তে প্রত্যাহার করে নেয় আওয়ামী লীগ।

জাতীয় পার্টির অন্যতম প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. মুজিবুল হক চুন্নু বর্তমান সরকারের শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। এবারের সংসদ নির্বাচনেও তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

১৯৯৬ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি প্রথম এই আসনটি নিজেদের দখলে নেয়। তবে ১২ই জুনের প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী তৃতীয় হন। ২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাবেক বিশ্বব্যাংক কর্মকর্তা ড. এম ওসমান ফারুককে দিয়ে আসনটিতে বিজয়ীর হাসি হাসে বিএনপি।

কিন্তু পরবর্তী নির্বাচনে এই বিজয় আর ধরে রাখতে পারেনি দলটি। ‘সংস্কারপন্থী’ হিসেবে মনোনয়নবঞ্চিত হন জোট সরকারের শিক্ষামন্ত্রী ড. এম ওসমান ফারুক। চারদলীয় জোট প্রার্থী হিসেবে জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মোল্লা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন।

নির্বাচন পরবর্তী সময়ে দলে ফের গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠেন ড. এম ওসমান ফারুক। ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের আগে ও পরে সরকারবিরোধী আন্দোলনে তিনি সরব ও সক্রিয় ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। ওয়ান ইলেভেন পূর্ববর্তী সময়ে জেলা বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করা ড. এম ওসমান ফারুক এই সময়ে কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির রাজনীতিতেও নিয়ন্ত্রক হয়ে ওঠেন। তাঁর সমর্থন আর আশির্বাদ পাওয়া নেতৃত্বে এখন চলছে জেলা বিএনপি।

২০১৪ সালের ১২ই নভেম্বর কিশোরগঞ্জে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সফরে এলে ড. এম ওসমান ফারুকের সার্বিক তদারকিতে সভাটিতে ব্যাপক জনসমাগম হয়। ফলশ্রুতিতে বিএনপি চেয়ারপার্সনের সাবেক এই উপদেষ্টা বর্তমান কমিটিতে ভাইসচেয়ারম্যান হিসেবে জায়গা করে নেন।

সব মিলিয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণাটুকু ছাড়া এবারের নির্বাচনে এই আসনে ড. এম ওসমান ফারুকের প্রার্থিতা ছিল অনেকটাই নিশ্চিত। এ রকম পরিস্থিতিতে ২০১৬ সালের ৪ঠা মে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার প্রধান এম সানাউল হক একাত্তরে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক থাকাকালে ড. এম ওসমান ফারুক স্বাধীনতাবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন উল্লেখ করে ট্রাইব্যুনাল তার বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগের তদন্ত  করছে বলে জানান।

এতেই বদলে যায় দৃশ্যপট। মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ ওঠার পর পরই ড. এম ওসমান ফারুক আত্মগোপনে চলে যান। তিনি বর্তমানে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর এই আসনের জন্য তাঁর পক্ষ থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দেয়া হলেও মঙ্গলবার (২০ নভেম্বর) বিকালে এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত তিনি যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

ঘোষিত নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ আগামী ২৮শে নভেম্বর। সময়ে হিসেবে মনোনয়ন পত্র জমা দেয়ার জন্য হাতে আরো ৮ দিন সময় রয়েছে। নির্বাচনে অংশ নিতে চাইলে এই সময়ের মধ্যে ড. এম ওসমান ফারুককে দেশে ফিরতে হবে।

শেষ পর্যন্ত ওসমান ফারুক দেশে না ফিরলে এই আসনে কে বিএনপি জোটের প্রার্থী হবেন- এ আলোচনা এখন সাধারণ মানুষের মাঝে। এ রকম পরিস্থিতিতে তাঁর দেশে ফেরা-না ফেরা নিয়ে তাঁর সংসদীয় এলাকায় নানা গুঞ্জন চলছে। বিষয়টি কেবল তাঁর সংসদীয় এলাকাই নয়, জেলার রাজনীতিতেও কৌতূহলে পরিণত হয়েছে।

ড. এম ওসমান ফারুকের নির্বাচনী আসন করিমগঞ্জ ও তাড়াইল উপজেলা বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সাথে কথা হলে তারাও ড. এম ওসমান ফারুকের দেশে ফিরে নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যাপারে দ্বিধা-দ্বন্দ্বে থাকার কথা জানান।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ