কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মুক্তাগাছায় গোপাল পালের দু’শ বছরের মণ্ডার দোকান


 মোস্তফা কামাল, মুক্তাগাছা থেকে ফিরে | ১ ডিসেম্বর ২০১৮, শনিবার, ১২:৫৪ | ময়মনসিংহ  


দেশের বিভিন্ন জেলার বা বিভিন্ন এলাকার এক ধরনের পরিচিতি গড়ে ওঠে সেখানকার কোন বিশিষ্ট ব্যক্তি, ঐতিহ্যবাহী পণ্য, দর্শনীয় স্থান বা স্থাপনাকে কেন্দ্র করে। ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার লোভনীয় মণ্ডার পরিচিতিও তেমনি দেশময়। মানুষ দেশের যে কোন জায়গায় গিয়ে মণ্ডা খাক না কেন, দোকানি বলবে ‘মুক্তাগাছার মণ্ডা’।

মণ্ডার আদি জন্মস্থান মুক্তাগাছা। তবে মুক্তাগাছায় অনেক মণ্ডার দোকান আছে। কিন্তু মণ্ডার আদি দোকান একটিই। আর সেই দোকানের মণ্ডার মত সুস্বাদু মণ্ডা সবাই তৈরি করতে পারে না।

সেই দোকানটি প্রায় দুশ’ বছর আগে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন স্বর্গীয় গোপাল পাল। তার নামানুসারে দোকানের নাম রাখা হয়েছে ‘গোপাল পালের মণ্ডার দোকান’। আর তাদের মণ্ডাকে বলা হয় সিংহ মার্কা মণ্ডা। দোকানের সমনে সিংহের একটি বড় প্রতিকৃতি রাখা আছে।

গোপাল পালের জন্ম ১২০৬ বঙ্গাব্দে, মৃত্যু ১০৮ বছর বয়সে ১৩১৪ বঙ্গাব্দে। অর্থাৎ, আজ থেকে ২১৯ বছর আগে তার জন্ম। আর মৃত্যুবরণ করেছেন ১১১ বছর আগে। দোকানের সামনের অংশে একটি কাঁচের শোকেসের ভেতর তার কাঠের তৈরি ভাস্কর্য রাখা আছে।

সম্প্রতি তার দোকানের সামনে গিয়ে দেখা গেছে, বেশ কয়েকটি মাইক্রো আর প্রাইভেট কার দাঁড়িয়ে আছে মণ্ডা কেনার জন্য।

দোকানের ভেতর গিয়ে দেখা গেছে, অনেকগুলো বাক্সে এক কেজি, দুই কেজি, আধা কেজি করে দুই জাতের মণ্ডা ভরে নেটের ভেতর রাখা হয়েছে। তবে প্রদর্শনের জন্য কোন খোলা জায়গায় কিংবা কাঁচের আলমারি বা শোকেসের ভেতর কোন মণ্ডা দেখতে পাওয়া যায়নি। দোকানের পেছনের কারখানা থেকে তরতাজা মণ্ডা প্যাকেট করে এনে সামনে রাখা হচ্ছে।

চিনির মণ্ডা বিক্রি হচ্ছে ৫শ’ টাকা কেজি, আর গুড়ের মণ্ডা বিক্রি হচ্ছে ৬শ’ টাকা কেজি। বহু মানুষ দূরদূরান্ত থেকে গাড়ি নিয়ে গিয়ে এসব মণ্ডা কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। আবার দোকানে বসে খাওয়ার ব্যবস্থাও আছে।

দোকানের ক্যাশে বসে আছেন গোপাল পালের নাতির নাতি রবীন্দ্রনাথ পাল। তারও বয়স এখন প্রায় ৮০। তিনি জানালেন, তারা ৫ ভাই এই ব্যবসার ঐতিহ্যটি ধরে রেখেছেন।

তারা বাইরের কোন মিষ্টি ব্যবসায়ীর কাছে এসব মণ্ডা পাইকারি বিক্রি করেন না। কেবলমাত্র খাবার জন্যই খুচরা বিক্রি করেন। ফলে এই দোকানের মণ্ডা বাইরের কোন দোকানে পাওয়া যাবে না। যদিও অনেকে ‘গোপাল পালের সিংহ মার্কা মণ্ডা’ বলে ক্রেতাদের কাছে অন্য দোকানের মণ্ডা বিক্রি করেন।

রবীন্দ্রনাথ পালকে প্রশ্ন করলে তিনি এ প্রতিনিধির কাছে দৈনিক কি পরিমাণ মণ্ডা বিক্রি হয়, কত টাকার মণ্ডা বিক্রি হয়, তা জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।

তাদের দোকানের মণ্ডার স্বাদ সত্যিই ভিন্ন। অন্য দোকানের মণ্ডার সঙ্গে এর তেমন মিল নেই। তাদের দোকানটি ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল সড়ক থেকে একটু ভেতরের দিকে। মুক্তাগাছায় মেইন রোডে গিয়ে জিজ্ঞেস করলেই সবাই দেখিয়ে দেবেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর









সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ